অনুপ্রেরণার গল্পগুচ্ছতারুণ্য

‘রুপালি গিটার’ তাকে ছাড়েনি…

আইয়ুব বাচ্চু যেদিন হারিয়ে গেলেন, সেদিন এই গানটা খুব আঘাত করছিলো।

“এই রুপালি গিটার ফেলে
একদিন চলে যাব দুরে, বহুদূরে
সেদিন চোখে অশ্রু তুমি রেখো
গোপন করে…”

এক সকালে ঘুম থেকে একটু দেরি করে উঠেই টেলিভিশনের স্ক্রলে খবরটা দেখলাম। আইয়ুব বাচ্চু সত্যিই রুপালি গিটার ছেড়ে চলে গিয়েছেন, বহুদূরে, যেখান থেকে ফেরা হবে না আর মানুষটার, এই বাস্তবতা মেনে নেয়া কঠিন ছিল। আসলে আইয়ুব বাচ্চু এতো বেশি প্রাসঙ্গিক আর অনুভূতির অংশ ছিলেন যে, তিনি নেই এই কথাটা বিশ্বাস করানো কঠিন ছিল মনের কাছে।

তার হারিয়ে যাওয়ার খুব ইচ্ছে ছিল। প্রায়ই নাকি বলতেন, একদিন হারিয়ে যাবেন। খুব দূরে কোথাও চলে যাবেন। কিন্তু, মানুষটা তাকে খুঁজে পাওয়ার অসংখ্য অনুসঙ্গ রেখে গেছেন, রেখে গেছেন রুপালি গিটারের ঝংকার, সে শব্দে তাকে এখনো খুঁজে পেতে কষ্ট হয় না, তারা ভরা রাতে। এই গিটার জাদুকর তার রুপালি গিটারের প্রভাব যেভাবে রেখে গেছেন, কতশত তরুণ তাকে দেখে গিটার শিখতে শুরু করেছে তারও হিসেব নেই।

তাই এমনিতেও আইয়ুব বাচ্চুর রুপালি গিটারের প্রভাব হারিয়ে যাওয়ার নয়। আর ভালো লাগা অনেকখানি বেড়ে যায়, যখন আমরা দেখি আইয়ুব বাচ্চুর নিজ শহর চট্টগ্রামে প্রবর্তক মোড়ে তার স্মরণে ‘রুপালি গিটার’ এর আদলে ফোয়ারা সমেত ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে। একজন মিউজিসিয়ানের জন্যে এ এক বিরল সম্মান।

বিশেষ করে, আইয়ুব বাচ্চু যিনি বাংলাদেশে ব্যান্ড মিউজিক এমন এক সময়ে শুরু করেছিলেন যখন এই ধারার সাথে খুব বেশি লোক পরিচিতও ছিল না। অনেকের কাছে এই ধারার গানকে ‘অপসংস্কৃতি’ও মনে হতো। আর আজকের দিনে সেই মানুষটার রুপালি গিটার যখন শহরে সিম্বোলিক হয়ে স্থাপিত হয়, তখন মনে হয় এই স্বীকৃতি শুধু আইয়ুব বাচ্চুর নয়, ব্যান্ড মিউজিকেরই স্বীকৃতি। সর্বোপরি মিউজিসিয়ান কমিউনিটির জন্যেও সম্মানের বটে…

রুপালি গিটার

কুমার বিশ্বজিৎ যেমন ভীষণ আপ্লুত বন্ধু আইয়ুব বাচ্চুর স্মরণে এই ভাস্কর্যটি হওয়ায়। তিনি তার অভিজ্ঞতা থেকে বলেন, চট্টগ্রামে একসময় গানবাজনাকে অতটা ভালো চোখে দেখা হতো না। অভিভাবকরা ভাবত, গান করে ছেলেমেয়েরা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। সেই জায়গা থেকে আজকের দিনে চট্টগ্রাম শহরে চট্টলাবাসী আইয়ুব বাচ্চুকে যে স্বীকৃতি দিলো তাতেই বোঝা যায়, আইয়ুব বাচ্চু গান দিয়ে মানুষের হৃদয়ে কতখানি জায়গা করে নিয়েছেন।

বলতেই হয়, রুপালি গিটার আসলে আইয়ুব বাচ্চুকে ছেড়ে যায়নি। এই রুপালি গিটারের ভাস্কর্য স্বাক্ষী হয়ে রইবে একটি যুগের। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম জানবে রুপালি গিটারের গল্প, একজন কিংবদন্তির গল্প।

Facebook Comments

ডি সাইফ

একদিন ছুটি হবে, অনেক দূরে যাব....

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button