সিনেমা হলের গলি

ভিকি কৌশল- বলিউডের নেক্সট বিগ থিং!

গত বছরের এপ্রিলে মুক্তি পাওয়া ‘রাজী’ দিয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম একশো কোটির ক্লাবে নাম লিখিয়েছিলেন ভিকি কৌশল। কিন্ত আলোচনার বেশিরভাগটাই হলো আলিয়া ভাটকে নিয়ে, ভিকি সেখানে প্রায় অপাংক্তেয়! এরপরে জুনে এলো ‘সাঞ্জু’, সেটা তো তিনশো কোটিই ছুঁয়ে ফেললো, বছরের সর্বোচ্চ আয় করা সিনেমা ছিল সাঞ্জু। কিন্ত সেটাও ভিকি কৌশলের সিনেমা নয়, অভিনয় প্রশংসিত হলেও, রাজকুমার হিরানী, সঞ্জয় দত্ত বা রনবীর কাপুরের নামের আড়ালে তিনি চাপা পড়েই রইলেন। একটা জেদ চেপে গিয়েছিল কিনা কে জানে! আর সেজন্যেই হয়তো সবাইকে দেখিয়ে দেয়ার মঞ্চ তৈরি করলেন নিজেই। সেই মঞ্চের নাম ‘উরি’!

‘উরি’ মুক্তির পর থেকে আক্ষরিক অর্থেই আকাশে উড়ছেন ভিকি কৌশল। ২০১৯ সালে বলিউডের প্রথম সিনেমা, সেটাই কিনা ব্লকবাস্টার! পঞ্চাশ কোটিরও কম বাজেটের এই সিনেমাটা শুধু ভারত থেকেই আয় করেছে দুইশো কোটিরও বেশি! মুক্তির পরে প্রথম নয় দিনে একশো কোটির ম্যাজিক্যাল ফিগার পার করে ফেলেছিল বক্স অফিসে, মাত্র তিনদিনের মাথায় খেতাব পেয়ে গিয়েছিল সুপারহিট হিসেবে- ভিকি কৌশলের জন্যে এটা ভীষণ স্পেশাল।

আগেই বলেছি, এর আগে তার অভিনীত সিনেমা একশো-দুশো কোটি রূপির ব্যবসা করেছে, কিন্ত ‘রাজী’ বা ‘সাঞ্জু’- কোনটাই আসলে ‘তার সিনেমা’ ছিল না। কন্টেন্টকে গুরুত্ব দিলে ফলাফলটা যে হাতেনাতে পাওয়া যায়, সেটার বড়সড় উদাহরন দেয়া যায় ভিকি কৌশলকে দিয়েই। ক্যারিয়ারটা দেখুন এই ছেলের, মাসান দিয়ে শুরু, এরমধ্যেই রমন রাঘব ২.০, রাজী, সাঞ্জু, উরি’র মতো দারুণ সব সিনেমা যোগ হয়ে গেছে নামের পাশে! সাধে তো আর তাকে বলিউডের ভবিষ্যত কাণ্ডারী হিসেবে ভাবা হচ্ছে না!

ফিল্মি পরিবার থেকেই এসেছেন, বাবা বিখ্যাত ফাইট ডিরেক্টর শ্যাম কৌশল। নিজের জায়গায় তিনিও মোটামুটি কিংবদন্তী, ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড, ফিল্মফেয়ার- কি জেতেননি তিনি! সেই বাবার ছেলে ফিল্মে আসবেন না, এটা হয় নাকি আবার? অনুরাগ কাশ্যপের গ্যাংস অফ ওয়াসিপুর সিরিজে কাজ করেছিলেন অ্যাসিস্টেন্ট ডিরেক্টর হিসেবে, বাবা ছিলেন সেই সিনেমার ফাইট ডিরেক্টর। মাঝে দুটো সিনেমায় সামান্য সময়ের জন্যে দেখা গেল তাকে, তবে সেটা নোটিশ করার মতো নয় খুব একটা।

