rnyaরানু আর শানু দুই বোন। রানু হিজাব পরে, শানু পরে না। আপনি যেমন হুট করে রানুকে এসে বলবেন না, এই মেয়ে, মাথার কাপড়টা সরাও, তোমার চুল দেখবো; তেমন আপনি শানু’কেও এসে বলবেন না, এই মেয়ে, তুমি তো স্লিভলেস পরেছো, পুরো হাতটাই যখন দেখতে পাচ্ছি, তখন বুকটাও দেখতে সমস্যা কোথায়? – জামাটা খুলে ফেলো।

পৃথিবীর কোন সভ্য মানুষ দুটোর একটাও করবে না। কিছু জিনিস আমাদেরকে কেউ বলে দেয় না, আমরা বুঝে নেই – বা বুঝে নিতে হয়, সীমারেখাগুলো শিখে নিতে হয়। যদি না শিখি তো সেটা আমাদের দোষ, অপরাধ আর সীমাবদ্ধতা, – অপরপক্ষের নয়।

আমি কিছু উদাহরণ দেই। বিপাশা বসু; বিভিন্নরকমের পোশাক পরেন। আপনার রুচির সাথে নাও মিলতে পারে, কিন্তু তাঁর যেমন পছন্দ, তিনি পরেন। বিভিন্ন পোশাকে বিভিন্ন সময়ে তিনি রূপালী পর্দাতেও এসেছেন। তিনি রূপালী পর্দায় যখন এসে নাচেন, আপনি চাইলে দুচোখ ভরে তাঁকে দেখতে পারেন, সে অনুমতি তিনি আপনাকে দিয়েছেন। কিন্তু মনে করুন, হঠাৎ রাস্তায় আপনার সাথে তাঁর দেখা হয়ে গেলো। আপনি চোখ দিয়ে তাঁকে হাঁ করে গিললে সেটা আপনার অসভ্যতা, সে অনুমতি আপনাকে তিনি দেননি। আর অবশ্যই তাঁকে অশ্লীলভাবে মোটেও ছুঁতে পারবেন না; – খুবই শোভনভাবে আপনি হাত মেলাতে চাইলেও আপনাকে ‘না’ বলার পূর্ণ অধিকার তাঁর আছে। তা নিয়ে আপনি বিরক্তি প্রকাশ করতে পারেন না, অধিকার ফলিয়ে তাঁর উপর চড়াও হতে পারেন না। আপনার অনুমতি’র সীমারেখাটি আপনি ক্রস করে ফেলবেন তাহলে।

(তাঁর ক্যারিয়ারের শুরু দিকে এমনটা হয়েছিলো তাঁর সাথে; ‘জিসম’ সিনেমাটিতে তিনি খোলামেলা দৃশ্যে অভিনয়ে করেছিলেন, তা মুক্তির পর কোথাও বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখানে একদল পুরুষ তাঁকে কদর্যভাবে ছুঁতে চাইলে তিনি আপত্তি করেন; – সেই দলটির মস্তিষ্কে এই আপত্তিটা কিছুতেই ঢোকেনি! “সিনেমায় খোলামেলা এই মেয়েকে তো আমরা যেভাবে ইচ্ছে সেভাবে ছুঁতেই পারি”, তেমনটা ছিল মনোভাব)।

প্লেবয় ম্যাগাজিন। আগে নারীদের নগ্ন ছবি ছাপাতো, এখন আর ছাপে না। মনে করুন পুরোনো একটি পত্রিকা হাতে নিলেন। যে মেয়েটির ছবি ছাপা হয়েছে, আপনার অনুমতি আছে সেই ছবিটি দেখার। তিনি সজ্ঞানে ছবিটা তুলেছেন, জানেন কিভাবে ব্যবহৃত হবে, কাজেই আপনি দেখলে তার অনুমতি-বিনা করেননি। কিন্তু একই মডেলকে রাস্তায় দেখলেন। পত্রিকায় দেখেছেন বলেই এখন তার কাছে গিয়ে একই রকম উপস্থিতি কামনা করলে আপনাকে পুলিশের হাতে ধরিয়ে দেয়ার পূর্ণ অধিকার তাঁর আছে। কারণ, আপনার অনুমতি ছিলো পত্রিকার গ্রাহক হিসেবে কেবলমাত্র পত্রিকায় ছাপা ছবিটি দেখবার জন্য, তাঁর প্রাইভেট ছবি দেখার জন্য না, তাঁকে পোশাক খুলতে বলার জন্য না। ‘সীমারেখা’ – আপনি ক্রস করে ফেললেন।

