সিনেমা হলের গলি

ডিয়ার বক্স অফিস, গেট রেডি ফর দ্য টাইফুন!

দুপুর নাগাদ তরন আদর্শের টুইটটা এসে গেল, যেটার জন্যে অপেক্ষা ছিল। বলিউডি সিনেমার ট্রেড ফিগারের জন্যে এই ভদ্রলোকের ওপর চোখ বন্ধ করে বিশ্বাস করা যায়, তার মুখের কথাতেও ইদানিং সিনেমার ভবিষ্যত নির্ভর করে খানিকটা। তরন জানালেন, হিন্দি সিনেমার ইতিহাসে একদিনে সর্বোচ্চ আয়ের আগের রেকর্ডটা ভেঙে গেছে, নতুন করে ইতিহাস লিখেছে ঋত্বিক রোশান এবং টাইগার শ্রফের ‘ওয়ার’ সিনেমাটা। গান্ধী জয়ন্তীর ছুটিতে মুক্তির প্রথম দিনে শুধু ভারত থেকেই সিনেমাটা কামিয়ে নিয়েছে ৫৩ কোটি রূপিরও বেশি!

গতকাল সকাল থেকেই ভারতের সিনেমা হলগুলোতে দর্শকের ঢল নেমেছিল। ছুটির দিনে থিয়েটার বা মাল্টিপ্লেক্সে গিয়ে সিনেমা দেখার কালচারটা অনেক আগে থেকেই প্রচলিত আছে ভারতে। সকালের শো-গুলোতেই শতকরা পঁচাশি ভাগ দর্শক হাজির ছিলেন, ঈদ বা বড়দিনের মতো উৎসবের সময়ও কোন সিনেমা এমন রেসপন্স পায় না। অগ্রিম টিকেট বুকিঙের দিক থেকেও রেকর্ড গড়েছিল ওয়ার। ধারণা করা হচ্ছিল, প্রথম দিনের বক্স অফিস কালেকশনটা চল্লিশ থেকে পঁয়তাল্লিশ কোটি রূপির মধ্যে থাকবে। কিন্ত ওয়ার যে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে চুরমার করে দেবে, সেটা ভাবা যায়নি।

এর একটা কারণ অবশ্যই স্ক্রিন সংখ্যা। ভারতে ওয়ার মুক্তি পেয়েছিল মাত্র চার হাজার স্ক্রিনে, খানদের সিনেমার সঙ্গে তুলনা করলে সংখ্যাটা কমই। প্রথম দিনে ওয়ার যার রেকর্ডটা ভেঙেছে, সেই থাগস অফ হিন্দোস্তানই মুক্তি পেয়েছিল ৪৭০০ এর বেশি স্ক্রিনে। কম সংখ্যক হলে মুক্তি পেয়েও সিনেমাটা বেশি ব্যবসা করেছে দর্শকদের দারুণ আগ্রহের কারণে। ঋত্বিক আর টাইগারের জুটিকে প্রথমবারের মতো পর্দায় টক্কর লাগতে দেখার অপেক্ষায় ছিলেন বলিউডি দর্শকেরা।

সিনেমা হল থেকে ধারণ করা ভিডিও ফুটেজগুলোতেও সেসব আগ্রহের কিছু নমুনা দেখা গেছে। ঋত্বিক বা টাইগারের এন্ট্রি সিনগুলোতে তালি আর শীষের বন্যা বয়ে গেছে, দুজনের অ্যাকশন সিনগুলোতেও দারুণ সাড়া দিয়েছে দর্শক। হলফেরত সমীক্ষায় নেগেটিভ রিভিউ আসেনি খুব একটা, বলিউড হাঙ্গামা, টাইমস অফ ইন্ডিয়া, ফিল্ম কম্প্যানিয়ন থেকে শুরু করে আরও যারা সমালোচক আছেন, সবার রিভিউই মিক্সড থেকে পজিটিভের দিকেই ধাবমান।

