খেলা ও ধুলারাশিয়া বিশ্বকাপ ২০১৮

জার্মানিকে হারিয়ে আক্ষরিক অর্থেই ভূমিকম্প ঘটিয়েছে মেক্সিকো?

এখন পর্যন্ত চলতি রাশিয়া বিশ্বকাপে বেশ কিছু ম্যাচেই অপ্রত্যাশিত ফলাফলের দেখা মিলেছে। নিজেদের প্রথম ম্যাচে জয়বঞ্চিত হয়েছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা ও নেইমার-কৌতিনহোর ব্রাজিল। নিজেদের মধ্যে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন স্পেন আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগালকেও। কিন্তু সবকিছুকে ছাপিয়ে এখন অবধি বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনা নিঃসন্দেহে নিজেদের উদ্বোধনী ম্যাচে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানির মেক্সিকোর কাছে হেরে যাওয়া।

গত রবিবার (১৭ জুন) জার্মান মেশিনদের অহংকে মাটিতে গুঁড়িয়ে দেয় কনকাকাফ অঞ্চলের পরাক্রমশালী দল মেক্সিকো। ম্যাচের প্রথমার্ধ্বে, ৩৫তম মিনিটে ফরওয়ার্ড হারভিং লোজানোর একমাত্র গোলে ম্যাচটিতে জয় তুলে নেয় মেক্সিকানরা। এবং তাদের এই অবিশ্বাস্য জয় যে শুধু বিশ্বব্যাপী জার্মানী ভক্তদের হতভম্ব করে দিয়েছে বা মেক্সিকো ভক্তদের হৃদয়ে দোলা দিয়ে গেছে তা-ই নয়, একই সাথে এ ম্যাচের ফলাফলের প্রতিক্রিয়া অনুভূত হয়েছে সিসমোগ্রাফেও।

সহজ করে বলতে গেলে, এ ম্যাচ চলাকালীন মেক্সিকানদের করা গোল উদযাপনের দরুণ ছোটখাট একটি ভূমিকম্পই হয়ে গেছে মেক্সিকোতে।

সেদিন ম্যাচ চলাকালীন মেক্সিকো যখন তাদের একমাত্র গোলটি করল (যেটি পরবর্তীতে ম্যাচের জয়সূচক গোলেও পরিণত হয়), বাঁধভাঙা উল্লাসে ফেটে পড়ে মেক্সিকানরা। নেচে-কুদে, লাফিয়ে-ঝাপিয়ে বুনো উদ্দামে জয় উদযাপন করে তারা। আর তার ফলে মেক্সিকোর রাজধানী মেক্সিকো সিটির সেন্সরে ধরা পড়েছে কিছু অস্বাভাবিক সিসমিক প্রতিক্রিয়ার, যা মূলত এক কৃত্রিম ভূমিকম্পকেই নির্দেশ করে।

দ্য ইনস্টিটিউট ফর জিওলজিকাল অ্যান্ড অ্যাটমসফেরিকাল ইনভেস্টিগেশন্স তাদের অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডলে টুইটের মাধ্যমে প্রকাশ করেছে কিছু সিসমোগ্রাফিক রিডিং, যেখানে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে যে ওইদিন আগে-পরে অবস্থা স্বাভাবিক থাকলেও, মেক্সিকো গোল করার পরে যতক্ষণ উদযাপন করতে একই সময়ে অসংখ্য মানুষের লাফিয়ে ওঠার ফলেই এমন কৃত্রিম ভূমিকম্প ঘটেছিল বলে মনে করছে সংস্থাটি।

এই খবর ইন্টারনেট দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়তে খুব বেশি সময় নেয়নি। কেননা চমকপ্রদ এই খবরটি খুব সহজেই নজড় কাড়ে মানুষের। এবং বরাবরের মতই সোশ্যাল মিডিয়া ঝাঁপিয়ে পড়ে এ ঘটনার ব্যবচ্ছেদে। একের পর এক হাস্যকর টুইট করতে থাকে লোকজন। নির্মিত হতে থাকে বিভিন্ন ট্রল আর মিমও।

তবে কোন খেলাকে কেন্দ্র করে দর্শকদের আনন্দের আতিশয্যে কৃত্রিম ভূমিকম্পের জন্ম দিয়ে বসার দৃষ্টান্ত কিন্তু একেবারে বিরল নয়। ২০১১ সালেও ঘটেছিল এমন একটি ঘটনা। সেটি অবশ্য এনএফএলে। সিয়াটল সি-হকসের হয়ে খেলার সময় মারশন লিঞ্চের একটি টাচডাউন রান দেখে এতটাই উচ্ছ্বসিত হয়ে পড়ে দলটির সমর্থকেরা যে নিকটবর্তী একটি সিসমোলজিকাল রেকর্ডিং স্টেশনে মৃদু ভূ-কম্পন ধরা পড়েছিল। সেই ভূমিকম্পের নামকরণ করা হয়েছিল ‘বিস্ট কোয়েক’।

এই সিয়াটল ভক্তরাই আরও একবার কৃত্রিম ভূমিকম্পের জন্ম দিয়েছিল ২০১৩ সালে, নিউ অরলিন্স সেইন্টসের বিপক্ষে ম্যাচ জয়ের পরে। সেবারও সি-হকস স্টেডিয়ামের নিকটবর্তী সিসমোলজিকাল রেকর্ডিং স্টেশনে ধরা পড়েছিল ভূ-কম্পন।

শেষ করা যাক একটি সম্ভাবনার কথা চিন্তা করে। মেক্সিকো বর্তমান ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের পরাজিত করে তাদের সামর্থ্যের প্রমাণ তো ইতিমধ্যেই দিয়ে দিয়েছে। এখন ভেবে দেখুন তো, তারা যদি কোনভাবে বিশ্বকাপটাও জিতে নেয়? সেক্ষেত্রে আমাদের এই পৃথিবী কতখানি নিরাপদ?

Comments
Tags
Show More

Related Articles

Close