ইনসাইড বাংলাদেশযা ঘটছে

ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা বাড়াবাড়ি ছাড়া কিছু নয়

ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে ‌ডিজিটল নিরাপত্তা আইনে যে মামলা হলো সেটাও কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমি আগেই বলেছি, প্রিয়া সাহা অবশ্যই মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন। কিন্তু সেই ইস্যুতে যেভাবে হিন্দুদের সমানে গালিগালাজ হয়েছে সেটা মোটেও ভালো লাগেনি। এমনকি ব্যারিস্টার সুমন যেভাবে আগ বাড়িয়ে মামলা করতে চাইলেন সেটিও ভালো লাগেনি। রাষ্ট্রদোহ মামলা করর জন্য রাষ্ট্র আছে। কিন্তু এখন ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে ‌ডিজিটল নিরাপত্তা আইনে যে মামলা হলো সেটাও কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। সবকিছুতে বাড়বাড়ি না করলে আমাদের তো চলে না?

খবরে জানলাম, আজ সোমবার বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালে ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। তাতে তার বিরুদ্ধে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কটূক্তি করার অভিযোগ আনা হয়েছে।

কিন্তু ব্যারিস্টার সুমন আগে থেকেই বলে আসছেন তার এই ফেসবুক আইডিটি ফেক। তিনি গত ২০ জুলাই তার ভেরিফাইড ফেসবুকে লিখেন, “আমার নাম ব্যাবহার করে একটি ফেক পেজ হিন্দু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে বিষেদগার করছে। আমি এ বিষয়টি পুলিশকে জানিয়েছি। আপনারা সচেতন থাকবেন। এটাই আমার একমাত্র পেজ যার ফলোয়ার ২০ লাখের অধিক। আমি সবসময় এদেশের নিপীড়িত মানুষ এবং সত্যের পক্ষে থাকার চেষ্টা করি।”

এই মামলার বাদীদের বলবো, আপনারা নিশ্চিত হন ব্যারিষ্টার সুমন আসলেই এ কথা বলেছেন কী না। পুলিশও তদন্ত করুক। যদি তিনি না বলে থাকেন এবং ফেক আইডি হয় তাহলে মামলাটা প্রত্যাহার করা হোক। অযথা এই ধরনের পাল্টাপাল্টি মামলা সমাজে, রাষ্ট্রে সংকট বাড়াবে। নতুন সমস্যা তৈরি করবে।

প্রিয়া সাহা, ব্যারিস্টার সুমন

আর ব্যারিষ্টার সুমনকে আমরা দেখেছি নুসরাতের ঘটনায় ওসির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। জনস্বার্থে অনেক কাজ করছেন তিনি। প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে তার মামলা করতে চাওয়ার বিষয়টি হয়তো আপনাদের আহত করেছে। সেটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এই ধরনের ভেদাভেদ সংকট আরও বাড়াবে। কাজেই সবাইকে শান্ত হওয়ার আহবান জানাচ্ছি। এইসব মামলা, পাল্টা মামলা, ঘৃণার বাণী, আরেকজন বা আরেক সম্প্রদায়কে গালিগালাজ সংকট বাড়ায় বৈ কমায় না। কাজেই চলুন সবাই বিবেকবোধ দিয়ে কাজ করি।

সবার কাছে বিনীত অনুরোধ, একটু ঠাণ্ডা মাথায় ভাবুন। দেশে এখন বন্যা, গণপিটুনির মতো ভয়াবহ সমস্যা। বন্যা পূর্বাভাস এবং সতর্কীকরণ কেন্দ্র বলছে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের মধ্যাঞ্চলের আরো চারটি জেলা প্লাবিত হতে পারে। এ নিয়ে মোট ২২টি জেলা বন্যায় আক্রান্ত হবে। আপনাদের সবার কাছে অনুরোধ, চলুন হিংসা আর ঘৃণা না ছড়িয়ে মানুষের কথা ভাবি। শান্তির কথা ভাবি। চলুন সবাই একবার ভাবি, মানুষ হিসেবে আপনার আমার করণীয় কী। চলুন দেশটাকে বাঁচাই। দেশের মানুষকে বাঁচাই।

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button