সিনেমা হলের গলি

শহরের উঁচু দালান থেকে গ্রামের কুঁড়েঘর- সব জায়গায় যিনি সমান জনপ্রিয়!

বাংলাদেশী দর্শকদের মাঝে টেলিভিশন নাটক বেশ ভালোভাবেই হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে। সাংস্কৃতিক জগতের অন্যতম সেরা মাধ্যম হচ্ছে এই টিভি নাটক। নাটকের অভিনয়শিল্পীরাও নিজেদের মেধা ও প্রতিভায় বিশেষ জায়গা করে নেন দর্শকদের কাছে, এদের মাঝে কেউ কেউ হন অত্যন্ত প্রিয়। তিনি তাদেরই একজন, টিভি নাটকের ইতিহাসে তিনি অনন্য, নিজ প্রতিভায় সুপ্রতিষ্ঠিত হয়েছেন নাট্যঙ্গনে।

শহরের উঁচু দালানের বেড়াজাল পেরিয়ে তাঁর জনপ্রিয়তা পৌঁছেছে গ্রামের কুঁড়েঘর পর্যন্ত। তাঁর মত জনপ্রিয়তা খুব কম অভিনয়শিল্পীই পেয়েছেন, এমনও কথা প্রচলিত আছে, বিষণ্ণ মনে আপনি তাঁর নাটক দেখতে দেখতে মনের অজান্তেই পুলকিত হয়ে যাবেন। দর্শকদের মাঝে প্রতিষ্টা পেয়েছে তাঁর বেশ ভক্তকূল,যারা তাদের এই প্রিয় অভিনেতাকে গুরু মানেন। তিনি বাংলা নাট্যঙ্গনের অন্যতম সেরা জনপ্রিয় অভিনেতা ‘মোশাররফ করিম’।

তরুণ বয়সেই পড়াশোনার পাশাপাশি যুক্ত হন থিয়েটারে, সেই সুবাদেই ১৯৯৯ সালে আবুল হায়াতের ‘অতিথি’ নাটকে ছোট্ট চরিত্র দিয়ে টিভি নাটকে প্রবেশ করেন। এরপর বেশ প্রতিকূল অবস্থার মধ্যে দিয়ে গেছেন, ছোট ছোট চরিত্র করেছেন, অচেনাই থেকে গেছেন দর্শকদের মাঝে। অবশেষে তিনি নজরে পড়েন তখনকার সবচেয়ে জনপ্রিয় নির্মাতা মোস্তফা সারোয়ার ফারুকীর, ২০০৪ সালে ফারুকীর নির্মিত ‘ক্যারাম’ নাটকে অভিনয় করেই প্রথমবারের মত আলোচনায় আসেন। এই নাটকে তার অভিনয়ে সবাই মুগ্ধ হয়েছিল।

প্রথমটির সাফল্যে পরবর্তীতে দ্বিতীয় কিস্তিও বের হয়। এরপর অত:পর নুরুলহুদার পর ২০০৭ সালে ভবের হাট, কবি বলেছেন, চাঁদের আলোয় কয়েকজন যুবক, ঘর কুটুম আর সঙ্গে ‘দারুচিনি দ্বীপ’ সিনেমায় অনবদ্য অভিনয়ের সুবাদে নিজেকে আরো সুপরিচিত করে তুললেন, ধীরে ধীরে হয়ে উঠেন সময়ের ব্যস্ততম অভিনেতা।

মোশাররফ করিম জনপ্রিয়তার শীর্ষে আসেন ২০০৮ সালে। ফারুকীর ‘৪২০’ ধারাবাহিক নাটকে অসাধারণ অভিনয়ের সুবাদে দর্শককূলে তাঁর প্রতি যে আস্থা সৃষ্টি হয়, সেটার প্রতিফলন ঘটে ঠুয়া, দেয়াল আলমারি, বনলতা সেন, ছাইয়া ছাইয়া, ফ্লেক্সিলোড, পাত্র চাই, বন্ধু এবং ভালোবাসা থেকে বছরের শেষে ‘হাউজফুল’ ধারাবাহিকের ব্যাপক জনপ্রিয়তায়।