আবার তরণ আদর্শের কাছে ফিরে যাওয়া যাক। বলিউডে ইদানিং এই ভদ্রলোকের রিভিউকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয়। জিরো, থাগস অফ হিন্দোস্তান, রেস-৩ এর মতো সিনেমার নেগেটিভ রিভিউ দিয়েছিলেন তিনি, বিশাল বাজেটের এই সিনেমাগুলোও দিনশেষে ব্যবসা করতে পারেনি বক্স অফিসে, কারণ তারকায় ঠাসা হলেও, সেগুলোর কন্টেন্টে সমস্যা ছিল। সেই তরন আদর্শ সিনেমাটা দেখে তার বিখ্যাত ওয়ান ওয়ার্ড রিভিউতে লিখেছেন- ‘ব্লকবাস্টার’! টাইগার আর ঋত্বিকের জুটির প্রশংসা করেছেন তিনি, বক্স অফিসে যে এই সিনেমা টাইফুন তুলতে যাচ্ছে, সেটাও উল্লেখ করে দিয়েছেন।

তরনের কথার সত্যতা প্রমাণ হচ্ছে বক্স অফিস কালেকশনেই। হলিউডি সিনেমা ‘জোকার’ ভারতে মুক্তি পেয়েছে একই দিনে, তারকাবহুল দক্ষিণী সিনেমা সায়েরা নরসিমহা রেড্ডিও মুক্তি পেয়েছে এই উৎসবে। পশ্চিমবঙ্গে একসঙ্গে রিলিজ হয়েছে জিৎ, দেব, প্রসেনজিৎদের সিনেমা। এতসবের ভীড়েও যে ঠাঁটবাট বজায় রেখে আয়ের রেকর্ডটা গড়ে ফেললো ওয়ার, সেটাকে বিশ্লেষণ করাটা আসলে সহজ কিছু নয়।

ওয়ার ঝড় যে খুব সহসা থামছে না, এটা নিশ্চিত। পাঁচদিনের এক্সটেন্ডেড উইকেন্ড পাচ্ছে সিনেমাটা, ছুটির মেজাজে আছে পুরো ভারতই। নেগেটিভ রিভিউ না থাকায় দর্শক সিনেমা হলে ভীড় জমাচ্ছেন, প্রি-বুকিঙের পরিমাণ বাড়ছে প্রতিনিয়তই। দিল্লি-মুম্বাইয়ের অনেক মাল্টিপ্লেক্সে টিকেটের হাহাকারের খবর আসছে এখনও। কাজেই তরণ আদর্শ যে টাইফুনের কথা বলেছেন, সেটা মিথ্যে নয় মোটেও।

বলা হয়, তারকার নামে সিনেমা চলে মুক্তির প্রথম দুইদিনে। সিনেমায় মালমশলা না থাকলে তৃতীয় দিন থেকে আতস কাঁচ দিয়ে খুঁজেও দর্শক পাওয়া যাবে না। ওয়ার সেদিক দিয়েও এগিয়ে আছে, কারণ নেগেটিভ রিভিউ নেই বললেই চলে। থ্রিলারধর্মী এই অ্যাকশন সিনেমাটা মাস্টারপিস নয় অবশ্যই, কিন্ত ভালো সিনেমার স্বীকৃতিই পাচ্ছে দর্শক-সমালোচকের তরফ থেকে।

সব মিলিয়ে ওয়ারের বাজেট ছিল ২০০ কোটি রূপি। প্রথম দিনে ভারত থেকে শুধু হিন্দি ভার্সনেই ওয়ারের আয় ৫১ কোটির বেশি, তামিল, তেলুগুসহ আরও কয়েকটা ভাষায় মুক্তি পাওয়ায় বাড়তি দুই কোটি জমা পড়েছে সিনেমাটার খাতায়। বক্স অফিসের এই জয়যাত্রা অব্যহত থাকলে সেই টাকাটা প্রথম সপ্তাহেই উঠে আসার কথা, হয়তো সপ্তাহের শেষেই বিগ বাজেটের এই সিনেমাটাকে হিট হিসেবে ঘোষণা করা হবে। অনেক অনেক বছর বাদে ব্লকবাস্টারের দেখাও পেতে পারেন ঋত্বিক রোশান।

Facebook Comments

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button