খেলা ও ধুলারাশিয়া বিশ্বকাপ ২০১৮

মেসি-রোনালদোকে নিয়ে নোংরামি আর টিটকারী মারা কি ফুটবলপ্রেমী হবার শর্ত?

আমি একজন আর্জেন্টিনা ফ্যান। মেসির ভক্ত। বার্সার সাপোর্টার। কিন্তু সবার আগে আমি ফুটবলের ভক্ত। ক্রিকেটটা প্যাশনের জায়গা থেকে ফলো করি বলে ফুটবল নিয়ে তেমন কথা বলা হয় না। কিন্তু ফুটবলে একটা আলাদা টান সবসময়ই অনুভব করি, বিশেষ করে ভালো ফুটবলের।

এক দিন আগে পর্তুগাল-স্পেনের ম্যাচটা চরম উচ্ছ্বাসে উপভোগ করছি, সিআরসেভেনের সেই ফ্রি-কিকটা এখনো চোখে লেগে আছে। আজ ব্রাজিলের ম্যাচটাও সমান আগ্রহে ফলো করবো, নেইমারের পায়ের জাদু দেখার অপেক্ষায় থাকবো। এবং নেইমার ভালো খেললে উচ্ছ্বসিত হয়ে স্ট্যাটাস দেবো, অভিনন্দন জানাবো ব্রাজিলকে। অর্থাৎ আমি মেসিভক্ত হলেও আমার অন্য ফুটবলার বা দল নিয়ে অসুস্থ চুলকানি নেই, তারা খারাপ খেললে কিংবা ভালো পারফর্ম করতে না পারলে মেসির সাফল্য তুলে এনে তুলনা করে খোঁচাখুঁচি করার সস্তা হিটসিকিং করতে পারিনি।

কিন্তু সমস্যা হচ্ছে এই মুহুর্তে ফেসবুক জুড়ে আমার চেনা-পরিচিত কিংবা অপরিচিত অসংখ্য মানুষ অসুস্থ আর উৎকট উল্লাস করছে। কারণ, মেসি প্রত্যাাশিত পারফর্ম করতে পারেনি, আইসল্যান্ড অসামান্য ডিফেন্সের দেওয়াল তুলে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই আর্জেন্টিনাকে ১-১ গোলে রুখে দিয়েছে! আর্জেন্টিনা গত ৩২ বছর শিরোপা জিততে পারেনি, গতবার ফাইনালে জার্মানীর কাছে হেরে গেছে, মেসি এরপর অবসর নিয়ে ফেলেও আবার ফিরে এসেছে, মেসি ছোটবেলায় দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত ছিল, ম্যারাডোনা ড্রাগ নিতো, ম্যারাডোনা হাত দিয়ে গোল করেছে, এগুলো কোনটাই মিথ্যা না। এগুলো নিয়ে যার যার মত দেওয়া, সমালোচনা করার অধিকার সবারই আছে। কিন্তু সমস্যাটা হয় তখন যখন এই বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা নোংরামিতে চলে যায়, সমালোচনা পরিণত হয় গালাগালিতে, আর কারণে-অকারণে যেখানে সেখানে এই বিষয়গুলোকে তুলে এনে টিটকারী আর পরিহাস করাকে অনেকেই ফুটবলপ্রেমী হবার প্রাথমিক শর্ত মনে করেন।

এদের কাছে মেসি-রোনালদোকে নিয়ে চুলকানো, তাদের নাম বিকৃত করে ছাগলামি করা, ঘৃণা ছড়ানো হচ্ছে বিনোদনের সংজ্ঞা। এরা অনেকেই নিজেকে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলভক্ত হিসেবে পরিচয় দেয়, এরা অনেকেই নিজেকে মেসি-রোনালদোর ভক্ত হিসেবে পরিচয় দেয়। অথচ স্বয়ং ব্রাজিলের জনগণই কখনো আর্জেন্টিনার ফুটবলারদের এতটা ঘৃণা করার কথা কল্পনাও করতে পারে না, তাদের নিয়ে এমন গালাগালি আর নোংরামি তো বহু দূরে থাক! এরা কখনো এক সেকেন্ডের জন্যও বুঝতে চেষ্টা করেনি যে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো তার বিরুদ্ধে সকল সমালোচনা আর ট্রলের জবাব দিয়েছেন মাঠে, পারফর্ম করে, তাদের মত মেসিকে গালাগালি আর নোংরামি করে না।