স্ত্রীর সঙ্গে মোশাররফ করিম

তাঁর ক্যারিয়ারের আরেকটি জনপ্রিয় নাটক ‘হ্যালো’, যেটার গল্প তিনি নিজে লিখেছিলেন। এরপর একে একে অভিনয় করেন সাকিন সারিসুরি, তোমার দোয়ায় ভালো আছি মা, এফ এন এফ, মাইক, দেনমোহর, বিহাইন্ড দ্য ট্র‍্যাপ, জিম্মি, চাঁদের নিজস্ব কোনো আলো নেই, কাঁটা, জিম্মি, উচ্চ মাধ্যমিক সমাধান, আমি হিমু হতে চাই, জর্দা জামাল, সেই রকম চা খোর, খেলা, রেডিও চকলেট, তালা, চুপ! ভাই কিছু বলবে, দ্য জেন্টলম্যান, অভিনন্দন সহ আরো বহু নাটকে।

বেশকিছু চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন, প্রথম সিনেমায় অভিনয় ‘জয়যাত্রা’য়, এই ছবিতে তিনি গান ও লিখেছিলেন। এছাড়া তাঁর অভিনীত থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার, টেলিভিশন, অজ্ঞাতনামা, হালদা অন্যতম। ‘জালালের গল্প’ ছবিতে অভিনয়ের সুবাদে আর্ন্তজাতিক পুরস্কার ও পেয়েছেন।

মোশাররফ করিম অত্যন্ত জনপ্রিয় ও দক্ষ অভিনেতা এই নিয়ে কারো দ্বিমত নেই। বছর শেষে ঠিকই তাঁর বেশকিছু ভালো নাটকের নাম চলে আসে। তবে তাকে সবচেয়ে বড় অভিযোগ, নাটক নির্বাচনে তিনি মনোযোগী নন। প্রচুর নাটকে কাজ করেন। এক সময় যার কৌতুকে দর্শকগন মুগ্ধ হতেন, এখন সেটা ম্লান হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে সিকান্দার বক্স ও যমজ সিরিজের ব্যাপক জনপ্রিয়তার পর এইসব কথা উঠছে। এত ব্যস্ততার ধকলে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, তবে এখন বেছে বেছে কাজ করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন যার প্রমান পাই সাধাসিধে মানুষের গল্প, কহেন কবি ভূতনাথ, দানব থেকে এই ঈদের মুগ্ধ ব্যকরন, রাজন দ্য কিং নাটকগুলোতে।

জমজ: ক্রমশ বিরক্তির উদ্রেক করছে যে সিরিজটি

যদিও অন্যান্য সিরিজগুলো বাদ দিলেও এখনো তিনি যমজ সিরিজ করেই যাচ্ছেন। এক সময় ছবিয়ালের ভাই- বেরাদার ও মোশাররফ করিম ছিলেন যেন একে অপরের পরিপূরক, অথচ অনেকদিন এই জুটি কে দেখা যাচ্ছিল না। এমন কি তাদের দুইটি বিশেষ সিরিজে দেখা যায় নি মোশাররফ করিম কে। অবশেষে এই ঈদে রেদোয়ান রনির সাথে আবার তিনি ফিরেছেন পিন্টু-মিন্টু সিরিজের ‘বিহাইন্ড দ্য পাপ্পি’ দিয়ে। প্রত্যাশা করছি, উনার প্রতি যে দর্শকদের অভিমান, সেটা তিনি অচিরেই কাটিয়ে উঠবেন।

বর্নাঢ্য ক্যারিয়ারে মোট নয়বার মেরিল প্রথম আলো পুরস্কার অর্জন করেছেন, এই পুরস্কার শুধু জনপ্রিয়তায় নয়, সমালোচকেও এসেছে, যা অন্য কারো নেই। ব্যক্তিজীবনে বিয়ে করেছেন রোবেনা করিম জুঁইকে।

ব্যক্তিজীবন ও অভিনয় জীবন, দুই মাধ্যমেই নিজেকে আরো বর্ণিল করে তুলবেন, এই প্রত্যাশা রইলো।

১৯৭২ সালের আজকের এইদিনে জন্মগ্রহণ করা এই কিংবদন্তি অভিনেতা আজ পেরোচ্ছেন জীবনের ৪৭ তম বছর, শুভকামনা রইলো।

শুভ জন্মদিন, মোশাররফ করিম।

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button