ইনসাইড বাংলাদেশযা ঘটছে

আমাদেরও দিন আসবে…

এক বড় ভাই, ভাবীকে নিয়ে সিএনজি করে একটা অনুষ্ঠানে যাচ্ছিলেন। সময় তখন রাত ৮ টা। হঠাৎ পুলিশ ধরলো। চ্যাংড়া টাইপ এক পুলিশ সিএনজিতে মাথা ঢুকিয়ে বললো, “পরিচয় কী? কই যান? সাথে কে?” ভাই জবাব দিলেন, ”সাথে স্ত্রী, বিয়েতে যাই। আমি ডাক্তার। আমার স্ত্রী আইনজীবী।”

পুলিশটি একটু ঢং-এর সুরে আবার প্রশ্ন করলো, ”তা আপনাদের সিএনজির পর্দা টানানো কেন?” ভাই বললেন, ”এই শীতের রাতে পর্দা টানাবো না? বাইরে কতো ঠান্ডা!” পুলিশ ভাইটি বললেন, ”তাতে কী হলো? আমি ঠান্ডার মধ্যে ডিউটি করছি না? নামেন সিএনজি থেকে।” পুলিশ ভাইয়ের কণ্ঠে আদেশের সুর। বড় ভাই একটু রাগী মানুষ। তিনি ঘাড় বাঁকা করে সিএনজি থেকে নেমে গিয়ে সোজা পুলিশ ভাইটির সামনে এসে দাঁড়ালেন। বললেন, ”আপনি ঠান্ডার মধ্যে ডিউটি করলে করেন। এইটা আপনার চাকরী। আমার কেন আপনার মতো হইতে হবে?” উত্তরে পুলিশটি আবারো বললো, “আমি পারলে আপনি কেন পারবেন না?” । এই কথা শুনে ভাইয়ের মাথা তখন হয়ে গেলো আরো গরম। গলা উঁচিয়ে তিনি বললেন, ”আমি যা পারি আপনি তা পারবেন?”

এইবার পুলিশ ভাইটি একটু ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলো! তবুও পালটা প্রশ্ন করে বললো, “মানে? কী বলতে চাচ্ছেন আপনি?” বড় ভাই স্পষ্টভাবে উত্তর দিলেন, ”কিচ্ছু না। আপনি যা পারেন তা যদি আমাকে পারতে হয় তাহলে আমি যা পারি সেটাও আপনাকে পারতে হবে। বলেন, কার্ডিয়াক সাইকেলের আইসোমেট্রিক কন্ট্রাকশন ফেইজে কী হয়?” ঘাবড়ে গিয়ে ‘মানে মানে’ করতে লাগলো পুলিশটি। বড় ভাইও নাছোড়বান্দা! “মানে আবার কী? বলেন, এইটা আপনাকে বলতেই হবে। আমার কথা পরিষ্কার। আপনি আমার সময় নষ্ট করেছেন। এখন আপনাকে উত্তর দিতেই হবে। বলেন, আইসোমেট্রিক কন্ট্রাকশন ফেইজে মাইট্রাল ভালব কী অবস্থায় থাকে? নাহলে প্রবলেম হবে।” পুলিশ তখন ভড়কে গিয়ে পাল্টা জিজ্ঞেস করলো কী প্রবলেম হবে! বড় ভাইও কন্ঠে তেজ রেখে বললেন, “কী প্রবলেম হবে সেটা কার্ডিয়াক সাইকেল না পারলেই বুঝতে পারবেন!”

সিএনজিতে থাকা আইনজীবী ভাবী তখন ফোনে যোগাযোগ করছেন ‘উপর মহলে’। উপর মহল থেকে জানানো হয়েছে, অযথা হয়রানি করার দায়ে পুলিশ ভাইটিকে ফোন দেয়া হবে এখনই। সিএনজির বাইরে তখন বেশ জটলা। ডাক্তার ভাই পুলিশ ভাইটির কাছ থেকে কার্ডিয়াক সাইকেল বের না করে ছাড়বেনই না! চেঁচামেচি শুনে পুলিশ ভাইটির বড় অফিসারও চলে এসেছেন ঘটনাস্থলে। ইতোমধ্যে ফোন চলে এসেছে উপর মহল থেকেও। বড় অফিসার এসে ঘটনা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলেন। ভাইকে বুঝালেন, ঐ পুলিশ ভাইটি বুঝতে পারেন নি। সে সিলেটে নতুন। বড় ভাই কিছুটা শান্ত হলেন। তার মাথা থেকে অবশেষে কার্ডিয়াক সাইকেল নামলো এবং তিনি সিএনজিতে উঠলেন।

প্রিয় পুলিশ ভাইরা, এইটা স্বাধীন দেশ। আপনাদের কাজ হচ্ছে সেবা দেওয়া। জনগন গিনিপিগ না, আপনারা মোঘল সুবেদারও না। কাজ না থাকার ফাঁকে নর-নারীকে আটকে বিনোদন নেওয়ার কোনো অধিকার আপনাদের নেই। আপনাদের অযথা হয়রানি করার ভিডিও বের হয়, জনগণ আপনাদের দেখলে ভয় পায়, কখনো কখনো ঘৃণাও করে। আপনাদের লজ্জা হয় না? ঠিক হয়ে যান প্রিয় ভাইয়েরা। সবাই আমজনতা না। কেউ কেউ ঘাড় ত্যাড়াও হয়। তারা ঘটনাস্থলেই আপনাকে কার্ডিয়াক সাইকেল পড়িয়ে ছেড়ে দিবে। তখন লুকাবেন কই?

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Back to top button