এরাউন্ড দ্যা ওয়ার্ল্ডবিবিধ

যে কারণে ভুটানে সিভিল সার্ভিসে শিক্ষকদের বেতন সর্বোচ্চ করা হয়েছে…

গতকাল থেকে একটি খবর বেশ ভাইরাল হয়েছে। ভুটানে শিক্ষকদের বেতন দ্বিগুণ করা হয়েছে। সরকারি চাকরিতে এখন তারাই সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া চাকুরিজীবী হতে যাচ্ছেন। শিক্ষকদের সাথে সাথে চিকিৎসক, নার্সদেরও বেতন বৃদ্ধি করা হয়েছে। যা বেশ প্রশংসিত হচ্ছে সর্বত্র। তবে শিক্ষকদের বেতন আগের তুলনায় দুইগুণ বেড়েছে এবং সাথে তাদের বিভিন্ন ভাতা দেয়ারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভুটান সরকার।

ভুটান
Image source – AFP

কেন এমন সিদ্ধান্ত? ভুটান দেশটা এমনিতেই একটু ব্যতিক্রম। অন্য সবাই যখন জিডিপির হিসেব নিকেশ নিয়ে ব্যস্ত, ভুটান তখন হিসেব করে গ্রস ন্যাশনাল হ্যাপিনেস (জিএনপি)। নাগরিক কতটা সুখী এটাই জাতি হিসেবে তাদের সাফল্য বিচারের প্যারামিটার। এই রাষ্ট্রটি খেয়াল করলো, তাদের শিক্ষকরা সুখে নেই। কারণ, বেতন ভাতা অতটা আকর্ষণীয় নয়, অন্যান্য পেশার তুলনায়। রাষ্ট্রটি আরো খেয়াল করলো, সরকারি চাকরিতে কেউ খুব উৎসাহ নিয়ে শিক্ষকতাকে চয়েজ দিচ্ছে এমন নয়,দিলেও শেষের দিকে দিচ্ছে এবং যখন অন্যান্য চাকরি হচ্ছে না তখনই কেবল তারা শিক্ষকতায় আসছে।

কিন্তু, এমনভাবে চললে শিক্ষার মান, শিক্ষকের উৎসাহ, পড়ানোর আকাঙখা সবকিছুই নিম্নগামী হবে। ভুটান বুঝতে পেরেছে এমন অবস্থায় কি করা উচিত। তারা বুঝতে পেরেছে, শিক্ষকতা পেশাটিকে সম্মানিত না করলে, শিক্ষকদের মূল্যায়ন না করলে এই পেশায় মেধাবী মানুষ, অভিজ্ঞ মানুষ, উৎসাহী মানুষদের খুঁজে পাওয়া কঠিন হয়ে যাবে একসময়। তাই, তারা একদম রাষ্ট্রীয়ভাবে শিক্ষকতাকে সবচেয়ে সম্মানজনক এবং সবচেয়ে বেশি সম্মানীপ্রাপ্ত পেশা হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে।

একই সাথে চিকিৎসা সেবায় যুক্ত মানুষদেরও বেতনভাতা বাড়ানো হয়েছে৷ ভুটানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং নিজে একজন চিকিৎসক এবং তার নির্বাচনী ইশতেহারে স্বাস্থ্যসেবা সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাওয়া খাত ছিল। তিনি জানেন, চিকিৎসকরা কি অসীম মানসিক চাপ নিয়ে কাজ করে যান। তাদের পরিশ্রমের প্রতি সম্মান দেখাতেই চিকিৎসক এবং নার্সদেরও বেতন বাড়ানো হয়েছে ভুটানে। ২৮ হাজার গুলট্রাম থেকে বেড়ে তাদের বেতন হয়েছে এখন ৩৭ হাজার গুলট্রাম।

ভুটান প্রধানমন্ত্রী, লোটে শেরিং

ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে দেয়া এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, “নতুন বেতন কাঠামোর এই সরকারি পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে শিক্ষকরাই হবেন দেশের সর্বোচ্চ বেতন পাওয়া মানুষ।” বেতন বাড়ানোর প্রতিক্রিয়ায় ভুটানের শিক্ষকরাও বেশ খুশি। ভুটানের পারো শহরের শিক্ষক পেমা ইয়াংকি তো বলেই ফেললেন আবেগ আক্রান্ত হয়ে, “এখন আমরা গর্বের সাথে বলতে পারব আমরা শিক্ষক।”

লোটে শেরিংয়ের সরকার বেতন বৈষম্য দূর করে অনেকবছর ধরে পিছিয়ে পড়া পেশা শিক্ষকতাকে যে গ্ল্যামার দিলেন, তাতে শিক্ষকরা অনুপ্রাণিত হবেন এটাই স্বাভাবিক। আমাদের দেশের সিভিল সার্ভিসের সাথে একটু মিলিয়ে দেখুন, ব্যাপারটা একদমই মিলে যায়। শিক্ষা ক্যাডারকে প্রথম চয়েজ খুব মানুষকে দিতে দেখেছি এই জীবনে। শিক্ষা ক্যাডারের ক্ষমতা কিংবা গ্ল্যামার কম এমন আলোচনাও আছে আমাদের দেশে। এর পেছনে কারণটা কি আমরা খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছি, রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে?

সবসময় মূল্যায়নটা যে শুধু টাকার হতে হয় তা নয়। রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে আপনি কিভাবে ট্রিট করছেন শিক্ষা খাতকে এবং শিক্ষকদের সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ভুটান তাদের দেশের শিক্ষকদের প্রণোদনা বাড়াবার জায়গাটা ধরতে পেরেছে, তাই তারা দেখিয়ে দিলো, শিক্ষকতা পেশাকে কিভাবে সম্মানিত করা যায়। এখন নিশ্চয়ই ভুটানের সিভিল সার্ভিসে শিক্ষকতাকে কেউ লাস্ট চয়েজ দিবে না অন্তত….

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button