ডিসকভারিং বাংলাদেশতারুণ্য

ঢাকা টু কলকাতা জাহাজবিলাস;ভ্রমণ হবে এবার নৌপথেও!

বাংলাদেশে গত কয়েকবছরে বেড়েছে ভ্রমণপিয়াসী মানুষের সংখ্যা। তরুণদের মধ্যে ভ্রমণের উদ্দীপনা বেশি লক্ষ্যনীয়। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আমরা দেখেছি, দেশের গন্ডি পেরিয়ে দেশের বাইরেও অনেকে অবসর কাটাতে যাচ্ছেন। বিশেষ করে পাশের দেশ ভারতে বাংলাদেশি পর্যটকের সংখ্যা বেড়েছে বিপুলভাবে। ভারতে যাতায়াত সুবিধা, স্বল্পখরচ, ভিসা প্রাপ্তির সহজতা সব মিলিয়ে দেশটি বাংলাদেশি বাজেট ট্রাভেলারদের বেশ পছন্দ।

এতদিন ভারতে প্রবেশের ক্ষেত্রে বাসে, বিমানে এবং ট্রেনে যাতায়াত ব্যবস্থা ছিল বাংলাদেশিদের জন্য। দুই দেশের মধ্যে জলপথ থাকা সত্ত্বেও এতদিন অবশ্য ছিল না কোনো নৌপথে যাতায়াত ব্যবস্থা। জলপথের আরামদায়ক ভ্রমণ থেকে বঞ্চিত হওয়া ভ্রমণপ্রেমী মানুষদের জন্য সুখবর এই যে, এবার ঢাকা-কলকাতা রুটে চালু হতে যাচ্ছে জাহাজ সার্ভিস। জলে ভাসতে ভাসতে ট্রাভেলাররা পাড়ি দিতে পারবেন ঢাকা থেকে কলকাতা। গত বছর ঢাকা-কলকাতা যাত্রীবাহী জাহাজ চালুর বিষয়ে সম্মত হয়েছিল ভারত ও বাংলাদেশ। তারই ধারাবাহিকতায় শুরু হতে যাচ্ছে ঢাকা -কলকাতা নৌরুট।

ঢাকা কলকাতা ভ্রমণ

ভ্রমণপিপাসুদের জন্য আনন্দের খবর এই যে, এই মাসেই শুরু হতে যাচ্ছে ঢাকা কলকাতা নৌ রুট। মার্চ মাসের ২৯ তারিখে রাত নটায় নারায়ণগঞ্জ পাগলা মেরি এন্ডারসন থেকে ছেড়ে যাবে জাহাজ। জাহাজের নাম এমভি মধুমতি। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্পোরেশনের নিজস্ব এই জাহাজ কলকাতায় যেতে সময় নেবে ৪৮ ঘন্টা। বিআইডব্লিউটিসি’র উপ-মহাব্যবস্থাপক শাহ মো. খালেদ নেওয়াজ বলেন, “ভ্রমণপিপাসুদের জন্য পরীক্ষামূলকভাবে ঢাকা-কলকাতায় জাহাজ চলাচল করবে। বাংলাদেশ-ভারত নৌ-প্রটোকল চুক্তির আওতায় ভ্রমণে ইচ্ছুক পর্যটকদের যাতায়াতের সুবিধার্থে এটি চালু হচ্ছে।”

২৯ তারিখ শুক্রবার রাত ৯টায় নারায়ণগঞ্জ পাগলার মেরী এন্ডারসন ভি আই পি জেটি থেকে ৩০ জন নাবিক, ১জন পাইলট ও ১০ জন ক্যাটারিং ষ্টাফ সহ নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়, বি আই ডব্লিউ টি সি, বি আই ডব্লিউ টি এ, নৌপরিবহন অধিদপ্তর, মেরি টাইম ইন্ডাস্ট্রি, বন বিভাগ, কোষ্ট গার্ড, পর্যটন করপোরেশন, ট্যুর অপারেটরগণসহ জাহাজটি কলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা দেবে। পরদিন ভোর ৫টায় বরিশাল পৌঁছাবে, বরিশাল থেকে জাহাজটি ছেড়ে যাবে সকাল ৮টায়। একই দিনে আংটিহারা পৌঁছাবে। সেখানে ইমিগ্রেশন এর কাজ শেষ করে হলদিয়া বন্দর কলকাতার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। হলদিয়া বন্দর কলকাতা পৌছাবে ১ তারিখ।

ঢাকা কলকাতা জাহাজ

সর্বনিম্ন ১৫০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১৫০০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে এই রুটের জন্য। ঢাকা-কলকাতা ভাড়ার হার নিম্নরুপ-

১। ফ্যামিলি স্যুট (দুইজন) ১৫,০০০ টাকা
২। প্রথম শ্রেণী (যাত্রী প্রতি) ৫,০০০ টাকা
৩। ডিলাক্স শ্রেণী (দুইজন) ১০,০০০ টাকা
৪। ইকোনমি চেয়ার (যাত্রী প্রতি) ২,০০০ টাকা
৫। সুলভ শ্রেণী/ডেক (যাত্রী প্রতি) ১,৫০০ টাকা

জাহাজটিতে খাবারের ব্যবস্থা থাকবে। নিরাপত্তা ব্যবস্থাও ভাল থাকবে বলে জানানো হয়েছে বিআইডব্লিউটিসির পক্ষ থেকে। আগ্রহী পর্যটকরা যারা এই ভিন্ন মাধ্যমে কলকাতায় যেতে চান, তারা রকেট রিজার্ভেশন নম্বরে (৯৬৬৭৯৭৩) ফোন করে টিকিট বুকিং দিতে পারেন। বাংলামটর ফেয়ারলি হাউজ কার্যালয় থেকে পরে টিকেট সংগ্রহ করে নিতে হবে।

আন্তজার্তিক রিভার ক্রুইজ ভ্রমণ অনেক দেশেই চালু আছে। একাধিক দেশে নদীপথে ভ্রমণ বেশ আনন্দায়ক অভিজ্ঞতাও বটে। বিলাসবহুল জাহাজে প্রায় সকল সুবিধা সম্বলিত ব্যবস্থায় পর্যটকরা ভেসে বেড়ান নৌপথে, নদী সমুদ্রের স্নিগ্ধতা উপভোগ করেন। এই ধরণের সুযোগ বাংলাদেশিদের জন্যেও আসলো অবশেষে। সরাসরি বাংলাদেশ থেকে জাহাজবিলাস করে আন্তর্জাতিক ট্যুর দেয়ার এই সুযোগটি নিশ্চয়ই লুফে নেবেন ভ্রমণপ্রেমী মানুষজন।

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button