ফাটিয়ে দিয়েছিলেন ‘মাসান’ দিয়ে। নজর কেড়ে নিলেন, বা বলা ভালো, সবাইকে তার দিকে নজর দিতে বাধ্য করলেন। ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করে যন্ত্রমানব হতে না চাওয়া ছেলেটার অভিনয় দেখে থ হয়ে যেতে হলো! প্রেমিকার মারা যাওয়ার খবরটা পেয়ে ভিকি কৌশলের অভিব্যক্তি দেখে শরীর কেঁপে উঠেছিল দর্শকের। এরপর অনুরাগের পরিচালনায় রমন রাঘব ২.০, যতোক্ষণ স্ক্রীনে ছিলেন, আলো ছড়িয়েছেন। সাঞ্জুতে নায়কের বন্ধু হয়েও নিজেকে ফিকে হয়ে যেতে দেননি, পাল্লা দিয়ে অভিনয় করেছেন রনবীর আর পরেশ রাওয়ালের সঙ্গে। আলিয়া ভাটের সঙ্গে রাজী-তেও তিনি সমান উজ্জ্বল। আর এবার তো উরি কেবলই তার সিনেমা, সেখানে তিনিই সবকিছু!

একদম শুরু থেকেই বেছে বেছে কাজ করছেন, গল্পটা মন জয় করতে না পারলে পারতপক্ষে হাত দিচ্ছেন না সেখানে। এই অল্প বয়সেই এমন চমৎকার বাছবিচার, প্রশংসা করার মতোই। মোটাদাগে ধরলে তার ক্যারিয়ার শুরু হয়েছে ২০১৫ সালে, গত বছরটাতেই পাঁচটা সিনেমা মুক্তি পেয়েছে, এবং একটার চেয়ে আরেকটা আলাদা, একঘেয়ে হয়ে যাওয়ার কোন সুযোগই রাখেননি তিনি কোথাও। বক্স অফিসের রেজাল্ট যা-ই বলুক, স্ক্রিনে তিনি রাজত্ব করছেন দাপট দেখিয়ে, সেটা তার নিন্দুকেরাও স্বীকার করবেন। টাইপকাস্ট হওয়াটা সম্ভবত তার সবচেয়ে অপছন্দের বিষয়গুলোর মধ্যে একটা হবে, তাই ভ্যারিয়েশনের এমন দারুণ নজির স্থাপন করে চলেছেন ভিকি।

এই ভ্যারিয়েশনটা থাকার কারণেই হয়তো, সমালোচকেরা একটু সুদৃষ্টিতেই দেখেন এই তরুণকে। বলিউডে বর্তমানে নেপোটিজমের উদাহরণ দিতে শুরু করলে রনবীর কাপুর থেকে শুরু করে আলিয়া ভাট, কিংবা অর্জুন কাপুর থেকে সোনাক্ষী সিনহা- সবারই নাম আসে, তবে ভিকি কৌশলকে নেপোটিজমের ওই মঞ্চ থেকে কেন যেন আড়ালে রাখতে চান অনেকেই। অথচ তিনিও বিখ্যাত বাবারই সন্তান। রনবীর কাপুরকে তার পরিবারের তারকাখ্যাতির সঙ্গে যতোবার তুলনা করা হয়েছে, ভিকি কৌশলকে এর দশ ভাগের এক ভাগও করা হয়নি। এই বাড়তি অ্যাডভান্টেজটুকু তিনি পেয়ে আসছেন শুরু থেকেই।

ছোটবেলা থেকেই জলের মতো শান্ত ছিলেন, তাই ভালো ছেলের একটা ইমেজ দাঁড়িয়ে গেছে সবার কাছে। এখন তারকাখ্যাতি তার সঙ্গী, ইনস্টাগ্রাম-টুইটারে লক্ষ-কোটি ফ্যান ফলোয়ার, কোথাও গেলেই তরুণ-তরুণীরা সেলফি তোলার জন্যে হামলে পড়ে। আর তাই রাস্তায় বেরিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে মন খুলে আড্ডা দেয়াও হয়ে ওঠে না। এসব দেখেশুনে বন্ধুরা আফসোসে মাথা নেড়ে বলে, ‘তুই বদলে গিয়েছিস ভিকি!’ ভিকি কৌশল আপত্তি তোলেন তাদের কথায়।

বাসায় একটু জোরে কথা বললেও মা আড়চোখে তাকান, খোঁটা মেরে বলেন, ‘হ্যাঁ, এখন তো জোরে কথা বলবেই, স্টার হয়েছো না!’ ভিকি কৌশল নিজেকে বদলাতে চান না, স্টারও হতে চান না। তিনি শুধু চান, ক্যারিয়ারের পড়ন্তবেলায় যেন লোকে তাকে তার অভিনয়ের জন্যেই মনে রাখে, তারকাখ্যাতির জন্যে নয়! যে পথে তিনি হেঁটে চলেছেন, তাতে সেটা অসম্ভব নয় মোটেও…

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Back to top button