রিডিং রুমলেখালেখি

ত্যাগের মহিমায় কোরবানি দিন; ডেঙ্গু বাড়াবেন না দয়া করে

আমি যে বাসায় ভাড়া থাকি সেই বাসার নিচের গ্যারেজে এখন গাড়ির পাশাপাশি দুটো বিশাল গরু। আমার ওপরের দুই ভাড়াটিয়া, তাদের স্বজন, বাচ্চা কাচ্চা সবাই ব্যস্ত গরুর পরিচর্যা নিয়ে। কেউ খড় খাওয়াচ্ছে, কেউ পাইপ দিয়ে গোসল করাচ্ছে। গোবর আর বর্জ্য গন্ধে নিচে নামতেই কষ্ট হয়। প্রতিবার কোরবানির ঈদে এগুলো স্বাভাবিকভাবে মেনে নিলেও এবার আমার ভীষণ ভয় হচ্ছে।

ঢাকায় ডেঙ্গু পরিস্থিতি কতটা ভয়ঙ্কর, সবাই কম বেশি জানি। এর মধ্যেই আসছে কোরবানির ঈদ। আগামী তিনদিনে ঢাকায় নিশ্চয়ই কয়েকলাখ গরু ছাগল কেনা হবে। তাদের খাওয়ার জন্য খড় লাগবে, পানির জন্য হয়তো লাগবে মালসা। পাইপে হয়তো তাদের গোসল করানো হবে। জমবে পানি। জমবে তাদের পয়বর্জ্যসহ আবর্জনা। অধিকাংশক্ষেত্রে হয় বাড়ির গ্যারেজ বা সামনের রাস্তায় এইসব চলবে।

ঠিক তিনদিন পর হবে কোরবানি। নি‌র্দিষ্ট জায়গায় দি‌তে বলা হ‌লেও আমরা যেখা‌নে সেখা‌নে কোরবা‌নি দেই। ফ‌লে প্রতিটা গলিতে রক্তসহ নানা বর্জ্য জমে। অথচ আর কোনো মুসলিম দে‌শে যেখা‌নে সেখা‌নে কোরবা‌নি হয় না। আমি ইন্দো‌নে‌শিয়া, মাল‌য়েশিয়া, কাতার, বাহরাইন, আরব, আমিরাত, দুবাই, মালদ্বীপসহ বহু মুস‌লিম দে‌শে ঘু‌রে‌ছি। কেউ আমা‌দের ম‌তো ও‌লি‌তে গ‌লি‌তে কোরবা‌নি দেয় না।

এক কো‌টি বাংলা‌দেশি প্রবা‌সে। পৃ‌থি‌বীর এমন কোনো মুস‌লিম দেশ নেই, যেখা‌নে হাজার হাজার বাংলা‌দে‌শি নেই। আপনা‌দেরও নিশ্চয়ই স্বজন আছে। তা‌দের কা‌ছে জিজ্ঞাসা করুন। ও‌লি‌তে গ‌লি‌তে কোরবা‌নি দেয়া যায় কি না। বা‌ড়ি‌তে, গ্যা‌রেজে গরু ছাগল রাখা যায় কি না। জা‌নি এসব বল‌লেও গা‌লি খে‌তে হ‌বে। আমা‌দের কা‌ছে কোরবা‌নি য‌তোটা না ত্যাগ, তার‌চে‌য়ে বে‌শি শোডাউন। গরুর সাইজ, দাম আমা‌দের কা‌ছে অ‌নেক জরুরী। ফলে ত্যা‌গের মাহাত্মটা কাগ‌জে কল‌মে থে‌কে যায়। অথচ ম‌নের পশুকে জবাই দেয়া জরুরী।

যাই হোক, আমরা যে‌হেতু সারা দু‌নিয়া থে‌কে ব্য‌তিক্রম, আমরা যে‌হেতু ঈদের আগে বা‌ড়িঘর‌কে গোয়ালঘর বা‌নি‌য়ে ফেল‌বো, আমরা যে‌হেতু সারা দু‌নিয়ার মতো শহ‌রের বাই‌রে নি‌র্দিষ্ট জায়গায় কোরবা‌নি দেব না, আমি নগর কর্তৃপক্ষ ও বিশেষজ্ঞসহ সবাইকে বলবো, কীভা‌বে শহর‌কে প‌রিচ্ছন্ন রাখা যায় আপনারা ভাবুন।

আমার ভয়টা হ‌লো, আমি জানি না এই যে আগামী চার পাঁচদিনের বিপুল বর্জ্য হবে সেটা প‌রিস্কার কর‌তে না পার‌লে ডেঙ্গুর ঝুঁকি কতোটা বাড়বে? কোরবানির পর যদি আমরা শতভাগ পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালাতে না পারি তাহলে কী হবে? আপনারা সব কর্তৃপক্ষ ভে‌বে যথাযথ ব্যবস্থা নিন।

আমার আরেকটা পরামর্শ। কোরবানির দিন ও পরের দিন নিশ্চয়ই দুই সিটি করপোরেশন রক্ত মাংস পরিস্কার করতে ওলি গলিতে অভিযান চালাবে। আমার কাছে মনে হচ্ছে, শহর পরিচ্ছন্ন করার এইটা একটা বিরাট সুযোগ। রক্ত বর্জ্য পরিষ্কার করার পাশাপাশি যদি ডেঙ্গুর আবাসস্থলটা ভালোভাবে পরিস্কার করা হয় আমার মনে হয় সংকটটা কমবে।

আফ‌সো‌সের কথা হ‌লো, আমি বোকার ম‌তো এসব ভাব‌ছি। অথচ কোরবানির এই সময় কী করণীয়, কীভা‌বে কী কর‌বেন, তা নিয়ে সিটি করপোরেশন বা সরকারের কোনো কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে এখনো কোনো বার্তা দেখিনি। অথচ আমরা যদি কোরবানির আগের পরের বর্জ্য পরিস্কারে ব্যর্থ হই, ঢাকার ডেঙ্গু পরিস্থিতি হয়‌তো আরও ভয়াবহ হবে। কাজেই সবাইকে সচেতন ও সতর্ক হওয়ার অনুরোধ করছি। স‌চেতন ও সতর্ক হ‌লে বহু সমস্যার সম্ভব। আর ইসলা‌মে বলা হ‌য়ে‌ছে, প‌রিচ্ছন্নতা ঈমা‌নের অঙ্গ।

আসুন আমরা আগামী ক‌য়েক‌দিন সতর্ক থা‌কি যেন গরু ছাগল‌কে পাল‌নের না‌মে ডেঙ্গু না বা‌ড়ে। কোথাও যেন পা‌নি না জ‌মে। যেন ডেঙ্গুমুক্ত থা‌কে এই শহর। চলুন সবাই কোরবানির ত্যা‌গের মাহাত্মটা বু‌ঝি। সন্তানহারা না হোক কোন বাবা-মা। ভা‌লো থাকুন সবাই। অ‌গ্রিম ঈদের শু‌ভেচ্ছা। আল্লাহ আমাদের সবাই‌কে ‌ডেঙ্গুসহ সব বিপদ থে‌কে রক্ষা করুন।

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button