প্রকৃতির সবচেয়ে সুন্দর সম্পর্ক মা-সন্তান। প্রকৃতি নিজ হাতেই যেন তার সৃষ্টির অনবদ্য সকল রূপ ঢেলে সাজিয়েছে এই সম্পর্ককে। মা নামক সেই ক্যানভাসে আঁকা হয় হাজার কোটি ভালোবাসার ছবি, সেই খাতায় লেখা হয় অযুত নিযুত গল্প। সেই সুন্দরতম গল্প গুলোর একটি গল্প নিয়ে আজ লিখতে বসেছি। যেই গল্পের মূল রূপ ধরা পড়েছে সেলুলয়েডের পর্দায়। সেই ভালোবাসা ও স্বপ্নময় উপাখ্যান নিয়ে নির্মিত সিনেমা নিয়ে অল্প কিছু কথা সবার সাথে ভাগাভাগি করতেই এই আয়োজন। সিনেমা তো অনেক দেখি আমরা সবাই, কিন্তু কতগুলো সিনেমা দেখার পর নিরবে অশ্রুবিসর্জন দেয়ার সাথে সাথে, ঠোঁটের কোনে একটি মিষ্টি উপভোগ্য হাসির দেখা মেলে! যেটা হয় সন্তুষ্টির হাসি, কিছু পাওয়ার আনন্দের হাসি।

সিনেমার গল্পে শুরুতেই দেখতে পাই, মা চান্দা (সারা ভাস্কর) ও মেয়ে অপেক্ষা ওরফে আপ্পুর (রিয়া শুক্লা) সংসার। মা কাজ করেন সকাল থেকে রাত। খুব সকাল করে অন্যের বাড়িতে আয়ার কাজ করা হতে শুরু করে জুতা বানানোর দোকান, হলুদ মরিচ ভাংগানোর মিল, খাওয়ার হোটেল পর্যন্ত। মোদ্দাকথা, যতক্ষণ সময় মেলে, ঠিক ততক্ষনই চান্দার পরিশ্রম চলছেই। আর বাকি অল্প যতটুকু ফুসরত মেলে, সেটুকু মেয়ে আর সংসার সামাল দেয়া। অন্যদিকে মেয়ে ক্লাস টেনে উঠেছে মাত্র। অংকে দূর্বল মেয়ে, কীভাবে পাশ করবে, সেই চিন্তায় মায়ের ঘুম হারাম। কিন্তু আপ্পুর কোনো খেয়ালই নেই পড়াশোনায়। চান্দার অনেক বড় স্বপ্ন, মেয়েকে পড়াশোনা শিখিয়ে বড় কিছু বানাবে। সেজন্যই চান্দার দিনরাত হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম। আপ্পুর ক্লাসমেট থাকে একটা ছেলে, যাকে লিটল আইল্যান্ড নাম দেয় প্রিন্সিপাল। তার স্বপ্ন থাকে টুকটাক ইংরেজি শিখে মুম্বাই গিয়ে বাবার সাথে এসি ওয়ালা প্রাইভেট কারের ড্রাইভার হবে। ইউনিফর্ম আর টুপি পরে ড্রাইভিং করবে।

এই কথা মাকে বলে আপ্পু। মা তাকে জিজ্ঞেস করে, ‘তুই কী হবি? কিছু ভাবলি?’ আপ্পু উত্তর দেয়, ‘বুয়া হবো! ডাক্তারের ছেলে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ারের ছেলে ইঞ্জিনিয়ার হয়, বুয়ার মেয়ে তো বুয়াই হবে, না…?’ একথা শোনার সাথে সাথে চান্দার দুনিয়া অন্ধকার হয়ে আসে। কিন্তু চান্দা হাল ছাড়ে না, যুদ্ধ করে যায় নিজের সাথে, মেয়ের স্বপ্ন পূরণের জন্য। শেষ পর্যন্ত আপ্পু তার স্বপ্নে পৌঁছায়, নিরলস পরিশ্রম আর মায়ের প্রতি ভালোবাসায় ভর করে।

এই সিনেমার সাথে খুব কাছাকাছি একটা উক্তি আছে, জোয়ান হেরিস’এর – “সন্তানেরা ধারালো চাকুর মত। তারা না চাইলেও মায়েদের কষ্ট দেয়। আর মায়েরা তাদের শেষ রক্তবিন্দু পর্যন্ত সন্তানদের সাথে লেগে থাকে।” আরেকটি প্রবাদও মনে পড়ে,

