শরীরটা মানুষের মত হলেও ছোটবেলা থেকে বট গাছ হবার স্বপ্ন দেখত বাংলাদেশের গর্ব ‘বৃক্ষ মানব’ আবুল বাজানদার। স্রষ্টা অবশ্য তার মনোবাসনা অপূর্ণ রাখেননি। নিয়মিত ধ্যান চর্চার মাধ্যমে যুবক বয়সেই বাজানদারের হাত পা থেকে বটবৃক্ষের মত ডালপালা গজাতে থাকে। বাজানদারও ঘর সংসার ত্যাগ করে দিবানিশি ধ্যানমগ্ন থাকতো পুরোপুরি গাছ হয়ে যাবার আশায়। তার শরীরের সব চর্বি ঝরে গিয়ে চামড়াটাও গাছের বাকলের মতই রুক্ষ হয়ে যাচ্ছিল।

মাঝখান থেকে বাঁধ সাঁধল এদেশের কসাই খ্যাত ডাক্তার প্রজাতি। সেই সাথে তাল মেলালো কিছু আতেল সাংবাদিক এবং মানবাধিকার কর্মি। তারা সবাই মিলে অর্ধবৃক্ষ বাজানদারকে ধরে বেঁধে বন থেকে সভ্য সমাজে নিয়ে আসলো। বউ বাচ্চাসহ ভর্তি করে দিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। গবেষণার নামে লাখ লাখ টাকা খরচ করে অসংখ্যবার তার শরীরে চুরি চালিয়ে গেল প্লাস্টিক সার্জন নামক কুখ্যাত কসাই গোষ্ঠী। দুই বছরে ২৫ বার অপারেশন করে তার ৪ হাত পায়ে গজিয়ে ওঠা সতেজ ডালপালাগুলোর অধিকাংশই ছেটে ফেলল। শুধু তাই না, বাজানদারের বৃক্ষে পরিনত হওয়া ঠেকাতে তারা তাকে বউ বাচ্চাসহ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে বন্দি করে রাখল। মোটা চালের ভাত খেলে পাকস্থলীতে শেকড় গজাবে, এই ভয়ে কসাই সরদার নিজের পকেটের টাকা দিয়ে তাকে চিকন চালের ভাত খাওয়ানো শুরু করল। বনে থাকলে অন্যান্য বৃক্ষদের সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পরবে, এই ভয়ে ৬ লাখ টাকা দিয়ে দালান তুলে দেয় সে। বনের সবুজ বৃক্ষরাজির ডাকে বাজানদার পালিয়ে যেতে পারে, এই আশংকায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চাকরি দেয়ার মূলাও ঝুলানো হয় কসাইদের পক্ষ থেকে।

ছবি দেখলেই আন্দাজ করা যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তাররা কতটা নির্দয়ভাবে প্রায় বটবৃক্ষে পরিনত হয়ে যাওয়া বাজারদারকে রীতিমত একটা নাদুসনুদুস মানুষ বানিয়ে ফেলেছিল। তারা এই বলেও হুমকি দেয়, “তোমাকে এই হাসপাতালেই থাকতে হবে, হাতে পায়ের যে কোন অংশে ডালপালা গজানোর সাথে সাথে সেগুলো কেটে ফেলা হবে, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ।” কি ভয়ংকর!

এইমাত্র খবর পেলাম কসাই খ্যাত ডাক্তারদের সব চক্রান্ত নস্যাৎ করে সুন্দরবনে পাড়ি জমিয়েছে আবুল বাজানদার। তার বটবৃক্ষ হয়ে ওঠার সুতীব্র বাসনার কাছে হার মেনেছে প্রকৃতির প্রতি বরাবরই নিষ্ঠুর মানব জাতির সব ধরনের অশুভ পরিকল্পনা। বাজানদারের হাত পা থেকে আবারও ডালপালা গজিয়ে উঠতে শুরু করেছে। স্বপ্ন দেখি, বাজানদার একদিন সত্যিই সম্পূর্ণরুপে এক বিশাল বটগাছ হবে। তার বউ বাচ্চা সেই গাছের ডালে পা ঝুলিয়ে বসে এই দেশের কসাইদের গুষ্টি উদ্ধার করবে। বৃক্ষ মানব থেকে মানববৃক্ষে পরিনত হবে আমাদের আবুল বাজানদার।


এগিয়ে চলোর এই ১০০% কটন, ১৬০ জিএসএমের প্রোডাক্ট পেতে কল করুন এই নাম্বারে- 01670493495 অথবা নিজেই অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করে ফেসেবুকে ম্যাসেজ করুন।

Comments
Spread the love