মেক্সিকোর ওক্যাম্পো শহরের পুরো পুলিশ বাহিনীকেই একটা মামলায় বাধা দেবার অপরাধে নিরস্ত্র করে গ্রেফতার করা হয়েছে। সামনে নির্বাচনকে সামনে রেখে মেয়র পদপ্রার্থীর খুনের ঘটনা এবং সে ঘটনায় অপরাধীকে গ্রেফতারে বাধা দেবার জের ধরে সেখানকার গোটা পুলিশবাহিনীকেই বন্দী করা হয়েছে।

মেয়র পদপ্রার্থী ফার্নান্দো অ্যাঞ্জালেস ওয়ারেসকে খুন করা হয় গত বৃহস্পতিবার সকালে। তার বাড়ির বেড়া ভেঙে তিনজন বন্দুকধারী বাড়িতে ঢুকে অপ্রস্তুত অ্যাঞ্জালেস ওয়ারেসকে গুলি করে হত্যা করে।

গত সেপ্টেম্বর থেকে শুরু করে মেক্সিকোতে ১২০ জন রাজনীতিবিদকে হত্যা করা হয়েছে। ১লা জুলাই মেক্সিকোর সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে ভোটাররা তিন হাজার সরকারি কর্মকর্তা, আইনপ্রণেতা এবং প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করবে। এ নির্বাচনকে ঘিরেই সেদেশে শুরু হয়েছে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা।

মেক্সিকো, পুলিশ গ্রেফতার, মিকোঅ্যাক্যানের স্পেশাল ফোর্স

এক সপ্তাহের মধ্যে মেক্সিকোর মিকোঅ্যাক্যান অঙ্গরাজ্যে রাজনীতিবিদ হত্যার তৃতীয় ঘটনা এটি। এ ঘটনার পর সেই অঙ্গরাজ্যের স্পেশাল ফোর্স আরেস্ট ওয়ারেন্ট সাথে নিয়ে ওকাম্পো শহরে যায় সেখানকার  পাবলিক সিকিউরিটি সেক্রেটারি অস্কার গঞ্জালেসকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গ্রেফতার করতে। কিন্তু তারা সেখানে গেলে সেখানকার স্থানীয় পুলিশরা তাদের এ কাজে বাধা প্রয়োগ করে। ফলে তাদের ফিরে আসতে হয় অপরাধীকে না নিয়েই।

এরই জের ধরে মিকোঅ্যাক্যানের স্পেশাল ফোর্স দ্বিতীয়বারের মত অপারেশন পরিচালনা করে ওকাম্পো শহরে। এবার তার একা অস্কার গঞ্জালেস নয়, তার সাথে ওকাম্পো মিউনিসিপালিটির ২৭ জন পুলিশ অফিসারের সবাইকে একসাথে গ্রেফতার করে।

এই গ্রেফতারের ঘটনা ঘটার পরপরই তা মিডিয়ায় তুমুল আলোচনার সৃষ্টি করে। মিডিয়ায় প্রচারিত ছবিতে দেখা যায়. পুলিশ অফিসারদের হাত পেছন দিকে হ্যান্ডকাফ দিয়ে বাধা রয়েছে এবং সবাই মাথা নিচু করে মাটির দিকে তাকিয়ে রয়েছে। তাদেরকে গ্রেফতার করে মিকোঅ্যাক্যান অঙ্গরাজ্যের রাজধানী মোরেলিয়ায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নেওয়া হয়েছে।

শুধু এই ঘটনার জন্যই নয়, মেক্সিকোর পুলিশ আরো অনেক অন্যায়ের সাথে জড়িত থাকার অপরাধে ব্যাপকভাবে সমালোচিত। যদিও ফার্নান্দো অ্যাঞ্জালেস ওয়ারেসের খুনের সাথে পুলিশের কোন যোগসূত্র এখনও পাওয়া যায়নি, তবু অপরাধীকে গ্রেফতারে বাধা দিয়ে তারা আরও একটি অপরাধ করেছে। তাছাড়া, সে এলাকায় মাদক চোরাচালানের ঘটনার সাথেও সেখানকার পুলিশের নাম জড়িত রয়েছে। নানা ধরণের অপরাধ সংঘটনের সাথে পুলিশের জড়িত থাকার ঘটনা মেক্সিকোতে মহামারী আকার ধারণ করেছে।

মেক্সিকো, পুলিশ গ্রেফতার, মিকোঅ্যাক্যানের স্পেশাল ফোর্স

দুর্নীতি এবং নিরাপত্তা মেক্সিকোর আসন্ন নির্বাচনের মূল ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেখানকার বামপন্থী প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী আন্দ্রেজ ম্যানুয়েল লোপেজ অব্রেডরকে সম্ভাব্য প্রেসিডেন্ট হিসেবে মনে করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মেক্সিকোর রাজনৈতিকদের ওপর আক্রমণই প্রমাণ করে সেখানকার অপরাধী চক্রের সাথে বর্তমান সরকারী অফিসারদের সূসম্পর্ক রয়েছে। তারা চায় না সরকার পরিবর্তিত হোক। তাই নির্বাচনে বিশৃঙ্খলা ঘটানোর জন্যই এ অবস্থার সৃষ্টি করা হয়েছে।

রাজনীতিবিদদের খুন করার কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, হয়তো তারা ঘুষ নিয়ে অপরাধীদের সাথ দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল, আর না হয় তারা প্রতিযোগী অপরাধী চক্রের সাথে বিবাদে জড়িয়েছিল। 

ঘটনা যাই হোক না কেন, একটি শহরের পুরো পুলিশ বাহিনীকে গ্রেফতারের ঘটনা কিন্তু বেশ অভিনব। এ ধরণের ঘটনা শুধু সিনেমাতেই ঘটে বলে আমার ধারণা ছিল। ভাবছিলাম, আমাদের দেশে যদি দুর্নীতিবাজ আর অপরাধ সংঘটনে সহায়ক পুলিশ অফিসারদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার শুরু হয়, তাহলেও বুঝি এমন, “ঠক বাছতে গাঁ উজার’এর মত ঘটনা ঘটবে।

Comments
Spread the love