খেলা ও ধুলা

দানবীয় ব্যাটিং, অতিমানবীয় ব্যাটিং!

ফেসবুকে মাঝেমধ্যেই কিছু মিম দেখা যায়। এক ওভারে জয়ের জন্যে ২০/২২ রানের প্রয়োজন, ব্যাটসম্যান হিসেবে আপনি কাকে বেছে নেবেন? ভিলিয়ার্স-কোহলি থেকে শুরু করে অনেক বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানেরই নাম থাকে সেই তালিকায়। তবে এখন থেকে এসব মিমের উত্তরটা মোটামুটি একই হবে- আন্দ্রে রাসেল! ক্যারিবীয় এই ব্যাটসম্যান গত কিছুদিন ধরে ব্যাটিঙের নামে যে তাণ্ডবলীলা শুরু করেছেন, তাতে এই সময়ে টি-২০’র সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ব্যাটসম্যান হিসেবে তাকে মেনে নিতে কারো দ্বিধা থাকার কথা নয় বোধহয়! সেটারই আরও একটা নজির রাসেল দেখালেন গতকাল, ১৩ বলে ৪৮ রানের এক টর্নেডো ইনিংস খেলে!

জয়ের জন্যে ৩ ওভারে ৫৩ রানের সমীকরণটা কখনোই সহজ কিছু নয়। খেলাটা টি-২০ হলেও ওভারপ্রতি আঠারো রান করে তোলাটা প্রায় অসম্ভবই। সেটাকেই ছেলের হাতের মোয়া বানিয়ে ফেললেন আন্দ্রে রাসেল! আঠারো বলে যে রানটা প্রয়োজন ছিল, সেটা কলকাতা তুলে ফেললো মাত্র ২.১ ওভারেই! এরমধ্যে টিম সাউদির করা উনিশতম ওভারেই এসেছে ৩১ রান!

প্রথম চার বলে স্কোরবোর্ডে রাসেলের নামের পাশে মাত্র একটা রানই জমা পড়েছিল। সবে তখন উইকেটে এসেছেন, এরইমধ্যে হারিয়েছেন সেট হয়ে যাওয়া সঙ্গীকে। ব্যাঙ্গালোরের অধিনায়ক বিরাট কোহলির মুখে তখন হাসি, এবারের আইপিএলের প্রথম জয়টা পেতে চলেছেন তারা, অনেকটা নিশ্চিত হয়ে গেছেন ততক্ষণে। কিন্ত সব হিসাব-নিকাশ পাল্টে দেয়ার জন্যে যে রাসেল এখনও রয়ে গেছেন, সেটা কোহলি আন্দাজ করতে পারেননি।

স্টোইনিসের ওভারে টানা তিন বলে তিন ছক্কা দিয়ে শুরু। সেই ওভারে সর্বমোট রান এলো ২১। সাউদি এলেন পরের ওভারটা করতে, দুই ওভারে ৩২ রানের সমীকরণ তখন। ওভারশেষে দেখা গেল, ছয় বলের গ্রাফটা দাঁড়িয়েছে এমন- ১ ৬ ৬ ৬ ৪ ৬! এক ওভারেই ৩১ রান, পরের ছ’টা বলে এক রান হলেই ম্যাচ কলকাতার! অসুরের শক্তি নিয়ে যেন বাইশ গজে এসেছিলেন রাসেল, একটার পর একটা ডেলিভারিকে আছড়ে ফেলেছেন বাউন্ডারির ওপাড়ে!

মিনিট দশেক আগেও মুচকি একটা হাসি ছিল কোহলির মুখে, সেটা মিলিয়ে যেতে সময় লাগলো না মোটেও। রাসেলের মারকাটারি ব্যাটিং গ্যালারিতে উদ্দীপনা এনে দিয়েছে, উইকেটে তাণ্ডবলীলার পাশাপাশি দর্শকদের মধ্যে চলেছে উন্মদনার ঝড়। আর মাঠের ভেতরে চোখেমুখে অবিশ্বাস নিয়েই রাসেলের ব্যাটিংটা সহ্য করেছেন ব্যাঙ্গালোরের বোলার-ফিল্ডারেরা- ক্রিকইনফো যেটার নাম দিয়েছে ‘রাসেলম্যানিয়া’!

লং অন, লং অফ, মিড উইকেট থেকে শুরু করে থার্ডম্যান অঞ্চল- কোন জায়গা বাদ রাখেননি রাসেল, ছক্কা হাঁকিয়েছেন সব দিক দিয়েই! মাত্র ১৩ বলে ৪৮ রানের অবিশ্বাস্য এক ইনিংস, ছক্কার মারই সেখানে সাতটা! ৩৬৯ স্ট্রাইকরেটে খেলা ইনিংসটাই গতকালের ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট, কলকাতার জয়ের ভিত্তি গড়ে দিয়েছে যেটা। এমন বিনোদনের সাক্ষী তো রোজ রোজ হওয়া যায় না!

রাসেলের এই ইনিংসটাকে ফ্লুক ভাবার কোন উপায় নেই। বেশি দূরে যেতে হবে না, এবারের আইপিএলেই দেখুন না, সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে ১৯ বলে ৪৯ রানের ঝোড়ো এক ইনিংস খেলে ওয়ার্নারদের মুখের গ্রাস কেড়ে নিয়েছিলেন তিনি, ছক্কা মেরেছিলেন চারটা। পাঞ্জাবের বিপক্ষে ১৭ বলে ৪৮ রান, পাঁচ ছক্কায়। ছয় ছক্কা হাঁকিয়ে ২৮ বলে ৬২ রান করেছিলেন দিল্লির বিপক্ষে! আইপিএলের এই মৌসুমে কলকাতার খেলা মানেই যেন রাসেলের ‘ম্যাজিক্যাল শো’!

যুগটা ব্যাটসম্যানদের, তার ওপরে টি-২০’র। বোলারেরা এখানে দুয়োরানীর সন্তানদের মতোই নির্যাতিত এক প্রজাতি। এতসবের পরে যখন আন্দ্রে রাসেল ক্ষেপে ওঠেন, দানবীয় ক্ষোভে অতিমানব হয়ে ওঠেন, সেদিন প্রতিপক্ষের জন্যে করুণা করা ছাড়া উপায় নেই কোন। ব্যাঙ্গালোরের জন্যে আপাতত সেই স্বান্তনাটাই প্রযোজ্য, রাসেলের দিনে আর কারো যে ম্যাচ জেতার উপায় নেই!

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button