সাত বছর ধরে, প্রতি নভেম্বরে, বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গনে যে Lit Fest অনুষ্ঠিত হচ্ছে, এটা নিয়ে মোটা দাগে দু-ধরণের প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। একদল আছেন যারা এটাকে বাংলা সাহিত্যের জগতে বিরাট সাফল্য বলে মনে করেন। আরেকদল আছেন যারা পুরোটাই ‘টিশটাশ ইংরেজি বলা বড়লোকের’ এক ধরণের মিলনমেলা বলে মনে করেন এবং এখানে বাংলার চূড়ান্ত অপমান হচ্ছে মনে করে এটাকে ভদ্র ভাষায় গালাগাল করেন।এখানে আমি খাঁটি বাঙালির মত ‘মধ্যমপন্থা’ অবলম্বন করে থাকি। অর্থাৎ, এ ব্যাপারে আমার মতামত কোন মেরু-ঘেষা নয়, নিরক্ষীয় অঞ্চল বরাবর!

বাংলা সাহিত্যে এই উৎসব খুব একটা প্রভাব ফেলে বলে আমার মনে হয় না। সত্যি কথা বলতে, সেটা এই উৎসবের উদ্দেশ্যও নয় সম্ভবত। এখানে আগত বেশিরভাগ দর্শণার্থীরাই সমাজের শিক্ষিত এলিট শ্রেণীর লোকজন। এছাড়া কবি-সাহিত্যিক-প্রকাশক-সাংবাদিক এনারা তো আছেনই। দেশীয় বইয়ের স্টলের পাশাপাশি বিদেশী বইয়ের স্টল এখানে আছে এবং উচ্চমূল্যের জন্য ওসব বই ছুঁয়েই তৃপ্ত থাকতে হয়, বামুন হয়ে চাঁদ ছুঁয়ে দেয়া গেলেও, বাড়ি নিয়ে যাওয়ার সুযোগ হয়না। এখানে আসাটা অনেকের কাছে হয়তো ‘কুলনেস’ এর ব্যাপার। কিন্তু ব্যাপারটা হল, কুলনেস দেখানোর জন্যও যদি কেউ এখানে আসে, সেটাতে ক্ষতি কী? ইয়াবা খেয়ে তো কুলনেস দেখাচ্ছে না!

কিন্তু এই উৎসব থেকে সব থেকে বেশি উপকৃত হয় আমার মত বামুনরাই। কিভাবে? এখানে যে সেশন গুলো হয়, সেগুলো থেকে। লিট ফেস্ট মূলত বইমেলা নয়, বরঞ্চ দেশী-বিদেশী সাহিত্যিকদের এক ধরণের আলাপ-আলোচনা- আড্ডার জায়গা। তিন দিন ব্যাপী এই অনুষ্ঠানে, প্রতিদিনই সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত একটার পর একটা এবং একই সাথে তিন/চার জায়গায় নানা বিষয়ে সেমিনার-আলোচনা হয়। আর এসব আলোচনায় অংশ নেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের খ্যাতিমান এক্সপার্ট মানুষ গুলো। এসব আলোচনা অনেকটা জ্ঞানী মানুষের সাথে টঙে বসে আড্ডা দেয়ার মতো, শিক্ষণীয় কিছু থাকতে হবে- সেটা জরুরী নয়, বরং এসব আলোচনা মস্তিষ্কের খাদ্যের মতো কাজ করে।

এসব বিভিন্ন দেশের জ্ঞানী-গুণী সাহিত্যিকদের মুখ থেকে সরাসরি কথা শোনা , তাদের প্রশ্ন করার সুযোগ পাওয়া- এটা আমাদের মত বামুনদের কপালে কখনোই জুটতো না, লিট ফেস্ট সেই সুযোগটা করে না দিলে। গতবারের আগের বার স্টিফেন হকিং এর কন্যা লুসি হকিং এসেছিলেন, একটা প্রাণবন্ত সেমিনার নিয়েছিলেন, আমি তাঁকে প্রশ্ন করেছিলাম। তো এইযে লুসি হকিং এর মত একজন স্বনামধন্য সাইন্সফিকশন রাইটার, যিনি কিনা স্টিফেন হকিং এর কন্যা- তাঁর সাথে আমার সরাসরি যোগাযোগের এই সুযোগটা তো আমি অন্য কোথাও পেতাম না। এবারে এসেছেন সিরিয়ান কবি এদোনিস। নিজে আবৃত্তি করেছেন। সেই আরবি কবিতা কেউ বুঝেনি এক বর্ণও, তাও সকলে হা করে চেয়ে থেকেছে এদোনিসের দিকে। কেন? এটাই সাহিত্যের শক্তি।

