পোড়ামন ২ সিনেমার পোস্টার রিলিজের পরই সেটা সাড়া ফেলে দিয়েছে। ফেসবুকে হাজার হাজার লাইক,শেয়ার,কমেন্ট। আবার এরই মাঝে কিছু মানুষের অভিযোগ, এই সিনেমার পোস্টার নকল। তারা শুধু নকল বলেই ক্ষান্ত থাকেন নি, প্রমাণ স্বরূপ হাজির করেছেন বিভিন্ন বাইরের দেশের সিনেমার পোস্টার। তাদের সেই অভিযোগের ভিত্তিতে কিছু বলার জন্যই এই লেখা।

সবার আগে যে জিনিসটি ক্লিয়ার করে নিতে চাই, সেটি হল- পোড়ামন ২ সম্পূর্ণ মৌলিক গল্পে নির্মিত সিনেমা। এটি একটি গ্রামীণ প্রামকাহিনী। কাহিনীর প্রেক্ষাপট ১৯৯৫ সাল। এবার আসি বাকি কথায়। হোমল্যান্ড সিরিজের যে পোস্টারের সাথে পোড়ামনের পোস্টারের নকলের খুঁজে পাওয়া গেছে, সেই পোস্টার ছাড়াও হোমল্যান্ড সিরিজের আরও পোস্টার আছে। কিন্তু এই পোস্টারটি স্পেশাল কারণ যারা হোমল্যান্ড সিরিজ দেখেছেন তারা জানেন, যখন হোমল্যান্ড সিরিজে আইএস এর কাহিনী প্রবেশ করল, তখন সেই সিজনের পোস্টার এরকম করা হল। পোড়ামনে কিন্তু আইএস নিয়ে কোন কাহিনী নাই! ১৯৯৫ সালে আইএস থাকলে কেমন হতো, সেটাও একটা চিন্তার ব্যাপার!

At five in the afternoon সিনেমাতে একজন নারীর কাহিনী দেখানো হয়েছে যিনি আফগানিস্থান সমাজের নানা বিধিনিষেধ পেরিয়ে নিজের অস্তিত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করেন। এটার সাথেও পোড়ামন ২ মিলছে না।

Women Without Men নামের পলিটিকাল ড্রামা (জনরাতেই সিনেমাটা পোড়ামন ২ থেকে আলাদা!) সিনেমাতে চারজন নারীর কাহিনী বর্ণিত আছে ইরানের অস্থির অবস্থায়। সেখানে কোন পুরুষের কাহিনী নাই। পোড়ামন ২ তে সিয়াম নামের একজন পুরুষ আছেন যিনি সিনেমার নায়ক!

ওসামা নামের সিনেমাতে একজন মা আর তার মেয়ে যখন কাজ করতে পারেন না, তখন সেই মা তার মেয়েকে ছেলে সাজিয়ে কাজে পাঠান আর সেটা নিয়েই এই সিনেমার কাহিনী। দেখা যাচ্ছে এটার সাথেও পোড়ামন ২ সিনেমার মিল নাই।

আপনার পাশে বোরখা পরা নারী থাকলেই সেই সিনেমার পোস্টার নকল, এটা বললে কি জিনিসটা বেশি বাড়াবাড়ি হয়ে যায় না? সর্বোচ্চ আপনি বলতে পারেন, কনসেপ্ট এ মিল আছে, কিন্তু তাই বলে নকল? এটা যদি নকল হয়, তাহলে কয়েকবছর আগেও যে আমাদের দেশে গলাকাটা পোস্টার রিলিজ দেয়া হতো, শহীদ কাপুরের মাথায় শাকিব খানের পোস্টার চলে যেত, সেগুলো কি তাহলে? এরকম করলে তো আর পোস্টারই করা যাবে কোন কিছুই নিয়ে কারণ কিছু না কিছুর সাথে মিলে গেলেই সেটাকে নকল বলে দেয়া হবে!

ওসামা আর At five in the afternoon নামের দুটো সিনেমাই ২০০৩ সালে মুক্তি পায় কিন্তু এই দুই সিনেমার পরিচালক কেউ কাউকে বলেন না- আপনি আমার সিনেমার পোস্টার নকল করেছেন, দুই দেশের দর্শকেরাও কিন্তু বলেন নাই! Women Without Men ২০০৯ সালে রিলিজ পায়। সেটার ডিরেক্টরকেও কিন্তু কেউ বলে নাই- আপনি কেন ২০০৩ এর দুইটা সিনেমার পোস্টার থেকে নিজের সিনেমার পোস্টার মেরে দিলেন?

আমাদের দেশে এমনিতেই ভালো কাজের পরিমাণ কম হচ্ছে, কিছু মানুষ নিরন্তর চেষ্টা করে যাচ্ছেন বাংলা সিনেমার জন্য কিছু করার। একটা সময় এত বেশি গারবেজ আমরা বানিয়েছি যে আমার মনে হয়, এখন আমরা যে আসলেই ভালো কিছু করতে পারি, এই বিশ্বাসটাই আমাদের চলে গেছে। একটা হীনমন্যতাবোধ আমাদেরকে আচ্ছন্ন করে রেখেছে “এরকম পোস্টার বাংলাদেশে? আরে নাহ, সম্ভব না, নিশ্চয় নকল!” আর সেটা প্রমাণের জন্য অনেকটাই জোর করে নকল বলার চেষ্টা।

পোড়ামন ২ একটি সিকুয়েল সিনেমা, ২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়া পোড়ামন সিনেমার। রায়হান রাফির প্রথম সিনেমা। জাজ এই সিনেমার দায়িত্বে আছে, যাকে আমরা সারাক্ষণ গালি দিতে থাকে নকল সিনেমা আর যৌথ প্রযোজনার সিনেমার জন্য। সেই জাজ যখন একটি নতুন ছেলের উপরে ভরসা করে, প্রায় নতুন দুইজন মুখকে কেন্দ্রীয় চরিত্র করে সিনেমা করতে যাচ্ছে, তখন যদি আমরা এমন শুরু করি, সেটা কি ভালো আমাদের জন্য? তাও সিনেমার গান, ট্রেলার কিছু রিলিজের আগেই?

শেষ করছি চমৎকার একটি তথ্য দিয়ে। ১৯৯৫ সালের কাহিনী পর্দায় তুলে আনার এত সোজা না। সেই সময়কার একটি বাস দরকার ছিল এই সিনেমার ডিরেক্টরের। সাড়া দেশ খুঁজেও পাওয়া যাচ্ছিল না এরকম বাস। এরপরে কুষ্টিয়াতে এক পিস বাস পাওয়া যায় যেটি একদম নষ্ট। সেই নষ্ট বাসে নতুন ইঞ্জিন লাগিয়ে সেটিকে নতুন করে রং করে এরপরে শুটিং করা হয়েছে। এরকম ডেডিকেশন যে মানুষটি তার প্রথম সিনেমাতে দেখাচ্ছেন, সেই রায়হান রাফিকে তার প্রথম সিনেমার জন্য একটু ইন্সপায়ার করলে কি খুব বেশি ক্ষতি হয়ে যাবে?

সিনেমাটা বের হোক আগে, এরপরে নাহয় যা বলার বলি।

Do you like this post?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-