ভারতের মেঘালয় রাজ্যটাতে পাহাড়ের রাজত্ব, এর মাঝে উঁকি দেয় ছোটবড় ঝর্ণার সফেদ ধারাগুলো। মেঘেরা এখানে পাহাড়ের বুকে আশ্রয় নেয়। ইদানিং পর্যটন ব্যবসা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে সেখানে, দেশী বিদেশী পর্যটকেরা ভীড় জমাচ্ছেন পাহাড় আর মেঘের সেই মিলন দেখার জন্যে, প্রকৃতির বিশালতায় সৌন্দর্য্যের আধারে নিজেদের অবসর সময়টা উপভোগ করতে ছুটে আসছেন মেঘালয়ে। আর এখানে আসা পর্যটকদের একটা বড় অংশেরই ভ্রমণ তালিকায় থাকে ‘মাওলিনং’ এর নামটা। বাংলাদেশের সিলেট সীমান্ত থেকে মাত্র পঁচিশ কিলোমিটার দূরে শিলং জেলায় অবস্থিত এই গ্রামটিকে ২০০৩ সাল থেকেই ঘোষণা করা হয়েছে এশিয়ার সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন গ্রাম হিসেবে!

শিলং শহর থেকে জীপে চড়ে নব্বই মাইল পথ পাড়ি দিয়ে তবেই দেখা মেলে মাওলিনং- এর। ছয়শো মানুষের বাস এখানে, সবাই খাসি উপজাতির। পূর্ব খাসি পাহাড়ের কোলে অবস্থিত এই গ্রামটা উপরে ওঠার জন্যে সিঁড়ি কাটা আছে, পাশেই আছে বাশের রেলিং। ক্লান্ত হয়ে গেলে সেখানে বসে জিরিয়ে নেয়া যাবে। কিছুক্ষণ পরপরই মিলবে চায়ের দোকান, তেষ্টা পেলে পাহাড়ী ঠাণ্ডায় গরম চায়ে দেয়া যাবে চুমুক। তবে ধূমপান নিষিদ্ধ এখানে, নিষিদ্ধ যেকোন ধরণের ময়লা আবর্জনা ফেলাও। ময়লা রাখার জন্যে একটু  পরপরই পথের ধারে ঝুড়ি রাখা আছে, সেই নির্দিষ্ট ঝুড়িগুলোতে ফেলতে হবে আবর্জনা।

গ্রাম, পরিচ্ছন্ন, মেঘালয়, ভারত

২০০৩ সালে ডিস্কভার ইন্ডিয়া ম্যাগাজিন মাওলিনং-কে এশিয়ার সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন গ্রাম হিসেবে ঘোষণা দেয়, সায় জানায় বিবিসি এবং ন্যাশনাল জিওগ্রাফিও। গ্রামের সব মানুষই খৃষ্টান ধর্মাবলম্বী। মাতৃপ্রধান এই গ্রামে কাজ করতে দেখা যায় নারী-পুরুষ সবাইকেই। এখানকার অধিবাসীরা ছোট ছেলেমেয়েদের একদম শিশু বয়স থেকেই নিজে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকার এবং আশেপাশের পরিবেশকে পরিচ্ছন্ন রাখার শিক্ষা দেয়। গ্রামের শিশু-কিশোরদের সকালটা শুরু হয় রাস্তার ময়লা পরিস্কার করে আর ঝরা পাতা কুড়িয়ে। স্কুলে যাবার আগেই ময়লার ঝুড়িগুলো খালি করে সব আবর্জনা ওরা এক জায়গায় জড়ো করে। সেই ঝুড়িগুলো দেখলেও মুগ্ধ হতে হয়! থেকে দিনের একটা নির্দিষ্ট সময়ে গাড়ীতে করে জমানো ময়লাগুলো নিয়ে যাওয়া হয় দূরের একটা জায়গায়, সেখানে আগুনে পোড়ানো হয় সেসব। এছাড়াও নিজেদের আঙিনা এবং বাড়ির আশেপাশের জায়গাগুলো পরিস্কার রাখতে হয় প্রতিটি পরিবারকে। এটাই এখানকার নিয়ম। প্রতিটি বাড়িতেই আছে স্বাস্থ্যকর স্যানিটারি ল্যাট্রিন।

