রকমারিরিডিং রুম

বাংলা সাহিত্যের যে ১০টি কালজয়ী উপন্যাস না পড়লেই নয়!

বাংলা ভাষায় আমরা অসাধারণ কিছু উপন্যাসের দেখা পেয়েছি। লক্ষ লক্ষ উপন্যাসের মাঝে কিছু কালজয়ী বই হিসেবে স্বীকৃতও হয়েছে। সেই উপন্যাসগুলো পড়াটা নিজেদের জন্যই দরকার, জানা দরকার আমাদের মাতৃভাষায় কী দারুণ দারুণ উপন্যাস লেখা হয়েছে। আপনি যদি উপন্যাসপ্রেমী হয়ে থাকেন, তাহলে পাঠক জীবন অপূর্ণ থেকে যাবে এই দশটি কালজয়ী উপন্যাস না পড়লে।

হাজার বছর ধরে- জহির রায়হান

স্কুলে নাইন-টেনে এই বইটা পড়েছিলাম। এখনো উপন্যাসের শেষ লাইনটা বুকে হাহাকার তোলে ‘রাত বাড়ছে, হাজার বছরের পুরানো সেই রাত।’ আবহমান বাংলার চিরায়ত আবহ, সম্পর্কের টানাপোড়েন, কুসংস্কার, পুঁথি পাঠ, নারী নির্যাতন, পরকীয়া- কত বিষয় যে একটা উপন্যাসে থাকতে পারে! মোটামুটি সবারই এই বইটা পড়ার কথা, যারা পড়েননি, তাদের একবার হলেও এই বইটা পড়া উচিত। বইটি পেতে ক্লিক করুন এই লিংকে- http://bit.ly/2RAaNzE

কবি – তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলা সাহিত্য জগতে যে কজন লেখক বিশ্বমানের লেখা উপহার দিয়েছেন তার মধ্যে তারাশঙ্করের নাম বারবার প্রাসঙ্গিক। এই লেখকের অমর সৃষ্টি ‘কবি’। এই উপন্যাসের একটা লাইনে যেন আমাদের সবার জীবনেরই আক্ষেপ, বুক হু হু করে উঠা অনুভূতি ফুটে ওঠে – ‘হায়! জীবন এত ছোট ক্যানে?’ ডোম বংশের নিতাই চরণ বাপ দাদার পেশা ডাকাতি ছেড়ে কবিয়াল জীবন বেছে নেয়৷ এই উপন্যাসের কবিতাগুলোতে প্রেমের বিভিন্ন পর্যায়ের আকুলতা প্রকট হয়ে আন্দোলিত করে পাঠকমনকে। উপন্যাসটি পাবেন এই লিংকে ক্লিক করে- http://bit.ly/2RuzI7X

লালসালু – সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ

লেখকের প্রথম উপন্যাস এটি। লালসালু বইটিতে ভন্ড পীরের ভন্ডামিকে পুঁজি করে সমাজকে ভুল পথে প্রভাবিত করার ব্যাপারটি তুলে আনা হয়েছে। এই উপন্যাসটি বাংলা সাহিত্যে মাইলস্টোন হয়ে থাকবে। এমনকি এখনো এই বইটা প্রাসঙ্গিক। সমাজে যখনই ভন্ডপীরের উত্থান ঘটে, আমাদের মনে পড়ে লালসালু উপন্যাসের কথা। ঘরে বসেই পেতে পারেন বইটি- http://bit.ly/2RvVIPG

পথের পাঁচালি- বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যয়

দুই ভাই বোন অপু-দূর্গার ভালবাসা নিয়ে এই বই কিন্তু তারচেয়েও বইটি গুরত্বপূর্ণ হয়ে থাকবে সেইসময়কার সমাজব্যবস্থার চিত্র এই বইটিতে ফুটে উঠায়। জীবনবোধের নিগুঢ় কিছু উপাখ্যান আপনি উপভোগ করবেন এই বইয়ের পাতায় পাতায়। এই বইটি নিয়ে সত্যজিৎ রায় সিনেমাও বানিয়েছেন, তবে সিনেমা দেখুন কিংবা না দেখুন বইটা আপনাকে নিশ্চিতভাবে অসাধারণ অনুভূতি দেবে। উপন্যাসটি পড়ুন এই লিংকে ক্লিক করে- http://bit.ly/2RAM3aN

চিলেকোঠার সেপাই – আখতারুজ্জামান ইলিয়াস

১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের সময়কার পটভূমিতে নিয়ে আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের এই বিখ্যাত উপন্যাসটি। প্রত্যেকটি কালজয়ী বইয়ের তালিকায় এই বইটি থাকবেই। কারণ, বাংলাদেশের লেখকদের লেখা কতটা শক্তিশালী হতে পারে তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত লেখক দেখিয়েছেন এই বইতে। ঘরে বসেই পেয়ে যান বইটি এই লিংকে ক্লিক করে- http://bit.ly/2RyH5eh