দেখুন, লিট ফেস্ট বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করার দায়িত্ব নেয়নি। এর মাধ্যমে আমরা বিদেশী সাহিত্যকে হাতের মুঠোয় পাচ্ছি, পরিচিত হচ্ছি, তাদের কথা শুনতে পারছি- সমৃদ্ধ করছি নিজেদের। আপনাদের মধ্যে যারা ভবিষ্যতে বাংলা সাহিত্যকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন, তারা নিজেদের সমৃদ্ধ করতে পারবেন এখানে। অনেকেই আছেন বাংলা একাডেমিতে ঢুকে টিপটপ ফিটফাট টিশটাশ ইংরেজি বলা মানুষজন দেখে আর উচ্চমূল্যের বইপত্র দেখে ভড়কে যান, মনে করেন ‘এ কই এলামরে বাবা!’ লিট ফেস্টের মূল ব্যাপারটাই হল এর বিভিন্ন আলোচনা গুলো। আপনারা এখানে এসে আলোচনা গুলো শুনুন, বাইরের মানুষজন কেমন সেটা বিবেচনায় না নিলেও চলবে। প্রতি বছর সাহিত্যে নোবেল ঘোষণার পর আমরা হাসাহাসি করি- ‘এই লোকের নামই তো শুনিনি,এ আবার কোন সাহিত্যিক’- এসব মূর্খের মত কথাবার্তা বলে। সত্যি কথা বলতে, আমরাই জানিনা বিশ্বের কোথায় কী হচ্ছে। লিট ফেস্ট অন্তত সেই কাজে কিছুটা হলেও ভূমিকা রাখছে।

যেহেতু বিদেশী-অতিথি প্রধাণ আয়োজন এটি, সে কারণে স্বাভাবিক ভাবেই এখানে ইংরেজির আধিপত্য। এটাই স্বাভাবিক। এখানে ইংরেজি আধিপত্য মানে এই না যে, এখানে বাংলা অবহেলিত। তবে লিট ফেস্টে ঘুরতে ঘুরতে আমার একটা কথা সব সময় মনে হয়- শুধু বাংলা সাহিত্য কেন্দ্রীক একটা উৎসব কি করা যায়না? সেই উৎসবটা বইমেলা কেন্দ্রিক হবে না, হবে লিট ফেস্টের মত আলোচনা কেন্দ্রিক। দুই বাংলার সাহিত্যিক,পাঠক একত্র হবেন, বাংলা সাহিত্যের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করবেন। সেটা হবে শুধুই ‘বাংলা সাহিত্য উৎসব’। আমরা যারা লিট ফেস্টে বাংলার অনুপস্থিতিতে মর্মাহত এবং যারা আসলেই বাংলা সাহিত্যকে ভালোবাসি- তারা সকলে মিলে যদি ব্যাপারটা নিয়ে লেখালেখি, প্রচারণা করি এবং উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের নিকট এই আর্জী পৌছে দিতে পারি- তাহলে এমন একটা উৎসব হওয়াটা অসম্ভব কিছু না।

হতে পারে এগুলো বড়লোক এলিট ক্লাসের কুলনেস প্রকাশের ফেস্টিভাল। কিন্তু সেটা হলেও আমাদেরও এখান থেকে অনেক কিছু নেয়ার সুযোগ আছে। আর মৌলবাদের এই সময়ে (লিট ফেস্টে এ নিয়েও ভালো কিছু সেশন হয়েছে, কালও আছে) এ ধরণের উৎসব, ফেস্টিভাল আমাদের অনেক বেশি পরিমাণে দরকার, যেকোন ফর্মেই হোক, দরকার। দয়া করে এগুলোকে নিরুৎসাহিত করবেন না।

Do you like this post?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-