সিনেমা হলের গলি

বলিউডের ইন্ডিপেন্ডেন্ট নির্মাতারা ও একটি আক্ষেপ

বলিউডে ইন্ডিপেন্ডেট নির্মাতারা ব্যবসায়িকভাবে সফল হওয়া মাত্রই টানাটানি পড়ে যায় তাদের নিয়ে। সফল হওয়া এই নির্মাতাদেরও হয়তো স্বপ্ন থাকে বলিউডের বিগ স্টারদের নিয়ে কাজ করার একটা সার্টেইন সময় পরে গিয়ে। আনন্দ এল রায় যখন এসেছিলেন কেউ চিনতো না তাকে, শ্রীরাম রাঘবনকে কেউ পাত্তা দেয় নি। মেঘনা গুলজার তো নারী নির্মাতা, বাবার নাম নিয়ে আর কত দূর যেতে পারবে। লাভ রঞ্জন ইয়ুথ ফিল্ম বানায়, মিসোজেনেস্টিক- বড় অভিনেতারা ওর সাথে কাজ করার রিস্ক নেবে না। অনেক স্পেকুলেশনই হয়েছে, ভালো নির্মাতারা ছোট ছোট সিনেমা বানিয়েই সন্তুষ্ট থেকেছেন।

কিন্তু যখন দেখা গেল এরাই সফল হচ্ছেন বেশি, বড় সিনেমা লস খাচ্ছে। প্রফিট মার্জিন একশ-দুইশ গুণ এদের সিনেমার, তখনই এদের দিকে চোখ পড়লো বড় অভিনেতা-প্রোডাকশন হাউজদের। আনন্দ এল রায়ের প্রোডাকশনকে রেড চিলিজ আহ্বান জানাচ্ছে এখন কোলাবরেশনের জন্য, বড় স্টাররা এখন আনন্দের সাথে কাজ করতে চায়। জিরো সফল হলে হয়তো বর্তমান সময়ের অন্যতম বড় নির্মাতাই ধরা হবে তাকে। শ্রীরাম রাঘবন একের পর এক সফল থ্রিলার উপহার দেয়ার পর এখন বাজারে নতুন স্পেকুলেশন, শাহ্‌রুখের সাথে কাজ করবেন তিনি!

আনন্দ এল রায় ও শাহরুখ খান

মেঘনা গুলজার নিরাজ কবি, ইরফান খানদের মতো জাত অভিনেতাদের নিয়ে কাজ শুরু করে এখন আলিয়া-দীপিকার প্রথম পছন্দে পরিণত হয়েছেন। আর লাভ রঞ্জন তো একের পর এক ব্লকবাস্টার হিট দেয়ার পর অজয় দেবগন-রনবীর কাপুরের মতো বড় তারকাদের সান্নিধ্য পেয়েছেন। এছাড়াও অনেক নির্মাতা আছেন যারা ছোট সিনেমা দিয়ে সফল হয়ে এখন বড়র দিকে ছুটছেন। আগেও এমন হয়েছে, হয়ে আসছে অনেকদিন ধরে।

ইমতিয়াজ আলির সোচা না থা/জাব উই মেটের মিষ্টতা, বিষণ্ণ ভালোবাসা হারিয়ে গেছে জাব হ্যারি মেট সেজালের মতো বড় প্রজেক্টগুলোতে এসে। অনুরাগ বসুর গ্যাংস্টার, লাইফ ইন এ মেট্রোর বাস্তবিক জীবন মিস করি জাজ্ঞা জাসুসের বৃহৎ প্রেক্ষাপটে। কবির খানের কাবুল এক্সপ্রেস, নিউ ইয়র্কের যুদ্ধবিধ্বস্ততা, অসহিষ্ণুতা হারিয়ে গেছে টিউবলাইটে এসে। আমি মিস করি অনুরাগ কশ্যপের ব্ল্যাক কমেডি আর র’ ভায়োলেন্সকে এখন তার সিনেমাগুলোতে।

অনুরাগ কশ্যপের দুর্দান্ত সব সিনেমা

নির্দেশকদের অবশ্যই সময়ের সাথে সাথে চয়েস বদলায়, চাহিদা বদলায়। কিন্তু যে কারণে নির্দেশকরা প্রথমত সফল হয় সে কারণগুলোই হারিয়ে যায় তাদের পরবর্তী সিনেমাগুলোতে এসে। এর প্রধান কারণ আমার কাছে বড় তারকাদের সাথে কোলাবরেশন করাই। এসবের মাঝেও সুজিত সরকার, অভিষেক চৌবে, হানসাল মেহতারা নিজেরা নিজেদের কাজ করে যায় চুপচাপ। এদের ভালো লাগে, সিনেমাপ্রেমী মন আশা করে এরা না ঢুকুক বলিউডের চাকচিক্যের মাঝে, হারিয়ে না যাক আশা দেখিয়ে বড় তারকাদের আড়ালে।

আরও পড়ুন-

Comments
Tags
Show More

Related Articles

Close