গ্রামে একটা সমিতি আছে, তারাই এসব দেখভাল করে। এখানে শিক্ষার হার শতভাগ, ভারতের একটা পাহাড়ী গ্রামের জন্যে যেটা একদমই ব্যতিক্রম! গ্রামে ট্যুরিস্টদের আনাগোনা লেগেই থাকে, আর তাই প্রয়োজনের তাগিদেই ইংরেজী ভাষাটা শিখে নিয়েছে এখানকার মানুষগুলো। প্রাপ্তবয়স্কদের প্রায় সবাই ইংরেজীতে কথা বলতে পারেন। গ্রামে ঢোকার মুখে একটা বাঁশের মাচা আছে, সেখানে উঠে পুরো মাওলিনংকে এক নজরে দেখা যায়। আবহাওয়া ভালো থাকলে সিলেট সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশও নজরে আসে। আছে ছোট একটা পার্কিং স্পেস, খাবারের হোটেল, এমনকি রাতে থাকার জন্যে বাঁশের তৈরী গেস্ট হাউজও! ইউরোপ-আমেরিকার পর্যটকদের অনেকেই এখানে রাত কাটান।

গ্রাম, পরিচ্ছন্ন, মেঘালয়, ভারত

এই গ্রামের প্রতিটা রাস্তাই পাকা। প্রাকৃতিকভাবে গাছের শেকড়ের তৈরী একটা সেতু আছে এখানে, ছোট্ট একটা পাহাড়ী নদীর ওপরে এই সেতুটা। সেটাও পাকা করা হয়েছে। গ্রামের ভেতর অজস্র ফুলের বাগান, কিংবা বলা যায় পুরো গ্রামটাই বুঝি বাগান, এর মাঝে মাঝে কিছু বাড়ীঘর! প্রতিটা বাড়ির সামনে পেছনে শুধু ফুলগাছ, সীমানাপ্রাচীরও দেয়া হয়েছে ফুলের গাছ দিয়ে। সারাবছরই নানা রকমের ফুলে ভরে থাকে মাওলিনং। বাড়ীঘরগুলো সব বাঁশ আর কাঠ দিয়ে বানানো, আহামরি যে সুন্দর সেটাও নয়। কিন্ত শুধু পরিচ্ছন্ন এই প্রকৃতিটি মন ভরিয়ে তুলবে অজানা এক খুশীতে।

নরেন্দ্র মোদি ভারতজুড়ে ‘স্বচ্ছ ভারত’ বা ‘পরিচ্ছন্ন ভারত’ নির্মাণের অভিযান শুরু করেছেন ২০১৪ সালে। কিন্ত এরও অনেক বছর আগেই যে মেঘালয়ের এক গহীন পাহাড়ের বুকে শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত কিছু মানুষ তাদের ছোট্ট গ্রামটাকে পরিচ্ছন্ন আর আদর্শ একটা গ্রাম হিসেবে গড়ে তুলেছে, সেটা ২০০৩ সালের আগে হাতেগোনা অল্প ক’জন মানুষই জানতো। ডিসকভার ইন্ডিয়া ম্যাগাজিনে মাওলিনং নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হবার পরেই দলে দলে সাংবাদিক ছুটে গেছে সেখানে, এখন তো পর্যটকদের ঢল সামলাতেই হিমশিম খায় সেখানকার মানুষ। অপরিচ্ছন্ন আর ঘিঞ্জি নগরজীবন থেকে খানিকটা পরিত্রাণ পেতে ঘুরে আসতে পারেন মাওলিনং থেকে, পৃথিবীর সব শহর আর গ্রামের জন্যেই আদর্শ হিসেবে নিজেকে তুলে ধরেছে যেটি! 

তথ্যসূত্র- 

১/ http://www.bbc.com/travel/story/20160606-the-cleanest-village-in-asia 

২/ http://www.lonelyplanet.in/articles/5506/a-day-at-the-cleanest-village-in-asia-mawlynnong-meghalaya 

৩/ http://www.hindustantimes.com/photos/travel/meghalaya-s-mawlynnong-the-cleanest-village-in-asia/photo-Mj16tWhqu0NB3z8tB3rFJK.html

আপনার কাছে কেমন লেগেছে এই ফিচারটি?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-