সিনেমা হলের গলি

চেস্টারের মৃত্যুতে লিংকিন পার্কের জনপ্রিয়তা বেড়ে আকাশ ছুঁইছুঁই!

একটি কথা ব্যাপকভাবে প্রচলিত আছে, সৃষ্টিশীল মানুষদের সৃষ্টিকর্ম তাদের জীবিতাবস্থায় যতটা না সমাদৃত হয়, তারচেয়ে বেশি সমাদৃত হয় তাদের মৃত্যুর পর। এর পেছনে অবশ্য একটি মনস্তাত্ত্বিক কারণ বিদ্যমান। সাধারণ অবস্থায় কোন একজন শিল্পীর সৃষ্টিকর্ম সম্পর্কে সব শ্রেণীর মানুষের সুস্পষ্ট ধারণা নাও থাকতে পারে। কিন্তু তিনি যখন মারা যান, তার নিজস্ব অনুসারীদের মধ্যে তাকে নিয়ে যে পরিমাণ মাতম শুরু হয়, তা দেখে অনেকেই নতুন করে উৎসাহিত হয় ওই শিল্পীর কাজ ‘চেখে’ দেখতে।

এই বিষয়টা সাহিত্যিক, সঙ্গীতশিল্পী, অভিনেতা, চিত্রশিল্পী সবার ক্ষেত্রেই কম বেশি প্রযোজ্য। কিন্তু লিংকিন পার্কের লিড ভোকাল চেস্টার বেনিংটনের মৃত্যুর পর তাকে নিয়ে বিশ্বব্যাপী যে পরিমাণ হৈচৈ শুরু হয়েছে, তা বোধহয় স্মরণকালের আর সব দৃষ্টান্তকেই পিছে ফেলে দিয়েছে।

রক ও মেটাল ভক্তদের কাছে লিংকিন পার্ক গত দেড় যুগ ধরেই অতি প্রিয় একটা নাম। কিন্তু চেস্টার বেনিংটনের অকাল মৃত্যুর পর লিংকিন পার্কের গানগুলো নিয়ে যে পরিমাণ মাতামাতি শুরু হয়েছে, তা কল্পনারও অতীত। স্রেফ একটা দিনের উদাহরণ দিয়েই গোটা বিষয়টাকে বেশ ভালোভাবে তুলে ধরা সম্ভব।

বাজ অ্যাঙ্গল মিউজিকে প্রকাশিত এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২১ জুলাই, অর্থাৎ ব্যানিংটন যেদিন মারা গেলেন তার পর দিন অনলাইনে লিংকিন পার্কের এলবামগুলোর স্ট্রিমিংয়ের পরিমাণ বেড়ে গিয়েছিল আগের দিনের তুলনায় ৭০০০ শতাংশ!

এদিন স্ট্রিমিংয়ের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি বেড়েছিল ২০০৩ সালে প্রকাশিত এলবাম ‘মিটিওরা’র, প্রায় ১০,০০০ শতাংশ। এর পরেই ছিল ২০০৭ সালে প্রকাশিত ‘মিনিটস টু মিডনাইট’, যার স্ট্রিমিং এর পরিমাণ বেড়ে গিয়েছিল আগের দিনের চেয়ে ৯,৫০০ শতাংশ। ২০০০ সালে প্রকাশিত ব্যান্ডের প্রথম এলবাম ‘হাইব্রিড থিওরি’র স্ট্রিমিং এর পরিমাণ বেড়ে গিয়েছিল ৮,৭০০ শতাংশ।

লিংকিন পার্কের যে গানটি এ দিন সবচেয়ে বেশিবার অন-ডিমান্ড অডিও স্ট্রিমিং করা হয় তা হলো ২০০০ সালের ‘ইন দি এন্ড’, প্রায় ১.৫ মিলিয়ন বার। এটি ছিল ২৪ ঘন্টার মধ্যে সর্বোচ্চবার ডাউনলোডকৃত গানও। আর ভিডিও প্ল্যাটফর্মগুলোতে ২০০৩ সালের ‘নাম্ব’ গানটি সবচেয়ে বেশিবার অন-ডিমান্ড স্ট্রিমিং করা হয়, ৬৯৫০০০ বার। এখানে একটা কথা বলে রাখা দরকার, এ হিসাব শুধু বৈধভাবে স্ট্রিমিং ও ডাউনলোড এর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। অবৈধভাবে স্ট্রিমিং ও ডাউনলোডের পরিমাণ সম্ভবত এর চেয়েও ১০ গুণ বেশি!

ওয়ার্নার ব্রসের ব্যানারে এখন পর্যন্ত সাতটি এলবাম প্রকাশ করেছে লিংকিন পার্ক। ২০০০ সালে ‘হাইব্রিড থিওরি’র মাধ্যমে যাত্রা শুরু করার পর তাদের সাতটি এলবামের মধ্যে পাঁচটিই বিলবোর্ড ২০০ চার্টে এক নম্বর স্থান দখল করে নেয়। তাদের সর্বশেষ এলবাম ‘ওয়ান মোর লাইট’ প্রকাশিত হয় এ বছরের মে মাসে। বাজ অ্যাঙ্গল মিউজিকের হিসাব অনুযায়ী এই মুহূর্তে লিংকিন পার্কের সবচেয়ে জনপ্রিয় দশটি গান হলোঃ

১। ইন দি এন্ড ২। নাম্ব ৩। হোয়াট আই হ্যাভ ডান ৪। ক্রলিং ৫। ওয়ান স্টেপ ক্লোজার ৬। ব্লিড ইট আউট ৭। পেপারকাট ৮। সামহোয়্যার আই বিলং ৯। ব্রেকিং দ্য হ্যাবিট ১০। ফেইন্ট।

তথ্যসূত্র- variety.com

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Back to top button