ঈশ্বর সবখানে পৌঁছাতে পারেন না, তাই তিনি মা’কে সৃষ্টি করেছেন। 

পরিচালক আশ্বিনি তিওয়ারীর নির্মিত অভিষেক সিনেমা তামিল “Amma Kanakku” এর হিন্দী রিমেক হলো “Nil Battey Sannata”. যার অর্থ অনেকটাই দাঁড়ায়, ‘Good for nothing’, ‘কোনো কাজের না!’ নামে কোনো কাজের না হলেও, কাজে কিন্তু বলিউডে স্থান করে নেয়া হয়েছে এই এক সিনেমাতেই। খুব সাধারণ গল্পে কীভাবে সুন্দর মার্জিত উপস্থাপন করে দর্শকের হৃদয়ে প্রবেশ করতে হয়, সেটা সুনিপুণভাবে দেখিয়েছেন পরিচালক।

২০১৬ সালের ২২ই এপ্রিল ইন্ডিয়ায় মুক্তি পাওয়া এই বাস্তবতা ও ন্যারেটিভের সংমিশ্রনের উজ্জ্বল প্রতিফলন নীল বাট্টে সান্নাটা! ৬২তম ফিল্মফেয়ার এওয়ার্ডে ‘বেস্ট ডেব্যু ডিরেক্টর’ এওয়ার্ডে পান পরিচালক আশ্বীনী তিওয়ারী। যেখানে সারা ভাস্কর ও রিয়া শুক্লা বেস্ট ক্রিটিকস এওয়ার্ড পান সেরা অভিনেত্রী ও বেস্ট চাইল্ড আর্টিস্ট ক্যাটাগরিতে।

এই সিনেমার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য দিক হলো, চমৎকার অভিনয়, দুর্দান্ত সব সংলাপ, শ্রুতিমধুর ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজক। আপ্পু চরিত্রে রিয়া শুক্লার অভিনয় সাবলীল ছিলো, চান্দা সাহা চরিত্রে সারা ভাস্কর খুবই ভালো করেছেন। প্রিন্সিপাল চরিত্রে পংকজ ত্রিপাঠি, ডাঃ দিবান চরিত্রে রত্না পাঠক ভালো করেছেন। আপ্পুর ক্লাসমেট পিন্টু আপনাকে হাসাবে।

সিনেমা আগাতে থাকবে, আর যেন গল্পে নয়, গল্প নিজেই আপনাতে প্রবেশ করবে। জীবনের কোনো না কোনো একটা সময়ের সাথে এই সিনেমা মিলে গেলে অবাক হওয়ার কিছু নেই। এটাই গল্পের শক্তি। জীবনে হাল ছেড়ে দেয়া মানুষগুলো, প্রচণ্ড হতাশায় নিমজ্জিত সময়েও যারা স্বপ্ন দেখা ছেড়ে দেই, তাদের জন্য এই সিনেমা নতুন উদ্যোমে শুরু করার টনিক হিসেবে কাজ করবে। বিশেষ করে এই সিনেমার সংলাপ আপনাকে নতুন করে ভাবাবেই। একটা সংলাপ ঠিক এমন, 

“যারা তোমার স্বপ্ন বুঝবে না, তাদের বলো, নরকে যাও! কারন এরা তোমার স্বপ্ন মুছে ফেলবে! আর যারা তোমার স্বপ্নকে বোঝে, তাদের কাছে রাখো। কারন তারাই তোমার স্বপ্নকে জিন্দা রাখবে।”

‘নীল বাট্টে সান্নাটা’ দেখার পর কিছু পয়েন্ট মিলিয়ে নেবেন, 
১. কখনো স্বপ্ন দেখা বন্ধ করতে হয় না, কক্ষনো না।
২. ব্যর্থ হওয়ায় কিছুই আসে যায় না।
৩. পরিশ্রমের বিকল্প কিছুই নেই।
৪. আপনার স্বপ্ন আপনারই হাতে।

আইএমডিবি রেটিং: ৮.৫, আমার রেটিংস: ৮/১০

Do you like this post?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-