টিজার-ট্রেলার দুটোতেই আসন্ন ঝড়ের বার্তা। বলিউডের জমিনে নতুন জ্বরের কাঁপুনি, সেই জ্বরের নাম সাঞ্জু। সঞ্জয় দত্তের জীবনী নিয়ে সিনেমা বানিয়েছেন রাজকুমার হিরানী, আর সেখানে সঞ্জয় দত্তের চরিত্রে অভিনয় করেছেন রনবীর কাপুর। সঞ্জয়কে কতটা ফুটিয়ে তুলতে পেরেছেন, সাঞ্জু চরিত্রের ভেতরে তিনি কতটা ঢুকে যেতে পেরেছেন, সেটা দর্শক ইতিমধ্যে দেখে ফেলেছে। বলিউডে নিকট অতীতে কোন সিনেমার টিজার বা ট্রেলার নিয়ে বোধহয় এমন সাড়া পড়েনি, যতটা সাড়া ফেলেছে ‘সাঞ্জু’।

এ মাসের ২৯ তারিখে সিনেমা হলে মুক্তি পাবে সাঞ্জু। দর্শকের আগ্রহ দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। পর্দায় সঞ্জয়ের জীবনের সেইসব উত্থান-পতনের গল্পগুলো দেখার জন্যে উন্মুখ হয়ে আছেন সবাই। সঞ্জয়ের চরিত্রে রনবীরের অভিনয়ের প্রশংসায় পঞ্চমুখ পুরো বলিউড। এমনকি রনবীরের বাবা ঋষি কাপুর পর্যন্ত আবেগাপ্লুত হয়েছেন ট্রেলার দেখে, এটা একটা বিরল ঘটনা বৈকী!

বিরল ঘটনা আরও আছে। বলিউডের জীবিত অভিনেতাকে নিয়ে বায়োপিক আগে কখনও নির্মিত হয়নি। সঞ্জয় দত্ত এখনও চুটিয়ে অভিনয় করছেন, প্রতি বছরই সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে তার। আর এখন কিনা তার জীবনের গল্পেই সিনেমা বানানো হয়েছে! এমন ভাগ্য আর কোন বলিউডি অভিনেতার হয়নি! অবশ্য সঞ্জয়ের যে ব্যতিক্রমী জীবন, সেটা সিনেমার স্ক্রিপ্টে ঠাঁই না পেলেই বরং বেমানান লাগে! অবশ্য সঞ্জয় দত্তের নিজেরই বিশ্বাস হচ্ছে না যে তার জীবনী নিয়ে কেউ সিনেমা বানাচ্ছে!

তারকায় ঠাসা সিনেমা হতে যাচ্ছে সাঞ্জু। সবটুকু আলো অবশ্যই রনবীরের ওপর থাকবে, কিন্ত বাদ যাবেন না অন্যরাও। আনুশকা শর্মা-দিয়া মির্জা-সোনম কাপুরের মতো তারকা অভিনেত্রীরা অভিনয় করেছেন সাঞ্জু’তে, মাধুরী দীক্ষিতের চরিত্রে অভিনয় করেছেন টিভি সিরিয়ালের জনপ্রিয় মুখ কারিশমা তান্না। যদিও তাকে ট্রেলার বা টিজারে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তার চরিত্রটি শেষ পর্যন্ত গোপন রাখতে চাইছেন পরিচালক। সঞ্জয়ের বাবা সুনীল দত্তের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন পরেশ রাওয়াল, আর মা নার্গিসের চরিত্রে আছেন মনীষা কৈরালা।

টাবু অভিনয় করেছেন মাত্র ত্রিশ সেকেন্ডের একটা রোলে। ফিল্মফেয়ারে সেরা অভিনেতার পুরস্কারটা সঞ্জয় দত্ত টাবুর হাত থেকেই নিয়েছিলেন। সেই দৃশ্যটাতেই নিজের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন টাবু। এই ত্রিশ সেকেন্ডের জন্যে তিনি পারিশ্রমিক হিসেবে পেয়েছেন ষাট লক্ষ রুপি! মনীষা কৈরালার পারিশ্রমিক ছিল তিন কোটি রূপি। সুনীল দত্তের চরিত্রে অভিনয় করা পরেশ রাওয়ালও একই অঙ্কের পারিশ্রমিক পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

