সিনেমা হলের গলি

আমাদের অঘোষিত মডেল সম্রাজ্ঞী, কিংবা চলচ্চিত্রের আক্ষেপ!

রুপসীর রেশমী চুলে, দোলে গো কেয়া দোলে
চুলের ঐ মেঘ কাজলে, দোলে গো কেয়া দোলে!

নব্বইয়ের দশকে বিজ্ঞাপনী দুনিয়ায় এমনিভাবে আবির্ভূত হয়ে বিমোহিত করতেন দর্শকদের। তরুনদের স্বপ্নের রানী কিংবা তরুনীদের আইডল বললে যে কয়েকজন মিডিয়া তারকার নাম উঠে আসে, তাদের মধ্যে নি:সন্দেহে থাকবেন এই সুপার মডেল। তিনি মডেলিং জগতের অঘোষিত সম্রাজ্ঞী সাদিয়া ইসলাম মৌ।

মা মডেলিং জগতের পথিকৃৎ। সেই সুবাদে মডেলিং জগতের সাথে ছোটবেলা থেকেই পরিচিতি। নব্বইয়ের শুরুতে এসে যুক্ত হন মডেলিং এ। পুরো নব্বই দশক তিনি বিজ্ঞাপনের দুনিয়ায় রাজত্ব করেছেন। চলচ্চিত্র, নাটকের বাইরেও যে জুটি হতে পারে, সেটা দেখিয়েছিলেন তিনি। মডেলিং জগতের আরেক আইডল নোবেলের সাথে জুটি বেঁধে কাজ করেছেন অনেক বিজ্ঞাপনে।

দুইজনেই কেয়ার বিজ্ঞাপনগুলোকে নিয়ে গিয়েছিলেন অন্য পর্যায়ে। লাক্সের মডেল হয়েছেন। এছাড়া পাকিজা প্রিন্ট শাড়ী, আপন জুয়েলার্স, মৌচাক জুয়েলার্স সহ আরো অনেক বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন। টিভি পর্দার বাইরে বিশ্বরঙ সহ আরো কিছুর দেশীয় সংস্থার মডেল হয়েছেন। ক্যারিয়ারে সেরা জুটি নোবেলের সাথেই সর্বশেষ রবির বিজ্ঞাপনে হাজির হন তিনি।

মডেলিং জগতের বাইরে যে অন্য পরিচয়ে পরিচিতি তাঁর, সেটা হচ্ছে দেশসেরা নৃত্যশিল্পীদের মধ্যে তিনি একজন। মাত্র তিন বছর বয়সেই পায়ে ঘুঙ্গুর বেঁধে নাচ শিখেছেন। শ্যামা, চিত্রাঙ্গদা সহ অনেক নৃত্যনাট্যে তিনি সুনাম কুড়িয়েছেন, এখনো টিভি পর্দায় বিশেষ আমন্ত্রনে নৃত্যের ঝলকে মুগ্ধ করেন। নব্বইয়ের মাঝামাঝি অভিনয়েও যুক্ত হন। প্রথম নাটক ‘অনুভবে অভিমানে’। এরপর হঠাৎ বৃষ্টি, কুসুম কাঁটা, কে সে হালের ফুলগুলো ভুলগুলো, সবুজ আলপথে একদিন সহ অনেক নাটকেই অভিনয় করেছেন। নব্বইয়ে অভিনয় থেকে কিছুটা দূরে থাকতে চাইলেও বর্তমানে বিশেষ দিনগুলিতে অভিনয়ে বেশ ব্যস্ততা দেখা যায়।

চলচ্চিত্র পরিবারের মেয়ে হয়েও বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রের অফার ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। ফিরিয়ে না দিলে বাংলা চলচ্চিত্র পেতো এক গ্ল্যামারাস নায়িকা। ইত্যাদির গানে মডেল হতে গিয়ে পরিচয় ঘটে জাহিদ হাসানের সাথে, সেইখান থেকে পরিনয়, অত:পর বিবাহ। একসাথে সংসার করছেন প্রায় দুই দশক ধরে। দুই সন্তান নিয়ে বেশ সুখের সংসার মৌর। মিডিয়া জগতের মত ব্যক্তি জীবনেও কোন কিছুর আঁচ লাগতে দেন নি তিনি।

১৯৭৬ সালের আজকের এই দিনে জন্মগ্রহণ করা মানুষটি আজ পেরোচ্ছেন জীবনের ৪৩ বছর। শোবিজ অঙ্গন বা ব্যক্তি জীবনের সব জায়গাতেই নিজেকে আরো বর্ণিল করে তুলুন- এটাই প্রত্যাশা। শুভ জন্মদিন মৌ। 

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button