খেলা ও ধুলা

কেন ফেসবুকে হ্যাশট্যাগ #Salahuddin_out এর ঝড়?

‘আমি তাদের মত নই! আমি কিং সালাহুদিন….. কিং সালাহুদিন!’- কথাগুলো আন-নাসির সালাহ আদ-দ্বীন ইউসুফ ইবনে আইয়্যুবি’র! দ্বিতীয় ক্রুশেডের ব্যাটেল অফ হাত্তিন-এর প্রেক্ষাপটে (এবং ইবিলিনের বালিয়ান এর জীবনের একাংশকে উপজীব্য করে) পরিচালক রিডলে স্কট কর্তৃক নির্মিত হলিউডি চলচ্চিত্র ‘কিংডম অফ হ্যাভেন’ এ মুসলিম বাহিনীর নেতা সালাহউদ্দিন আইয়্যুবি কে এক মধ্যস্থতার আমন্ত্রণ দিতে দেখা যায় জেরুজালেমের দখলদারিত্ব নিয়ে যুদ্ধের এক পর্যায়ে। খ্রিস্টানদের নেতৃত্বে থাকা বালিয়ান কে সে প্রস্তাব দেয় যে শান্তিপূর্ণভাবে জেরুজালেম ছেড়ে দিলে সে সকল খ্রিস্টানদের নিরাপদে ইউরোপ কিংবা অন্যান্য যে কোন স্থানে চলে যেতে সাহায্য করবে। বালিয়ান প্রথম ক্রুশেডে খ্রিস্টানদের বিশ্বাসভঙ্গের ঘটনা তুলে সালাহউদ্দিনের দেয়া কথার বিশ্বাসযোগ্যতায় সন্দেহ প্রকাশ করলে সালাহউদ্দিন উত্তেজিত হয়ে উপরোক্ত কথাগুলো বলে। সালাহউদ্দিন শেষ পর্যন্ত কথা রেখেছিলেন।

‘আমি তাদের মত নই! আমি কিং সালাহুদিন….. কিং সালাহুদিন!’- বাফুফের রাজা কাজী সালাহউদ্দিনও এমন কথা বলতেই পারেন! ‘সালাহউদ্দিন’ নামটির মর্যাদা রেখেছেন যারা, তাদের মতো মোটেও নিজ নামের মাহাত্ম রক্ষা করতে ইচ্ছুক নন বাফুফের সালাহউদ্দিন। অতএব তিনি মোটেও সালাহউদ্দিন আইয়্যুবিদের মত নন! গত পরশু দিন প্রথম আলোতে রিপোর্টার রাশেদুল ইসলাম (সাবেক আন্তর্জাতিক বাংলাদেশি ফুটবলার) এর লেখায় দেখা যায় যে, ফুটবল একাডেমি স্থাপনের প্রতিশ্রুতি তিনি বেমালুম অস্বীকার করে গিয়েছেন! অবিশ্বাস্য! এটা তো অনেক ঘটনার ভেতর একটি মাত্র। তবে তিনি কিং সালাহউদ্দিন বটে! মাঠের কিং ছিলেন খেলোয়াড়ি জীবনে, এবং বর্তমানে বাফুফের নজিরবিহীন দুর্নীতিতে।

২০০৮ সালে সালাহউদ্দিন যখন বাফুফের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে এসেছিলেন, সে সময় বাংলাদেশের ফিফা রেংকিং গড়ে ১৫০ কিংবা ১৬০ এর ঘরে থাকতো। ২০১১ সালে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের পর আমরা ১৩৮ এ উঠে গিয়েছিলাম বটে। দারুণ একটি মিশ্র প্রজন্ম তৈরি হয়েছিল যা গড়ে উঠছিল সালাহউদ্দিন এসে ভিড়বার আগে থেকেই। তাদের বাফুফে সনাক্ত করতে পারেনি, তাদের বের করে আনেন ব্রাজিলিয়ান কোচ ডিডো। এই বের করে আনতে গিয়ে বাফুফের সাথে সম্পর্কের অবনতি হয় ডিডো’র। কারণ খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে একটি সিন্ডিকেট ছিল যা ডিডোর নানা সিদ্ধান্ত মানতে পারছিল না। এই ডিডোর খেলোয়াড়দের সমন্বিত করে মাত্র ১২ দিনের অনুশীলনে ২০১০ এর সাফ গেমস্ জয় করে নিয়েছিল পাগলাটে কোচ জোরান জর্জেভিচ। এই খেলোয়াড়রা এর পর তাজিকিস্তান, মিয়ানমার ও লেবাননের বিপক্ষে দাপট দেখিয়ে ম্যাচ জিতে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখিয়েছিল। কিন্তু সালাহউদ্দিন পরিচালিত বাফুফে এতটাই অধম যে আজ ওই আগের ১৬০ এর আশেপাশে গড়াগড়ি তো দূরের কথা, ১৯৬ তে এসে লুটিয়ে পড়ে থাকতে হয়। ফিফার সদস্য সংখ্যাই যেখানে ২১১।

