Uncategorized

ঈদের উপহার, অর্ণবের নতুন গান!

মাঝখানে কয়েকটা বছর অর্ণবকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলো না। কোথায় তিনি? নতুন কোনো গান নেই, নতুন কোনো খবরে নেই তিনি। নিজের গানের কথার মতো যেন ‘হারিয়ে গিয়েছি’ সেটাই জরুরি খবর হয়ে উঠেছিল। কিন্তু মানুষটা হারিয়ে যাননি। গানের মধ্যে ফিরে এসেছেন, নিজেকেও খুঁজে পেয়েছেন, কোন প্রসেসে তিনি গান গাইবেন সেই দ্বিধাও কেটে গেছে এখন। সব জটিলতাকে পেছনে ফেলে তাই অর্ণব আবারো সপ্রতিভ হয়ে উঠছেন, তৃষ্ণার্ত শ্রোতারা অর্ণবকে আবারো শুনতে পাচ্ছে।

ঢাকা থেকে মুভ করে শান্তিনিকেতন গেছেন। স্টুডিও ছেড়ে দিয়েছেন। তার মনে হচ্ছিলো, মেশিনের সাথে বেশি ইন্টারেকশন হয়ে যাচ্ছে, যা হওয়া উচিত নয়। “Men should think, machine should work” এই চিন্তাটা যখন মাথায় স্ট্রাইক করলো, তখনই তিনি নতুন যাত্রা শুরু করলেন। তিনি যেরকম আউট অফ দ্যা বক্স ভাবতে চান, তার জন্যে মেশিন থেকে দূরত্ব দরকার হতো কিছুটা, মানুষকে জানার, মানুষের মধ্যে যাওয়ার দরকার ছিল। সেটাই করেছেন। নিজের শৈশবের ঘাঁটিতেই আবার খুঁটি গেড়েছেন। কয়েকটা ওয়ার্কস্টেশন তৈরি করেছেন। ঘুরে ঘুরে কাজ করছেন। নিজের গ্রোথ নিয়ে ভাবছেন। একজায়গায় স্থবির হয়ে যেতে চাইছেন না। অর্ণব-ভক্তদের জন্য এটা দারুণ খবর নিশ্চয়ই।

অর্ণব

তারচেয়ে আনন্দময় ঘটনা হলো, ঈদেই অর্ণবের একটা ঝকঝকে নতুন মৌলিক গান প্রকাশিত হয়েছে। ঈদের কন্টেন্ট নিয়ে আজকাল হাপিত্যেশ কম চলছে না বাজারে। একটা সময় ঈদের আয়োজন নিয়ে যে ক্রেজ থাকত, এখন সেটা হারিয়ে যেতে বসেছে কন্টেন্টের মান নিম্নগামী হবার ফলে। কি গান, কি নাটক, কি সিনেমা কোনো কিছুই মন ছুঁয়ে যাওয়ার মতো যেন হচ্ছেই না। এমন যখন সময়, তখন অর্ণবের মতো একজন প্রতিভাবান ও মেধাবী মানুষের গানকে ঈদের বিশেষ উপহার বলতে দ্বিধা হয় না।

“কি হলে কি হতো” শিরোনামের এই গানটি মিউজিক ভিডিওর সাথে ইউটিউবে রিলিজ হয়েছে। ভিডিওতে ছিলেন মিথিলাও, যিনি সম্পর্কসূত্রে অর্ণবের কাজিন। একসাথে দুইজনের দেখা পাওয়া একই কাজে, এটাও বেশ দারুণ ঘটনা। চমক হিসেবে ছিলেন সৃজিত মুখার্জিও!

অসাধারণ লিরিক সাথে অর্ণব ম্যাজিক যখন এক হয়, তখন সেই গান কি হতে পারে এই ধারণা অর্ণবের শ্রোতারা খুব ভাল করেই জানেন। এই গানটাও ঠিক তেমনই। দুর্দান্ত গায়কী, চমৎকার সুর, অসাধারণ লিরিক- এর চেয়ে দারুণ গিফট আর কিছু হতে পারে না। গানটির কথা, সুর, সংগীতায়োজন করেছেন প্রদ্যুত চ্যাটার্জি। শ্রুতিমধুর এই গানের শুরুর দিকের লাইনগুলো শুনে মনে হলো যেন, অর্ণব নিজেকেই বলছেন কথাগুলো,একইসাথে কথাগুলো তাদের সাথেও যায়, যারা অপ্রাপ্তির খাতা খুলে বসে বিষাদগ্রস্থতায় জীবন পার করে দিতে চায়।

কি হলে কি হতো, অর্ণব

“…কি পেলে কি ভালো হতো, ভেবোনা
যা পেয়েছো তাই বা কজন পায় বলোনা।
কি হলে কি হতো ভালো, ভেবোনা
যা হচ্ছে ভালো বেশি কি চাও আর বলোনা..”

আসলেই তো, যা পাওয়া যাচ্ছে ওটুকুই বা কজন পায়। কি হলে, কি পেলে ভাল হতো ওই নিয়ে হিসেব করে কি লাভ! তারচেয়ে কি করা উচিত? গানের পরের অংশে সে কথাই জানা যায়।

..বরং কোলাহলে মনোবলে,
নিজেকে লুকিয়ে রেখে, ভাসিয়ে দাও বাতাসে। যদি ফুরায় তোমার হাসি,
বোলো তবে দিয়ে আসি, কুঞ্জ মেঘ আকাশে।

তুমি সকাতরে কাঁদিলেও পাবেনা সে ভালোবাসা যদি হারাও নিজেকে।
বরং কোলাহলে নির্জনে
বসিয়া গোপন কথা, ভাসিয়ে দাও বাতাসে…

একাকীত্ব ছুঁড়ে কোলাহলের ভীড়ে মিশে যাওয়ার কথা বলা হচ্ছে, মনোবল নিয়ে নিজের বেদনা সব বাতাসে ভাসিয়ে দিতে পারলে নিজেকে ঠিকঠাক করা যাবে আবার। নিজেকে হারিয়ে কি, ভালবাসার খোঁজ পাওয়া যায়? বরং নিজেকে মুক্ত করে সব গোপনীয়তা বাতাসে ভাসিয়ে দেয়াই ভাল। জীবনে মুভ অন করাটা খুব জরুরি। অর্ণবও যেমন একটা দীর্ঘ স্থবিরতা থেকে সচল হয়েছেন। কাজের মধ্যেই নিজেকে খুঁজে নিচ্ছেন…

Facebook Comments

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button