ম্যানচেস্টার সিটির কোচ হয়েছেন প্রায় দেড় মৌসুম। পেপ গার্দিওলা নিজের রাজত্ব সম্প্রসারিত করে চলেছেন সব জায়গাতেই। সেই বার্সেলোনা থেকে বায়ার্ন মিউনিখ, এখন ম্যানচেস্টার সিটি। ম্যানচেস্টার সিটির কোচ হিসেবে গার্দিওলার নাম গত মৌসুমের শুরুতে ঘোষণা করা হলেও এই পরিকল্পনার ছক আঁকা হয়েছে আজ থেকে ৯ বছর আগেই! কি পাঠক, বিশ্বাস হচ্ছেনা তো? না হবারই কথা। শুধুমাত্র গার্দিওলাই নন, পুরো বার্সেলোনা সিস্টেমটাকে নিজেদের সিস্টেমে রূপান্তর করতে ম্যানচেস্টার সিটির নকশা করা শুরু ৯ বছর আগেই।

আগস্ট ১৯, ২০০৯। ন্যু ক্যাম্পে জোয়ান গাম্পার ট্রফিতে বার্সেলোনার মুখোমুখি ম্যানচেস্টার সিটি। সবার চোখ যখন মাঠে আটকে ছিল; মূল অ্যাকশন তখন মাঠের বাইরে চলছিল।

সেদিন ন্যু ক্যাম্পের এক্সিকিউটিভ বক্সে আবুধাবির রয়্যাল ফ্যামিলির অনেক হাই প্রোফাইল ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন। শেখ মনসুর এর ভাই তাদেরই একজন।

তারা সেদিন শুধু ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনার বিপক্ষে তাদের নতুন দলটির খেলা দেখতে উপস্থিত ছিলেন না, বরং তারা পরীক্ষা করছিলেন বার্সেলোনার মত স্থায়ী ফুটবলীয় রাজত্ব তৈরিতে কাকে এবং কিসের প্রয়োজন।

বার্সেলোনার সাফল্যের পর্দার পেছনের ব্যক্তিদের খুঁজে পেতে দেরি হল না আবুধাবি বাহিনীর। টিক্সি বেগিরিস্টাইন- সাবেক বার্সা উইংগার, বর্তমান ফুটবল ডাইরেক্টর। ফেররান সোরিনো- বার্সার ইকোনোমিক ভাইস প্রেসিডেন্ট। এদুজন ছিলেন জোয়ান লাপোর্তার বার্সেলোনার সাফল্যের পেছনের অন্যতম প্রধান কারিগর। ব্যাপারটা সহজেই অনুমেয়। টিক্সি ছিলেন ফুটবলার আর ফেররান একজন ব্যবসায়ী। তারা দুজন মিলে বার্সেলোনাকে আর্থিক খাদের কিনারা থেকে তুলে এনে সেটিকে পুনঃসংস্কার করেছেন এবং ইউরোপের অন্যতম শক্তিধর হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছেন। বার্সেলোনার রাজস্ব বৃদ্ধি পেতে লাগল, ইউরোপ তাদের ফুটবলে মোহাবিষ্ট হয়ে রইল। আর এর ফলে মাঠের বাইরে চমকপ্রদ ঘটনা ঘটল। ক্লাবের সার্বিক খরচ অস্তমিত হতে লাগল। টিক্সি এবং ফেররান আধুনিক ফুটবলের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ম্যাজিক ট্রিক দেখালেন।

ম্যানচেস্টার সিটি, শেখ মনসুর, বার্সেলোনা, ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ, পেপ গার্দিওলা

ম্যানচেস্টারে এক পরিকল্পনা অংকিত হল। টিক্সি এবং ফেররান দুজনের সাথে যোগাযোগ করা হল। আবুধাবি বাহিনী ম্যানচেস্টারে ফুটবলের স্থায়ী রাজত্ব গড়তে চাচ্ছিল। সে রাতে বার্সেলোনায় তারা ফুটবলকে যেভাবে দেখেছিল, যেভাবে অনুভব করেছিল, সবকিছুরই প্রতিফলন ম্যানচেস্টারে গড়তে চাইল। অবশেষে ২০১২ তে টিক্সি ফুটবল ডাইরেক্টর এবং ফেররান সিইও হিসেবে ম্যানচেস্টার সিটিতে যোগ দিলেন।

এটা ছিল শুধুমাত্র প্রথম পদক্ষেপ। আবুধাবি কর্তৃপক্ষ তাদের ফুটবলের ভিত্তির জন্য এক অপরিহার্য শিকড় খুজছিল। পেপ গার্দিওলা, সেই রাতে দেখা বার্সেলোনার ম্যানেজারই হলেন এই অপরিহার্য শিকড়। টাচলাইনে দাঁড়িয়ে তার প্রগাড় চাহনি, টোটাল ফুটবল মূলমন্ত্র নিয়ে সেটার নিজস্ব আপডেটেড ভার্সন, স্ব-আরোপিত ক্রুইফের অনুগত শিক্ষার্থী এই পেপ এর বার্সেলোনা অন্যান্য সবার থেকে এতটা বেশিই এগিয়ে ছিল যে তার অধীনে প্রথম সিজনেই বার্সা ফুটবল ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছিল।

গত ছয় বছরে ম্যানচেস্টার সিটি পুননির্মিত হয়েছে। ক্রুইফ বার্সেলোনায় যে মন্ত্র নিয়ে এসেছিলেন, পেপ যেটিকে বাস্তাবায়িত করেছিলেন; ইয়ুথ টিম থেকে শুরু করে ফার্স্ট টিম, সবখানেই ম্যানচেস্টার সিটি এখন এই মন্ত্রে দীক্ষিত। মোটকথা সর্বোপরি বার্সেলোনাকে অনুসরণ করছে ম্যানচেস্টার সিটি। আর এখনই যথার্থ সময় আবুধাবির ‘বার্সা প্রোজেক্ট’ এর তুলির শেষ আচড়টি সিটিতে নিয়ে আসার। বর্তমান বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ম্যানেজার পেপ গার্দিওলা আনুষ্ঠানিকভাবে আগামীকাল ম্যানচেস্টার সিটির দায়িত্ব বুঝে নিবেন। কে ভেবেছিল ২০০৯ এর এক সন্ধ্যায় ন্যু ক্যাম্পের সর্বজয়ী বার্সেলোনার তিন রত্ন ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টারে আবার একত্রিত হবেন? হয়ত এবার ভিন্ন কোন দেশে ফুটবলের নতুন কোন রাজত্ব তৈরি করতে!

সামনে ম্যানচেস্টার সিটির সুদিন অপেক্ষা করছে। যেই অখ্যাত পেপ গার্দিওলার হাত ধরে গত ১০ বছরের সেরা ফুটবল খেলেছে বার্সেলোনা, যে বার্সেলোনাকে মাত্র ৪ বছরে ১৪ টি ট্রফি জিতিয়েছেন সেই গার্দিওলার হাত ধরেই ইংলিশ ফুটবলে নিজেদের রাজত্ব গড়ে তোলার স্বপ্ন সিটিজেনদের। সেই স্বপ্ন পূরণ হবে সেটি বিশ্বাস করেন সিটির বিশ্বজুড়ে থাকা সব সমর্থকরাই। কারণ তাদের বিশ্বাসের ভিত্তি যে পেপ গার্দিওলা নামের টেকো মাথার ওই ম্যাজিশিয়ান।

Do you like this post?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-