জেনিফার লরেন্স। অনেকেরই প্রিয় অভিনেত্রী। তাঁর কম্পিউটার হ্যাক হলো, গোপন কিছু ছবি ছড়িয়ে গেলো সর্বত্র। অনেকেই দেখলেন, নিন্দা করলেন অভিনেত্রীর, এমনকি নিন্দা করলেন হ্যাকারটারও। কিন্তু নিজের সাফাই গাইলেন, “অনলাইনে আছে যখন, সবাই দেখছে যখন, আমিও দেখতে পারি।” প্রিয় অভিনেত্রীকে কম্প্রোমাইজিং পজিশনে দেখে আপনি বিষণ্ণ, বিব্রত, বা বিরক্ত হলেন; কিন্তু আপনার তো এই অনুভূতিগুলো জন্মাবার কথা’ই না, কারণ আপনার তো এই ছবিগুলো দেখবার অনুমতিই নেই! তিনি ছবিগুলো যাঁর জন্য তুলেছিলেন, একমাত্র সেই মানুষটাকেই অনুমতি দিয়েছিলেন দেখার জন্য – আপনাকে আমাকে দিয়েছেন কি? না; কাজেই, আমরা যদি দেখি, তো সীমারেখা ক্রস করে ফেলেছি।

ছবি, ভিডিও, ইনবক্স স্ক্রিনশট, সবগুলোর জন্য এই নিয়ম প্রযোজ্য। আপনি আমার কোন কিছুই দেখতে পারেন না, যেটি দেখবার অনুমতি আপনাকে আমি দেইনি। সেটি সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে গেলেও না! আপনি আমার কাছে এমন কিছু চাইতে পারেন না, যেটি চাওয়ার অনুমতি আপনাকে আমি দেইনি। যদি তবুও দেখেন, যদি তবুও চান, যদি তবুও জোর করে ঝাঁপিয়ে পড়েন, তো অপরাধ আপনার। সীমাবদ্ধতা আপনার, অন্যায়টা আপনার। সীমারেখা লঙ্ঘনের ভারটি জেনিফার লরেন্স বা বিপাশা বসুর নয়, পুরোপুরি *আপনার*।

– শুরুতে রানু-শানুর কথা বলছিলাম। রানুকে হিজাব পরিয়েছি বলে কেবল মাথার কাপড় অনাবৃত করতে বলেছি, আর শানু পরেনি বলে আরেকটু স্থুলভাবে তার সীমারেখা লঙ্ঘনের কথাটি তুলেছি, সেটি কি আপনার চোখে পড়েছে বা দৃষ্টিকটু লেগেছে? জ্বী, আমারও। দুঃখজনক হচ্ছে, সীমারেখা-লঙ্ঘনকারীদের অনেকেরই মাথার মধ্যে একটি ইমেজ থাকে “একটা মেয়ের এই রকম হওয়া উচিত, ঐরকম নয়।” যে কোন পোশাকের মানুষই হেনস্থার শিকার হতে পারে সমাজে; কিন্তু এমন অনেক ‘ভদ্রমানুষ’ আছেন, আপনাদের রুচির সাথে মেলে এমন মেয়েকে ছেড়ে দেবেন, কিন্তু মূল্যবোধের সাথে না মিললে ধরেই নেবেন, এই মেয়েটির সাথে যা খুশি তাই করা যায়।

না, যায় না। আপনার মূল্যবোধের সাথে মিলিয়ে চলার দায় সেই মেয়েটির নেই, কখনোই ছিল না।
কিন্তু সেই মেয়েটির সাথে শালীন আচরণ করার দায়ভার সম্পূর্ণই আপনার, সীমারেখা ছাড়ালে অপরাধটাও …আপনারই!

আপনার কাছে কেমন লেগেছে এই ফিচারটি?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-

এই ক্যাটাগরির অন্যান্য লেখাগুলো