ক্রীতদাসদের হাসি – শওকত ওসমান

উপন্যাসের ঘটনাটি মুসলিম খলিফা হারুন অর রশিদের শাসনামলের সময়কার। সংলাপনির্ভর এই উপন্যাসটিকে শওকত ওসমানের শ্রেষ্ঠ কাজ বলে বিবেচিত করা হয়। ক্রীতদাসের হাসি মূলত বিদ্রুপ সাহিত্য। নিঃসন্দেহে এটি বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ক্লাসিক উপন্যাস। ১৯৬৩ সালে প্রকাশিত উপন্যাসটির প্রথম সংস্করণ পেতে পারেন এই লিংকে ক্লিক করে- http://bit.ly/2RuHRsY

পদ্মা নদীর মাঝি – মানিক বন্দোপাধ্যায়

এই বইটি পড়েছিলাম কলেজ জীবনে। পদ্মা নদীর মাঝিদের জীবন নিয়ে লিখতে গিয়ে লেখক দীর্ঘসময় তাদের সাথে সময় কাটিয়েছিলেন। ফলে বাস্তব অভিজ্ঞতার ছাপ স্পষ্ট লেখকের মুন্সিয়ানায়। ছোট পরিসরে লেখক সমাজের যে সংকীর্ণতাকে ফুটিয়ে তুলেছেন, তার জন্যে এই বইটি সবসময়কার ‘মাস্ট রিড’ তালিকায় থাকবে নিশ্চিতভাবেই। বইটি পেতে পারেন এই লিংকে ক্লিক করে- http://bit.ly/2Ryx150

সংশপ্তক – শহীদুল্লাহ কায়সার

“এক ধারায় নয়, বহু ধারায় প্রবাহিত মানুষের জীবন। যদি শুকিয়ে যায়, যদি রুদ্ধ হয় একটি ধারা আর এক ধারায় জ়ীবন বয়ে চলে সার্থকতার পানে।এটাই জীবনের ধর্ম। সহস্র ধারায় জীবনের বিকাশ,অজস্র পথে তার পূর্ণতা” – বইয়ের একটি লাইন। বস্তুত, বহু ধারায় বহুরূপী মানুষের জীবন নিয়ে সংশপ্তক উপন্যাসটি। এই বইটা পড়তে পড়তে মনে হবে, কেন আগে পড়লাম না এই দারুণ বইটি! ঘরে বসে অর্ডার করুন উপন্যাসটি- http://bit.ly/2RuI4fK

সূর্য দীঘল বাড়ি- আবু ইসহাক

লেখকের শ্রেষ্ঠ কীর্তি সম্ভবত এই বইটি। কিছু কিছু বই পড়তে যেমন আরাম, তেমনি মুগ্ধতাও ছুঁয়ে যায় ভীষণরকম৷ সূর্য দীঘল বাড়ি তেমনি একটি উপন্যাস। সূর্য দীঘল বাড়ির চরিত্রদের সাথে কখন আপনিও মিশে যাবেন, টেরই পাবেন না। গ্রাম বাংলার চিত্র খুব দারুণ সহজিয়া ভঙ্গিতে তুলে এনেছেন লেখক এই বইতে। বাংলা একাডেমী পুরষ্কারপ্রাপ্ত বইটি কিনুন এই লিংকে ক্লিক করে- http://bit.ly/2RAT634

পথের দাবি – শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়

অসংখ্য জনপ্রিয় বইয়ের স্রষ্টা শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু পথের দাবি লিখে অদ্ভুত অভিজ্ঞতার মুখে পড়তে হয়েছিল তাকে। বইটি ব্রিটিশরা নিষিদ্ধ করেছিল। কারণ ব্রিটিশদের কাছ থেকে স্বাধীনতা- এই আইডিয়া নিয়ে লেখা বইটা ব্রিটিশরা সহ্য করতে পারেনি। যুগে যুগে সব শাসকরাই এই ধরণের বইকে নাকচ করে দিতে চায়। ভারতে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে এক অসাধারণ বিপ্লবী সব্যসাচী ও তার সাথীদের সংগ্রামের কাহিনী নিয়ে ব্রিটিশ শাসনামলে লিখিত একটি সাহসী উপন্যাসটি তাই সকলের পড়া উচিত। বইটি সংগ্রহ করুন এই লিংকে ক্লিক করে- http://bit.ly/2RuCSsl

সবগুলো বই প্রত্যেক সাহিত্যপ্রেমীর সংগ্রহে থাকা দরকার। পাঠকদের সুবিধার্থে রকমারি এই দশটি বই নিয়ে স্পেশাল প্যাকেজ অফার করেছে। ২৬% ডিসকাউন্টে অফারটি দেখতে ক্লিক করুন এই লিংকে- http://bit.ly/2RuymKp

Facebook Comments

Tags

ডি সাইফ

একদিন ছুটি হবে, অনেক দূরে যাব....

Related Articles

Back to top button