খেলা ও ধুলা

অদ্ভুত টিম সিলেকশন আর বিদঘুটে বোলিং-ক্যাপ্টেন্সিতে ভরা ম্যাচ…

ইংল্যান্ডের মতো ব্যাটিং সেলের বিপক্ষে টস জিতে নেয়া হলো ফিল্ডিং। যুক্তি? মাঠ দুদিন কাভারড ছিলো, পেসাররা প্রথম এক ঘন্টা সুবিধা পাবে।

গুড লজিক, রাইট?

বাট বাট বাট, টিমের সবচেয়ে এক্সপ্রেস বোলারকে রাখা হয়েছে বসিয়ে।

দ্যান প্রথম ওভারে আনা হলো সাকিবকে। যুক্তি?
রয় স্পিনে উইক।

গুড লজিক, রাইট?

বাট বাট বাট, তারপরের ওভারেই মোস্তাফিজকে বলে না দিয়ে বোলিং এ আসলেন মাশরাফি। তাঁর গতি এখন অনুর্ধ্ব ১১৯। তবুও তাঁর লাইনে কন্ট্রোল আছে, কাটার মারার এবিলিটি আছে। লাইন লেন্থে দু চারটা ভালো ওভার তাঁর থেকে আশা করাই যায়। মানা গেল।

কিন্তু কিন্তু কিন্তু, তারপর একি কাণ্ড!
গতি, কাটার বিবেচনা করে মোস্তাফিজকে না এনে, স্পিনে রয়ের দুর্বলতা বিবেচনায় মিরাজকে না ডেকে আনা হলো সাইফুদ্দিনকে।

বিশ্বকাপ, ইংল্যান্ড বনাম বাংলাদেশ

সাইফুদ্দিনের গতি অনুর্ধ্ব ১২৯, নো মুভমেন্ট, নো সুইং, নো কাটার, নো বাউন্স। স্টক ডেলিভারিতে একটাই গুণ বিদ্যমান, ইয়র্কার দেয়া। ১২৫ গতিতে ভালো ইয়র্কার মারার জন্য চামিন্দা ভাস লেভেলের মেধাবী হতে হবে। যেহেতু তিনি চামিন্দা ভাস না, সুতরাং ইয়র্ক করতে গিয়ে সবকটা বল পড়ল স্লটে। রয় বেয়ারস্টোর সামনে স্লটে বল!

ওরা সবকটা বলকে ছক্কা না মেরে কেন চার মারল সেটাই বরং বিস্ময়ের।

লং অন, লং অফ নেই, বোলার করছে স্লটে বল!
পীচে ঘাসের সুবিধা নেয়া হবে রুবেলকে বসিয়ে। নতুন বলের সুবিধা নেয়া হবে, অথচ নাই কোনো স্লিপ, নাই কোনো ফাইনলেগ। ডিফেন্সিভ মুডেই যদি থাকবে তবে টস জিতে কেন ফিল্ডিং?

আমি এমন অদ্ভূত টিম সিলেকশন, আর বিদঘুটে বোলিং-ক্যাপ্টেন্সি আর কবে দেখছি মনে নেই।

সাকিবের ওভার অলরেডি শেষের দিকে। তারপর কে করবে সাইফুদ্দিনের ওভার, কে করবে মাশরাফির ওভার, ফিজ রান লিক মুডে থাকলে কে করবে সেটা কাভার?

আজকে ইংল্যান্ডের পক্ষে ৫০০ করা অসম্ভব না, ৪০০ না করাটা হবে বিস্ময়ের, এবং ৩৫০ এর নিচে করলে সেটা হবে অঘটন।

আমি সাইফুদ্দিনের খুব বড় ওয়েল উইশার। তাকে সঠিক পরিচর্যা করলে তার থেকে দল ভালো সার্ভিস পাবে বলে বিশ্বাস করি; সেটা বলে হোক বা ব্যাটে হোক।

তবে সবার আগে দলে সাইফুদ্দিনের রুল কী সেটা বের করতে হবে। আমার ধারণা সাইফুদ্দিন নিজেও তার রুল ব্যাপারে অবগত না।

স্যরি টু সে, আজকের একাদশে থাকাটা সাইফুদ্দিন ডিজার্ভ করে না। আজকে রুবেলকে না রাখাটা অন্যায় হইছে। অন্যায়টা যতটা না রুবেলের সাথে করা হইছে তারচেয়ে বেশি হইছে খোদ সাইফুদ্দিনের সাথেই। সে আজকে হ্যামারড হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা আছে।

এগেইন স্যরি টু সে, আজকে বাংলাদেশের কোনো আশা দেখছি না।

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button