রিডিং রুমলেখালেখি

সম্পর্ক শেষ করে ন্যাংটো হয়ে মেশার স্বভাব!

মানুষের সম্পর্কগুলোকে ব্যাখ্যা করার সবচেয়ে ইন্টারেস্টিং থিউরি হলো- মোবাইল ফোন থিউরি। আমরা নতুন ফোন কেনার পর স্ক্রিনে দাগ ও ধুলো প্রতিরোধের জন্য গ্লাস প্রোটেক্টর লাগাই। ভেঙ্গে যাবার ভয়ে কাভার লাগাই। খুব সতর্ক থাকি যেন পড়ে ভেঙে না যায়। একটা সময় ফোনের সব প্রোগ্রাম জানা হয়ে যায়। সবগুলো এপস বহুল ব্যবহৃত হয়। এরপর হাত থেকে দুইবার পড়ে যায়। স্ক্রীন প্রোটেক্টর দু’বার ভেঙে যায়। তখন শুরু হয় মোবাইল ফোনের অন্য জীবন। আগের মতো ধুলো জমলে মুছিনা। ভাঙ্গা গ্লাস প্রোটেক্টর নিয়েই চলে যায় দিনের পর দিন। পড়ে গেলে আগের মত খারাপ লাগে না। হুটহাট যেখানে সেখানে ফোন ছুড়ে ফেলেও দিতে পারি অনায়াসে। একদিন এই ফোনের সাথে সম্পর্ক ঘুচে যায়। হুট করে নতুন ফোন কিনে শুরু হয় আরেক ফোনজীবন।

মানুষের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা নির্ভর করে ব্যক্তি-রহস্যের উপর। সবকটা রহস্য জানা হলে আগের মত ভেঙ্গে যাবার ভয় থাকে না। সম্পর্কে ধুলো জমলে মুছে ফেলবার তাড়া অনুভব করি না। এভাবেই চলে যায় দিনের পর দিন। প্রত্যেক সম্পর্কেই একটা সময়ে একপক্ষ দাস জীবন-যাপন করে। চাহিবামাত্র তাকে পাওয়া যায়। বলিবামাত্রই তাকে সব ভাবেই সব ক্ষেত্রে, সকল স্থানে, সকল সময়ে পাওয়া যায়। তখন সে হয়ে যায় সব এপসের ব্যবহার জানা ফোনের মত। আকর্ষণহীন।

নোকিয়া ২৬১০ কিংবা নোকিয়া ১১০০ মডেলের প্রতি সহস্র দিন ভালোবাসা নিয়েও আমরা ব্যবহার করেছি। এরা হচ্ছে খুব সাধাসিধে মানুষের মতো। তাদের রহস্য না থাকলেও তাদের প্রতি আকর্ষণ থাকে। খুব গভীর না হতে পারে, তবে খুব হালকাও নয়। মানুষের সহজভাবে বেঁচে থাকা, একটা সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখার জন্য রহস্যময় হতে হয়। সব গোপণীয়তা শেয়ার করতে নেই। কিছু এপস ব্যবহার করতে না দেওয়াই ভালো কিংবা খুব জটিল এপস হয়ে থাকতে হয়।

ঈশ্বরকে ভালোবাসি কারণ ঈশ্বরকে দেখা যায়না, ধরা যায় না, চাইলেও ছোয়া যায় না। তার চারপাশে অদৃশ্য দেয়াল। তিনি দূরে থাকেন। দূরের জিনিস রহস্যময়। রহস্যের প্রতি আমাদের আকর্ষণ দুর্নিবার। রহস্যময় হতে অর্থ লাগে না, সুন্দর হতে হবে এমন কথাও নেই। অনেক অসুন্দর, দরিদ্র মানুষও চমৎকার সম্পর্ক চালিয়ে নিতে পারে।

কারো সাথে মিশতে হয় চারপাশে একটা অদৃশ্য দেয়াল তৈরি করে রেখে। যেন দেখা যায়, ছোঁয়া যায় কিন্তু একটা দেয়ালের এপাশে কেউ আসতে না পারে। সবক্ষেত্রে ন্যাংটো হয়ে মিশতে নাই। সম্পর্ক শেষ করে ন্যাংটো হয়ে মেশার স্বভাব।

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Back to top button