খেলা ও ধুলা

বিচক্ষণতা, খামখেয়ালিপনা আর দায়িত্বপ্রবণতায় ৫১৩ রানের প্রথম ইনিংস

এক

আমার ধারণা ইতিহাসের টেল এন্ডারদের নিয়ে ব্যাট করা সবচেয়ে আন্ডাররেটেড বিশুদ্ধ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ অন্যতম! কতগুলো ইনিংস যে তিনি শুধু টেল এন্ডারদের নিয়ে খেলেছেন তাঁর হিসাব গুনে শেষ করা যাবে না! ভেরি গুড ক্যাপ্টেন ফ্যান্টাস্টিক!

দুই

মোসাদ্দেকের মতো পরিণত মাথার ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে আজকের ডাউন দ্যা উইকেটে এসে মিড অনের উপর দিয়ে মারতে চাইবার ব্যাপারটা চরম হতাশাজনক ছিল!

তিন

বাংলাদেশের টিম ম্যানেজম্যান্টের উচিত মেহেদী হাসান মিরাজের ব্যাটিং নিয়ে আরও কাজ করা। সে একজন বিশুদ্ধ ব্যাটিং অলরাউন্ডার। কিন্তু টিম ম্যানেজম্যান্ট এবং নিজের খামখেয়ালিতে কোনরকম ব্যাট করতে পারা বোলার হয়ে উঠছে! একজন ব্যাটসম্যানের একটা ড্রাইভ বা ফ্লিক দেখলে তাঁর ক্ষমতা সম্পর্কে কিছুটা ধারণা পাওয়া যায়। তাঁর কিছু শট দেখে বিভিন্ন সিরিজে বিভিন্ন ধারাভাষ্যকাররা বেশ উচ্চ কিছু প্রশংসা করেছেন মিরাজ অবশ্যই একজন মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান ম্যাটেরিয়াল! তাঁকে নিজের ব্যাটিং নিয়ে অনুশীলনে আরও মনোযোগী হতে হবে, টিম ম্যানেজম্যান্টকে ব্যাপারটা আরও দেখতে হবে!

চার

লিটনকে খুবই পছন্দ করি। তাঁকে কিভাবে ডিফেন্ড করব বুঝছি না। তবু মনে হচ্ছে তাঁকে নিয়ে সমালোচনাটা একটু বেশিই হচ্ছে। এক টেস্ট আগেই সাউথ আফ্রিকাতে ধ্বংসস্তুপের মধ্যেও সে ৭৭ রান করেছিলো। তবু অফ স্টাম্পের বাইরের নিরীহ বল নিয়মিত জাজ করতে না পারাটা ডিফেন্ড করা যায় না! আপাতত টেস্টে তাঁকে একজন বিশেষজ্ঞ কিপার হিসেবে বিবেচনা করা যায়। সে ব্যাটিংয়েও পারবে ইন-শা-আল্লাহ!

পাঁচ

মুমিনুলের ১৭৬ ব্যাটিং পারফেকশনের দিক থেকে আমার দেখা অন্যতম সেরা ইনিংস। পুরো ইনিংসে ১৫৩ রানে থাকাকালে একটা বল ব্যাটের কানায় লেগে স্লিপ দিয়ে বের হয়েছিলো। এছাড়া পুরোটাই কন্ট্রোল্ড ইনিংস! সাকিব, তামিমদের ইনিংসে যেটা হয়, অনেক সময়েই আউট হবে হবে একটা ভয় কাজ করে। বল এজ হয়ে স্লিপ, গালি দিয়ে বের হয়ে যায়, কাট-পুলগুলো নো ম্যান্স ল্যান্ডে পড়ে; ইত্যাদি ইত্যাদি! মুমিনুলের ক্ষেত্রে গতকাল সারাদিনে একবারও এমনটা বোধ হয়নি! এমন একটা নিখুঁত ইনিংস অনেক ডাবল সেঞ্চুরির চেয়েও বড়!

ছয়

ইনিংসের শুরুতে তামিমের আক্রমাত্মক মানসিকতা ইনিংসের গতিপথ ঠিক করে দিয়েছিলো। আর অপরপ্রান্তে আক্রমাত্মক মুমিনুলকে দেখে মুশফিক যেভাবে মাথা ঠান্ডা রেখে জুটি বড় করেছেন সেটা দেশসেরা ব্যাটার মুশফিকের ব্যাটসম্যানশিপের পরিচায়ক!

সাত

সবমিলিয়ে ৫১৩ বেশ ভালো রান। পিচের অবস্থা এখনো ভালো। কোন ক্যাচ মিস করা যাবে না; ফিল্ডিং ঠিক হলে ন্যূনতম ১০০ রানের লিড রাখতে পারা উচিত।

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Back to top button