খেলা ও ধুলা

বিশ্বকাপের আগে অধিনায়কত্ব নিয়ে আফগান ক্রিকেটে ঝড়!

হুট করেই আফগানিস্থান ক্রিকেট বোর্ড তিন ফরম্যাটে তিনজন অধিনায়কের নাম ঘোষণা করে। হয়ত তাদের পরিকল্পনায় অনেকদিন আগে থেকেই এমন কিছু ছিল, তবুও বিশ্বকাপের ঠিক আগ মুহুর্তে এভাবে অধিনায়কের বদল যেন ঝড় হয়েই নামলো আফগান শিবিরে। আর মাত্র অল্প কিছুদিনের অপেক্ষা। তারপর ইংল্যান্ডের মাটিতে প্রদর্শনী হবে ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় শো, ওয়ার্ল্ডকাপ। এই মুহুর্তে প্রতিটি দলের ভাবনায় বিশ্বকাপে ভাল পারফর্ম করাটাই হয়ত মুখ্য বিষয়। কিন্তু, আফগান ক্রিকেটে ঘটলো অদ্ভুত কাণ্ড। ওয়ানডে বিশ্বকাপের ঠিক আগ মুহুর্তে তারা নিজেদের নিয়মিত অধিনায়ককেই সরিয়ে দিলো। অধিনায়ক আসগর আফগানকে সরিয়ে বিশ্বকাপের আগে তারা গুলবাদাইন নাইমকে ওয়ানডে ফরম্যাটে অধিনায়কের দায়িত্ব দিয়েছে।

image source-getty image

চারবছর ধরে আসগর আফগান অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পালন করছিলেন আফগানিস্তানের হয়ে৷ তার অধিনায়কত্বের সময়েই আফগানিস্তান উদীয়মান ক্রিকেট পরাশক্তি হিসেবে বেশ পরিচিতি লাভ করে। আফগানিস্তানের বর্তমান অবস্থান পেছনে আসগরের অধিনায়কত্ব গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। তার অধীনে আফগানিস্তান ৫৬টি ওয়ানডে, ৪৬টি টিটুয়েন্টি খেলেছে।

টেস্ট দল হিসেবে প্রথম জয়টিও এসেছে তার সময়ে। কি এমন হলো যে ঠিক বিশ্বকাপের আগেই আফগানিস্থানের ক্রিকেট দলের ভেতরে এমন বড় বদলের সিদ্ধান্ত আসলো কে জানে। বোর্ড অবশ্য বলছে, বিশ্বকাপের মঞ্চে নতুন অধিনায়কদের পরিচিত হবার সুযোগ দেয়ার জন্যেই এমন সিদ্ধান্ত। আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান আজিজুল্লাহ ফাজলির যুক্তি, ‘বিশ্বকাপে পূর্ণাঙ্গ শক্তির বিপক্ষে আফগানিস্তান খেলবে, এটা বড় মঞ্চ, তাই এই সময়ে অধিনায়কত্ব পরিবর্তনের সঠিক সময়’।

image source- espn cricinfo

যদিও এই সিদ্ধান্তে খুশি নন টি-টুয়ান্টি ভার্সনে আফগানিস্তান দলের অধিনায়ক হিসেবে সদ্য দায়িত্ব পাওয়া রাশিদ খান। ইতিমধ্যে রাশিদ খান আফগান দলের ফেস হিসেবে পরিচিত, আফগান ক্রিকেটের ব্র‍্যান্ড এম্বাসেডর হয়ে উঠেছেন বিশ্বজুড়ে। নিজে বিশ ওভারের ক্রিকেটে অধিনায়কত্ব পেলেও তিনি এই হুটহাট অদল বদলে খুশি নন৷ টুইটারে তিনি এই সিদ্ধান্তকে দায়িত্বজ্ঞ্যানহীন এবং পক্ষপাতমূলক বলে অভিহিত করেছেন। তিনি সরাসরি দাবি জানিয়েছেন আসগরই যেন বিশ্বকাপে অধিনায়ক থাকেন, তার অধিনায়কত্ব দলের সাফল্যের জন্য জরুরি। কে জানে, রাশিদের এমন বক্তব্যে বোর্ড তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয় কিনা! রাশিদ খান আরো একটি টুইটে বলেছেন দলের মরাল শক্তির জায়গাও ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিশ্বকাপের আগে এই বদলে।

অধিনায়কের বদলির সিদ্ধান্তে খুশি নন সাবেক অধিনায়ক ও আফগান ক্রিকেটের আরেক দুর্দান্ত অলরাউন্ডার ক্রিকেটার মোহাম্মদ নবীও। আসগর মূলত অধিনায়কত্ব পান মোহাম্মদ নবীর জায়গায়। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের পর নবীর স্থলে আসগরকে দেয়া হয়েছিল অধিনায়কত্ব। নবী এরপর খেলেছেন আসগরের অধীনে, দলের সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে দেখেছেন আফগান দলের উত্থানপর্ব ও উদীয়মান ক্রিকেট শক্তি হবার পালাবদলের গল্প৷ নিজেও অধিনায়কত্ব করেছেন, তাই মাঠের ভেতরকার অনুভূতি তার ভাল জানা। তিনিও মনে করেন, আসগর আফগানই বিশ্বকাপে তাদের নেতৃত্ব দেবার যোগ্য৷ তিনিও টুইটারে বলেছেন, এমন বদলের জন্য এটা সঠিক সময় নয়।

image source- espn cricinfo

মোহাম্মদ নবী এবং রাশিদ খানের মতো গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়েরা প্রকাশ্যেই বোর্ডের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন। ফলে পরিস্থিতি কোন দিকে গড়ায় সেটাই এখন দেখার বিষয়।ধারাবাহিকভাবে নিজেদের প্রতিভার জানান দেয়া আফগান ক্রিকেট দলটি সীমিত ওভারের ক্রিকেটে এখন যেকোনো পাওয়ার হাউজ ক্রিকেট দলের জন্যেই হুমকি। নিজেদের সামর্থ্য বৈচিত্র্য দিয়ে তারা যেকোনো ক্রিকেট দলকে হারিয়ে দিতে পারে। দলটি যখন এই ধারাবাহিক অগ্রগতির মধ্যে যাচ্ছে, ঠিক তখন এমন বদল ক্রিকেটারদের ধারাবাহিকতার গতিকে স্লথ করে দিতে পারে এমন আশঙ্কাই হয়ত নবী কিংবা রাশিদদের।

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button