হ্যাঁ, আর্জেন্টিনাকে সাপোর্ট করে বলে দাবি করা এমন অনেকেই আছে, যারা কারণে-অকারণে রোনালদোকে নিয়ে নোংরামি করে, নেইমারকে নিয়ে, ব্রাজিলকে নিয়ে হাসাহাসি করে। এদের বেশিরভাগই মৌসুমী ফুটবলদ, প্রতি চার বছর পর পর এরা ফুটবল দেখে, অতিরিক্ত আবেগে এরা ভুলে যায় যে ব্রাজিলের ফুটবলাররা তাদের মত আজাইরা ট্রল করে কাপ জেতেনি, মাঠে খেলে পারফর্ম করেই জিতেছে। আজকের এই রোনালদো পর পর চার বিশ্বকাপে গোলদাতা হবার রেকর্ড গড়তে কল্পনাতীত পরিশ্রম করেছেন, নিজেকে ভেঙ্গে-চুরে গড়েছেন অসামান্য চেষ্টায়। এদের কাছে ফুটবলের উত্তেজনাকর অসামান্য মুহুর্তগুলোর কোন মুল্য নেই, এরা প্রাপ্য প্রশংসা কিংবা সম্মান দিতে জানে না, ফুটবলের স্বাদ আস্বাদনের ক্ষমতা এদের নেই। বরং এরা নিজেদের আর্জেন্টিনা বা মেসির ভক্ত হিসেবে দাবী করে স্রেফ অন্য ফুটবলার বা দলকে নিয়ে নোংরামি করার বা ছাগলের মত ট্রল করার লাইসেন্স পাওয়ার জন্য। এদের সাথে মেসিকে গালি দেওয়া আর্জেন্টিনাকে নিয়ে নোংরামি করা আর চুলকানো লুজারদের কোন পার্থক্য নাই। এরা স্রেফ মুদ্রার অপর পিঠ!

আমি আসলে হতাশ। গত দুই মাস ধরে হোমফিডে ফুটবল উত্তেজনার এইসব প্যাথেটিক বুলি আর ব্রেইনলেস ষ্টুপিডদের যে অসহ্য নোংরা ট্রল/গালাগালি/টিটকারি/পরিহাস আর নোংরামি দেখছি, এটাই যদি ফুটবল উপভোগের উপায় হয়ে থাকে, তাহলে আমি ট্রেন্ডের সাথে তাল মেলানো কুউউল ড্যুড হতে পারলাম না বলে দুঃখিত। একটা দলের সমর্থকেরা যদি আরেক দলের সমর্থকদের সাথে রংবাজ হয়ে গালাগালি আর নোংরামিতে নামে, নিজেদের আরো নীচে নিয়ে যায়, একজন সুপারস্টারের ভক্ত হিসেবে রাইভাল সুপারস্টারকে নিয়ে নেড়ি কুকুরের মত ঘেউ ঘেউ করাটা ফুটবল উপভোগ বলে মনে করে, তাহলে এর চেয়ে বড় লজ্জার আর কিছু হতে পারে না।

ফুটবল মাঠে আমাদের দৌড় নিয়ে লজ্জায় হয়তো কিছু বলতে পারব না, কিন্তু জাতি হিসেবে আমাদের নোংরামির সীমানা আরও কতদূর বিস্তৃত হলে আমাদের বোধোদয় হবে? অন্য একটা দলের সমর্থক পরিচয় দেওয়া কিছু ফুটবলদদের নোংরামির জবাব দিতে তার চেয়েও নোংরামি করা, তার চেয়েও জঘন্য স্তরে নামা কিভাবে সমাধান হতে পারে? একজন আর্জেন্টিনা ফ্যান তো কখনো ব্রাজিলকে বা ব্রাজিল ফ্যান আর্জেন্টিনাকে এইভাবে হেয় করে না, এইভাবে টিটকারী দেয় না। তাহলে আপনি কে ঘৃণা করার, টিটকারি দেওয়ার? একবারও কি কেউ টের পাচ্ছেন না যে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা, মেসি-রোনালদোর দিকে হাস্যকর টিটকারিবাজীর আর নোংরামির আঙ্গুল তুলে আসলে আমরা আমাদেরই জামা-কাপড় খুলে নিচ্ছি? জাতি হিসেবে আমরা যে কতটা নির্লজ্জ আর নোংরা, সেটাই আঙ্গুল তুলে দেখাচ্ছি আর হাহা হিহি করছি? একবারও কি মনে হয় না?

Comments
Tags
Show More

Related Articles

Close