Uncategorizedখেলা ও ধুলা

সাকিব-মুশির অসাধারণ ব্যাটিংয়ে বড় স্কোরের পথে বাংলাদেশ..

একটা ইন্টেরেস্টিং তথ্য মাত্রই জানলাম ফাহিম রহমানের সুবাধে। তিনি পরিসংখ্যান চেক করে নিশ্চিত করলেন, ক্রিকেট ইতিহাসের একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবে চার বিশ্বকাপের নিজেদের উদ্ভোধনী ম্যাচে ফিফটি হাঁকিয়েছেন সাকিব আল হাসান। এমন কীর্তি নেই আর কারো!

তামিমের আউটের পর সাকিব ক্রিজে এসেই মোটামুটি দেখেশুনে ব্যাট করছিলেন। সিঙ্গেলস বের করার চেষ্টা, বাউন্সার বলগুলোকে দেখেশুনে মোকাবেলা – সব মিলিয়ে সাকিবকে দেখাচ্ছিলো বেশ প্রত্যয়ী। আত্মবিশ্বাস এবং কিছু করে দেখানোর তাগিদটা বডি ল্যাঙ্গুয়েজে স্পষ্ট।

সাকিব, মুশফিক
image source – ICC

সৌম্যের উড়াধুরা শুরু দীর্ঘস্থায়ী না হলেও তার জায়গা যিনি আসলেন, মিডল অর্ডারে বিশ্বস্থতার নাম মুশফিকুর রহিম। বহু ম্যাচে দলকে শক্ত ভিত্তি দিয়েছেন যিনি। এমনিতে সাকিব আল হাসানের সাথে মুশির জুটি ভাল জমে। আজকে একদম শুরু থেকে জমে গেল। মুশি তো পয়েন্ট অঞ্চল দিয়ে যেভাবে পাওয়ারফুল শটে চারগুলো মারলেন, তাতে দক্ষিণ আফ্রিকার পেসারদের হতাশা বাড়ছিলো একটু একটু করে।

ক্রমেই হুমকি হয়ে ওঠা সাকিব মুশি জুটিকে কোনোক্রমেই ভাঙতে পারছিলো না দক্ষিণ আফ্রিকান বোলিং এট্যাক। এমনকি ইমরান তাহিরের বোলিংকেও কেমন নির্বিষ মনে হচ্ছিলো সাকিব, মুশফিকের ব্যাটিংয়ের সামনে। তৃতীয় উইকেটে মুশফিক সাকিবের শতরানের জুটি বাংলাদেশের স্কোরবোর্ডকে স্বাস্থ্যবান করতে সাহায্য করেছে। ৩২ তম ওভারেই বাংলাদেশের স্কোরবোর্ডে রান ২০০ পেরিয়েছে!

সাউথ আফ্রিকান বোলিং এটাক নিয়ে যে জুজুর ভয় ম্যাচের আগে দেখানো হচ্ছিলো, ম্যাচে তার খুব একটা প্রতিফলন দেখা গেল না। তার পুরো ক্রেডিট বাংলাদেশের আজকের ব্যাটিং এপ্রোচের। শুরুতে সৌম্য এগ্রিসিভ ব্যাটিং করে গেছেন, তারপর সাকিব মুশফিক খেললেন একদম অতন্দ্র প্রহরীর মতো চোখ কান খোলা রেখে।

সাকিব শেষপর্যন্ত ইমরান তাহিরের বলে সুইপ করতে গিয়ে আউট হয়ে গেলেও, যে সলিড ভিত্তি দিয়ে গেলেন, এটাকে দীর্ঘায়িত করে যতবেশি স্কোরটাকে বাড়িয়ে নেয়া যায়। ব্যাটিং অর্ডার হুট করে কলাপস না করলে সাউথ আফ্রিকার জন্য বেশ চ্যালেঞ্জিং একটা স্কোর অপেক্ষা করছে নিশ্চিতভাবে বলা যায়…

Facebook Comments

Tags

ডি সাইফ

একদিন ছুটি হবে, অনেক দূরে যাব....

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button