খেলা ও ধুলা

এমন টুর্নামেন্ট কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি…

বিপিএলের আয়োজকেরা দাবী করেন, বিশ্বের ফ্র‍্যাঞ্চাইজি টি-২০ লীগগুলোর মধ্যে আইপিএলের পরেই নাকি এটার অবস্থান! কিন্ত বিপিএলের আয়োজন দেখে কখনোই মনে হয় না যে এটা বিশ্বের ‘দ্বিতীয়’ সেরা ঘরোয়া টি-২০ টুর্নামেন্ট, বরং যতগুলো ফ্র‍্যাঞ্চাইজি টি-২০ টুর্নামেন্ট আছে, সেগুলোর মধ্যে বিপিএলের অবস্থানটা নিচের দিক থেকে দুইয়ে থাকলেও হয়তো মেনে নেয়া যায়। এত অব্যবস্থাপনা, এত অদক্ষতা আর এমন কৌতুকের প্রদর্শন আর কোন আন্তর্জাতিক মানের টুর্নামেন্টে হয় কিনা আমাদের জানা নেই। তবুও কিসের ভিত্তিতে যে বিপিএলের আয়োজকেরা বা বিসিবির কর্তারা এই টুর্নামেন্টকে বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা ফ্র‍্যাঞ্চাইজি টি-২০’র আসর বলে দাবী করেন, সেটা মাথায় ঢোকে না।

একজনকে ছাড়া অন্যজনের যেন চলেই না! ফিক্সিং কেলেঙ্কারির অভিযোগ বিপিএলের বিরুদ্ধে বরাবরই ছিল। পারিশ্রমিক নিয়ে তো সেই প্রথম আসর থেকেই কথা উঠেছে, টস নিয়ে বিতর্ক হয়েছে, বাইলজ বলে তো কোন শব্দই নেই বিপিএলের অভিধানে! যখন যেভাবে খুশি নিয়ম বদলানো হচ্ছে, কারো ধার ধারছে না কেউ! জোর যার নিয়ম তার- এই ছিল অবস্থা! আজ শুরু হয়েছে বিপিএলের ষষ্ঠ আসর। এবং নিয়ম মেনে, প্রথম দিন থেকেই সঙ্গী হয়েছে বিতর্ক। বিপিএল আর বিতর্ক যেন আপন মায়ের পেটের দুই ভাই, দুই হরিহর আত্মা!

বিপিএলের ম্যাচগুলোর জন্যে যেসব উইকেট প্রস্তুত করা হয়, সেগুলো কি আদৌ টি-২০ টুর্নামেন্টের উইকেট? আমার তো সন্দেহ হয়! নইলে একটা ফ্র‍্যাঞ্চাইজি টি-২০ টুর্নামেন্টে কেন ১০০’র নিচে দলীয় সংগ্রহ হবে? কেন ৯৮ রান চেজ করতে গিয়ে আরেকটা দলের ঘাম বেরিয়ে যাবে? স্পোর্টিং উইকেট জিনিসটা কি, সেটা কি কিউরেটররা জানে না? নাকি তাদেরকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেয়া হয় না? একজন দর্শক টি-২০ ম্যাচ দেখতে আসেন চার-ছক্কার ফুলঝুরি দেখবেন বলে, এমন অলস ম্যাচ দেখার জন্যে তো নয়! বিপিএল তো টেস্ট ক্রিকেটকে প্রমোট করার জায়গা না। অন্যান্য টি-২০ লীগগুলোতে দুইশো রানও জেতার জন্যে যথেষ্ট না, আর বিপিএলে কিনা একশোর কম টার্গেটে নেমেও হারের শঙ্কায় থাকা লাগে!

এবারের বিপিএলে আম্পায়ার রিভিউ সিস্টেম বা ডিআরএস রাখা হয়েছে, মাঠে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের জন্যে আবেদন করতে পারবেন খেলোয়াড়েরা। অথচ সেই ডিআরএস সিস্টেমে হটস্পট নেই, নেই স্নিকোমিটার বা আল্ট্রা-এজও! এই তিনটে ছাড়া ডিআরএসের মূল্যটা কি, সেটা বিপিএলের গভর্নিং কমিটিই ভালো বলতে পারবে। এগুলোর অভাবে ব্যাটসম্যানদের নেয়া একই রকমের দু’টো রিভিউতে আজ দু’রকমের ফল এসেছে! এসব প্রয়োজনীয় জিনিস রাখা হয়নি, অথচ স্পাইডারক্যাম প্রযুক্তির পেছনে টাকা ঢালা হয়েছে দেদারসে! কিন্ত কেন? পেটে যখন ভাত নেই, দামী জুতোয় তখন কিইবা আসে যায়?

