খেলা ও ধুলা

লাতিন আমেরিকা: ফুটবল যেখানে ধর্ম

বিশ্বের সব দেশেই সকাল শুরু হয় সূর্য উঠার মধ্য দিয়ে, ইউরোপিয়ান, এশিয়ান রা ছুটে যায় কর্মক্ষেত্রে। কিন্তু লাতিন আমেরিকায় সকাল শুরু হয় ভিন্নভাবে। অন্যান্য দেশের মতো শুধু সূর্য উঠাতেই মিল, এরপর শুরু হয়ে যায় ধর্মচর্চা। না, চার্চে না, এই চর্চা চলে রাস্তায়, বস্তির ঠেস দেয়া ময়লার স্তুপের উপরে, ছোট্ট নোংরা গলির আনাচে-কানাচে সহ সব জায়গায়। এই ধর্ম চর্চার নাম ফুটবল। লাতিনরা ফুটবল কে নিজেদের ধর্মরূপে গ্রহণ করেছে।

এখানে তিনবেলা তো দূরে থাক একবেলা খাবারের নিশ্চয়তা নেই, জীবনের নিশ্চয়তা নেই, জীবিকার নিশ্চয়তা নেই। কিন্তু এখানে যা আছে তা হলো সৌন্দর্য। ফুটবল সৌন্দর্যের ফুল এই লাতিনের মাটিতে ফুটে।

লাতিন আমেরিকার সবচেয়ে খারাপ দিক হলো সন্ত্রাসবাজী। বিশ্বের সব কুখ্যাত সন্ত্রাসীরা এই লাতিনের মাটির। কিন্তু এই সন্ত্রাসবাজীকেও ভুলিয়ে দিতে পারে ফুটবল নামক এক জাদুর চর্মগোলক। ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, চিলির রাস্তায় রাস্তায় ফুটবল নিয়ে মেতে থাকে শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধরা। এই ধর্ম চর্চার কোনো বয়স নেই, কোনো বাঁধা নেই। যে যার মতো চর্চা করছে।

লাতিনের সব দেশে একটা ব্যাপার খুব সাধারণ। দারিদ্র কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছে তাঁদের। অধিকাংশ মানুষের বাসস্থান ফাভেলায়। বাংলাদেশের বস্তিগুলো কত নোংরা এবং অস্বাস্থ্যকর তা আমরা জানি। কিন্তু ফাভেলার কাছে বাংলাদেশের বস্তিগুলো নিতান্তই শিশু। সব ধরণের অপকর্ম চলে এই ফাভেলাগুলোতে। কিন্তু তাতে কি! এই ফাভেলাগুলো থেকেই উঠে আসেন একেকজন নায়ক। যাদেরকে কোনো অপকর্ম, অনাচার, অন্যায় স্পর্শ করতে পারে না। তাঁরাই টিকে থাকেন পৃথিবীতে।

ফুটবল লাতিনদের রক্তে। জন্ম হবার পর থেকেই প্রত্যেক শিশু কিছু চিনুক আর না চিনুক ফুটবল টা অবশ্যই চিনে। তারা ফুটবল খেলে না, তারা ফুটবল কে খেলায়। ফুটবল কে তিনবেলার খাবারের মতো সাধারণ বানিয়ে নিয়েছে তারা। সেখানকার রাস্তায় হাঁটলে, গলিতে বেড়ালে কিংবা ধূলামাখা কোনো জায়গায় দেখা যায় কেউ না কেউ বল নিয়ে যা ইচ্ছে তা করছে। দেখে মনে হয় এর থেকে সহজ কাজ বুঝি আর নেই।

ফুটবলের শুরু থেকেই এখানে লাতিন রাজাদের শাসন। এখানে লাতিনরাই একক রাজা। শৈল্পিক ফুটবল কথাটা লাতিনরাই তৈরি করেছে। লাতিনদের ফুটবল খেলাকে তুলনা করা যায় মাঠের সবুজ ক্যানভাসে শিল্পীর নিপুণ হাতের আঁচড়ের সাথে, নকশীকাঁথায় গ্রামের নারীদের নিখুঁত বুননের সাথে। লাতিনরা ফুটবল উপভোগ করতে শিখিয়েছে।

আমরা ব্রাজিল, আর্জেন্টিনার সমর্থক এমনি এমনিই হইনি! একটা গোল বল দিয়েও যে শিল্প সৃষ্টি সম্ভব তা আমরা ব্রাজিল, আর্জেন্টিনার কাছ থেকেই জেনেছি। এই শিল্পের সবচেয়ে বড় এবং সেরা শিল্পীরা এই লাতিন দেশগূলোর। পেলে, ম্যারাডোনা, গারিঞ্চা, রোনালদো, রোনালদিনহো, বাতিস্তুতা, ডি মারিয়া, ডি স্টেফানো, ফ্যালকাও, সানচেজ কজনের নাম বলব আমি!

অতীত-বর্তমান মিলিয়ে যারা ফূটবলকে সমৃদ্ধ করেছেন এবং করছেন বা ভবিষ্যতেও করবে সবখানেই লাতিনদের রাজত্ব। আমি বলছি না ইউরোপিয়ান, আফ্রিকান, এশিয়ান, ওশেনিয়ান, উত্তর আমেরিকানদের ফুটবলে কোনো অবদান নেই। অবশ্যই আছে, কিন্তু সবকিছুতেই একজন সেরা থাকে। তবে ফুটবলের সেরা লাতিনরাই!

Comments
Tags
Show More

Related Articles

Close