Salahuddin out! (ফটো ক্রেডিটঃ দি ডেইলি স্টার)

সময়ে সময়ে সমর্থকদের ধৈর্য্যের বাঁধ তাই ভেঙ্গে এসেছে। এবং এ নিয়ে বাংলাদেশের ফেসবুক ব্যবহারকারীদের একাংশ আজ যে পরিমাণ উন্মাতাল হয়ে উঠেছে তা পূর্বে কখনই দেখা যায়নি। #Salahuddin_out হ্যাশ ট্যাগ তাই বাংলাদেশের ফেসবুকে ট্রেন্ডিংয়ের শীর্ষে গত দুই দিন থেকে। যে কোন খেলাধূলার গ্রুপ বা পেজে তো কথাই নেই, এমনকি অন্যান্য জায়গায় অন্যান্য বিষয় সম্পর্কিত পোস্ট ও কমেন্টেও এই হ্যাশ ট্যাগ ব্যবহৃত হয়ে চলেছে। বাফুফের ফেসবুক পেজে এই হ্যাশ ট্যাগ কমেন্ট করায় গণহারে ব্যান করতে থাকে পেজটির এডমিনরা। পুরোটা তুলে ধরছি-

#Salahuddin_out
#Save_Bangladesh_Football
#Save_BFF
#We_Want_Our_Golden_Generation_Back
#Rise_Bangladesh
এবং অনেকেই #FIFA হ্যাশট্যাগও জুড়ে দিচ্ছে। 

একটা মানুষ কতটা দূর্ভাগা হতে পারে। ছিলেন বাংলাদেশের ইতিহাস সেরা ফুটবলার, বঙ্গবন্ধু পুত্র শেখ কামালের ঘনিষ্ঠ বন্ধু, দীর্ঘদিন থেকে একজন সফল ব্যবসায়ী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কে বুবু বলে ডাকেন। তার চেয়ে যোগ্য আর কে হতে পারতো বাংলাদেশ ফুটবল কে সামনে টেনে নিতে? সাম্প্রতিক সময়ে মেয়ে ও ছেলেদের বয়সভিত্তিক ফুটবলে সাফল্যের ভেতরেও সালাহউদ্দিন এমন কি করেছেন যে তাকে বাংলাদেশের ফুটবলপ্রেমীরা আজ এই অবিশ্বাস্য ঘৃণার চোখে দেখে, গালি ও অভিশাপ দেয়? কী করেছেন তা বলে তো শেষ করা যাবে না। ভুল করেছিলাম বিশ্বাস করে যখন তিনি ৩ বছরের মতো বাফুফের সহ-সভাপতি ছিলেন। আর্জেন্টাইন কোচ ক্রুসিয়ানির বেতন তিনি নিজ পকেট থেকে দিতেন, ফুটবলারদের ভালোর জন্য কত দৌড়-ঝাঁপ করতেন। আজ বোঝা যায় যে সেটা স্রেফ একজন দূরদর্শী ব্যবসায়ীর দৌড়-ঝাঁপ ছিল মাত্র। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু’র নামে যে অবিশ্বাস্য নিম্নমানের একটি টুর্নামেন্ট করতে পারেন যিনি নানা ব্যবসায়িক সমীকরণ মেলাতে, তার থেকে আর কিই-বা আশা করা যায়।

বেঁচে থাকুক বাংলাদেশ ফুটবল। #Salahuddin_out!

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Back to top button