আগে বিপিএলের সম্প্রচার স্বত্ত্ব ছিল চ্যানেল নাইনের কাছে। তাদের নিয়ে অভিযোগের অন্ত ছিল না। একটা ওভারের মধ্যে তারা সম্প্রচার করতো চার বল, প্রথম আর শেষ বলটা নাকি কাটা পড়তো বিজ্ঞাপনের কোপে! এবার মাছরাঙ্গা এবং জিটিভিতে সম্প্রচারিত হচ্ছে বিপিএল, তারাও নিজেদের বিতর্কিত করার মিশনে নেমেছে! গতকাল যেমন পেসার খালেদ আহমেদকে তারা ১১৯ বছরের ‘তরুণ’ বানিয়ে দিয়েছে! এসব জিনিস নিয়ে ট্রল করতে মজা পাওয়া যায়, কিন্ত নিজের দেশের ফ্র‍্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টের এমন বেহাল দশা দেখে কষ্ট পাওয়া ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না।

তবে খালেদের বয়স একশো বছর বাড়িয়ে দিয়েই যদি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো সন্তুষ্ট থাকতো, তাহলেও একটা কথা ছিল। কিন্ত এত অল্পেই কি থামবে তারা? আর সেকারণেই গতকালের দুটো ম্যাচজুড়েই অসম্ভব আর উদ্ভট সব সমীকরণ দেখা গেছে ম্যাচের স্কোরবোর্ডে, কিংবা লাইভ স্কোরে। ছয় ওভারের মধ্যে দুই ব্যাটসম্যান মিলে খেলেছেন ৩৫ বল, বাকি একটি বলের কোন হিসেব নেই! রাজশাহীর ইনিংসের দশম ওভারের প্রথম বলটি হবার পরে স্ক্রলে দেখানো হচ্ছিল, তাদের হাতে আর মাত্র ৫৯ বল আছে! টি-২০ যে বিশ ওভারের খেলা, জিটিভির লোকজন বোধহয় সেটা ভুলেই গিয়েছিলেন!

রাজশাহীর ব্যাটিঙের সময় তো একবার লাইভ স্কোরে দুই ব্যাটসম্যানের নাম একই বানিয়েও দেয়া হয়েছে! আর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের মাটি ফুঁড়ে পানির ট্যাংক/গাড়ির টায়ার কিংবা রঙের ডিব্বা, থালা-বাসন থেকে শুরু করে হরেক রকমের পণ্যসামগ্রী উঠে আসার পুরনো কাসুন্দি তো আছেই! তার ওপরে যোগ হয়েছে ধারাভাষ্যের যন্ত্রণা। একটা আন্তর্জাতিক মানের ফ্র‍্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে ধারাভাষ্যের মান কেন এত খারাপ হবে? এত টাকা এতদিকে খরচ করা হচ্ছে, সেই টাকাগুলো কি ভালো কাজে ব্যবহার করার কথা কেউ ভাবে না? টেলিভিশনে যারা বিপিএল দেখছেন, তারা কি দর্শক নন? তাহলে সেই দর্শকদের কেন অত্যাচারের মুখে ফেলা হচ্ছে?

এতসব ঘাটতি পূরণের কোন চেষ্টা নেই, বিপিএল কমিটি পড়ে আছে স্পাইডারক্যাম আর ড্রোন ক্যামেরা নিয়ে! এমন অব্যস্থাপনায় ভরা ফ্র‍্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট বিশ্বে আর একটাও খুঁজে পাওয়া যাবে কিনা সন্দেহ, অথচ এরপরেও তারা বড় গলায় দাবী করেন, বিপিএল নাকি বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা টি-২০ টুর্নামেন্ট! কোন মানদন্ডে তারা এই পরিমাপ করেছেন, তারাই ভালো বলতে পারবেন। আমরা শুধু তাদের তামাশাগুলো দেখে যাই চুপচাপ…

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Back to top button