“আমরা ক্রিকেটকে বলি ভদ্রলোকের খেলা। আমাকে তাই সৎ থাকতেই হবে। আমার দল যদি হারার অবস্থানে থাকত, তাহলেও আমি একই কাজ করতাম।” – রান আউট হওয়া কেভন কুপারকে আবার ব্যাটিংয়ের সুযোগ দেওয়া নিয়ে তামিম ইকবাল।

যে অসাধারণ স্পোর্টসম্যানশীপ দেখিয়েছেন, তাতে প্রশংসার বৃষ্টিতে সিক্ত হতেই পারেন। ম্যাচ শেষে যেটি বললেন, আমরা বিশ্বাস করি, সেটিও মেকি নয়। তিনি মন থেকেই বলেছেন এবং সত্যিই করতেন। আশা করি আইসিসি স্পিরিট অব ক্রিকেট অ্যাওয়ার্ডের বিবেচনায় তার এই দৃষ্টান্ত থাকবে…

তামিম ইকবাল যা করেছেন, তাতে অবাক হইনি। অবাক হলাম কেভন কুপারকে দেখে। তামিম তাকে ফেরাতে চাচ্ছিলেন শুরু থেকেই, কিন্তু তিনি ফিরতেই চাচ্ছিলেন না! ব্রাভোর সঙ্গে ধাক্কা লাগার পর আর দৌড়ানোর চেষ্টাই করেননি কুপার। সেটিও ছিল খানিকটা বিস্ময়কর। কারণ ধাক্কা তার ক্ষেত্রে খুব গুরুতর মনে হয়নি, তিনি পড়েও যাননি। বলও ছিল উইকেটের পেছনে। রান নিতে পারা বা না পারা পরে, কুপার চেষ্টাই করলেন না দৌড়ানোর!

এরপর যখন ফিরছেন, তামিম ছুটে গেছেন প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই। তার কথা অবশ্যই শোনার উপায় ছিল না। তবে শরীরী ভাষা দেখে মনে হচ্ছিলো, ফিরতেই বলছেন। এবং বলে চলেছেন। বার বার বলেছেন। কুপারকে দেখে মনে হচ্ছিলো, ফিরতে রাজী ছিলেন না। তামিম শেষ পর্যন্ত মাথা নেড়ে সায় দিয়ে ফিরে গেলেন।

কুপারকে দাঁড় করালেন মাঠের বাইরে থাকা তার দলের অন্যরা। হয়ত তারাও অবাক হয়েছিলেন,ফেরার সুযোগ পেয়ে কেন ফিরছেন না! তাকে থামানো হলো। আবারও তামিম সুযোগটি দিলেন। কুপার ফিরলেন…

আমি ভুলও হতে পারি। তবে বাইরে থেকে দেখে এমনটিই মনে হচ্ছিলো যে শুরুতে কুপার ফিরতে চাচ্ছিলেন না। তিনি আসলে কি চাচ্ছিলেন?

আরিফুল ইসলাম রনির ফেসবুক ওয়াল থেকে
সিনিয়র ক্রিকেট করেসপন্ডেন্ট, বিডিনিউজ২৪.কম

Do you like this post?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-