দিয়া মির্জা অভিনয় করেছেন সঞ্জয় দত্তের স্ত্রী মান্যতার চরিত্রে। সোনম কাপুরের চরিত্রটা সঞ্জয়ের প্রথম স্ত্রী টিনা মুনিমের চরিত্রে। দুজনেই তিন কোটি রুপি পারিশ্রমিক পেয়েছেন বলে খবর। কারিশমা তান্না পেয়েছেন এক কোটি রূপি। তার চরিত্রটার ব্যাপ্তি পুরো সিনেমাতে দশ-বারো মিনিটের বেশী নয়। আর যাকে নিয়ে এত আলোচনা, যিনি সঞ্জয়ের চরিত্রটাকে নিখুঁত করে পর্দায় ফুটিয়ে তুলেছেন, সেই রনবীরের পারিশ্রমিকটা কতো? সাঞ্জু’তে অভিনয় করে রনবীর পেয়েছেন পঁচিশ কোটি রুপি, যেটা এখনও পর্যন্ত তার অভিনয়জীবনের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক!

নিজের ক্যারিয়ারের বেশীরভাগ সময়েই সঞ্জয় দত্ত ছিলেন বলিউডের ব্যাডবয়। সেই ইমেজটা আয়ত্ব করার জন্যে প্রচুর খাটতে হয়েছে রনবীরকে। সঞ্জয়ের সঙ্গে বারবার দেখা করেছেন তিনি, সঞ্জয় দত্তের প্রায় প্রতিটা সিনেমা খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখেছেন, কিভাবে তিনি হাঁটতেন, কিভাবে হাত নাড়তেন, কথা বলার সময় মুখের ভঙ্গিমা কেমন হতো, হাসি বা কান্নার সময় অভিব্যক্তিগুলো কেমন ছিল- এসব আয়ত্ব করেছেন একদম নির্ভুলভাবে। সেই পরিশ্রম আর নিবেদনের খানিকটা নমুনা ট্রেলার-টিজারে দেখা গেছে। অথচ এই রনবীরকেই একটা সময়ে মদ্যপ অবস্থায় সঞ্জয় বলেছিলেন, তার বায়োপিকে অভিনয় করতে হলে পুরুষ হতে হবে, তার চোখে রনবীর ছিলেন শিশু! এখন রনবীরের দুর্দান্ত অভিনয় নিশ্চয়ই সঞ্জয়ের সেই ধারণাটা ভেঙে চুরমার করে দিয়েছে।

সিনেমার নাম কি রাখা হবে, সেটা নিয়ে প্রচুর ভেবেছে সবাই। শুরুতে ‘দত্ত’ নামটাই সবচেয়ে বেশী শোনা গেছে। সিনেমার নাম ‘সাঞ্জু বাবা’ রাখা হতে পারে, এমন গুজবও রটেছিল। তবে শেষমেশ ‘সাঞ্জু’তেই তরী ভিড়িয়েছেন রাজকুমার হিরানী। আদর করে এই নামে সঞ্জয় দত্তকে ডাকতেন তার মা নার্গিস। সেই নামটা থেকে সিনেমার নাম হয়েছে সাঞ্জু।

সঞ্জয় দত্তের জীবনের হাজারটা উত্থান আর পতনের গল্প নিয়ে সাজানো সাঞ্জু। সেখানে মাদকের ভয়াল থাবা আছে, আছে সেই থাবাকে হারিয়ে ফেরাটাও। অস্ত্র-বোমা-মাফিয়া বা আন্ডারওয়ার্ল্ড যেমন আছে, তেমনই আছে জেলখানায় নিজেকে পরিশুদ্ধ মানুষ বানানোর মিশনে নামা একজন অন্যরকম সঞ্জয় দত্তের উপস্থিতিও, যিনি দ্বিধাহীন গলায় নিজেকে মদ্যপ আর লম্পট ঘোষণা করতে পারেন, সেইসঙ্গে এটাও জানিয়ে দেন যে তিনি সন্ত্রাসবাদী নন। এমন সিনেমার জন্যে অপেক্ষাটাও ভীষণ মধুর হয়!

তথ্যসূত্র- টাইমস অফ ইন্ডিয়া, জি নিউজ।

*

এগিয়ে চলোর এই ১০০% কটন, ১৬০ জিএসএমের প্রোডাক্ট পেতে কল করুন এই নাম্বারে- 01670493495 অথবা নিজেই অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করে ফেসেবুকে ম্যাসেজ করুন।

Comments
Spread the love