রিডিং রুমলেখালেখি

ইংরেজি থেকে অনুবাদ বই পড়া বোকামি, সময় নষ্ট!

টাইটানিক সিনেমার বাংলা ভাষান্তর দেখবেন নাকি মূল ইংরেজি সংস্করণ দেখে সিনেমা দেখার পাশাপাশি ইংরেজি ভাষায় নিজের দক্ষতা বাড়াবেন? এক ঢিলে দুই পাখির মারার মতই মূল সংস্করণের ইংরেজি বই পড়ুন, জ্ঞান অর্জনও হবে দক্ষতা অর্জনও হবে। এই পোস্টটি বাংলা অনুবাদ সাহিত্যের প্রতি নেতিবাচক ভাবনা থেকে লেখা নয়, বরঞ্চ ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদ বই পড়ার মাধ্যমে সময় নষ্ট না করার একটা পোস্ট ভাবতে পারেন।

“প্রশ্ন: আমরা কেন বই পড়ি?”

এই প্রশ্নের উত্তরে অনেকজনের কাছ থেকে অনেক রকমের উত্তর পাওয়া যাবে। কেউ বলবে জানার জন্য, কেউ বলবে জ্ঞান বিকাশের জন্য, কেউ বলবে সময় কাটানোর জন্য। আরেকটু স্পেসিফিকলি বললে, বিনোদন, জ্ঞান অর্জন আর দক্ষতা অর্জনের জন্যই আমরা বই পড়ি। জ্ঞান অর্জন আর দক্ষতা অর্জনের জন্য যদি বই পড়া অন্যতম কারণ হয়, তাহলে ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদের যে কোন বই পড়াই বোকামি। নিছকই বোকামি বলতে চাই।

সাবেক ভারতীয় কূটনৈতিক শশী থারুর সম্প্রতি মিরর নাও’র সাংবাদিক ফায়ে ডি’সুজাকে এক্সটিনসিভ ভোকাবুলারি ব্যবহারের কারণ জিজ্ঞেস করেছিলেন। শশী থারুরের ইংরেজি শব্দ ব্যবহার রীতিমতো ভারতীয় তরুণদের কাছে সারকাজম। শশী থারুর মিরর নাওকে জানিয়েছেন, “ছোটবেলায় এমন এক পরিবেশে আমি বড় হয়েছি, যেখানে ছিল না ল্যাপটপ, যেখানে ছিল না ইলেকট্রিসিটি। প্রচুর বই পড়ার কারণে আমার শব্দ ভান্ডার বড় হয়। আমি শব্দ শেখার জন্য কোন অভিধান কোনদিন পড়ে দেখে নি।”

Shashi Tharoor Explains How To Have A Vocabulary Like His

Shashi Tharoor sat down with Faye D'Souza and explained how we can all have that extensive vocabulary he's popular for.

Posted by Dialogue on Wednesday, January 31, 2018

শশী প্রচুর ইংরেজি বই পড়তেন বলে তার শব্দ ভান্ডার এত দারুণ মনে হয় আমাদের। এক দশক আগেও ইংরেজি বই কিনে পড়ার চল ছিল না আমাদের। এখন অনেক ইংরেজি বই নিলক্ষেতের কল্যানে আমরা কম দামে পাই। বই পড়ার কারণ যদি দক্ষতা বিকাশই হয় তাহলে ইংরেজি বই অনুবাদ না পড়াই ভালো!

বই মেলা আর রকমারিতে আপনারা টাইম ম্যানেজমেন্ট, ইট দ্যাট ফ্রগ, থিংক অ্যান্ড গ্রো রিচসহ হ্যারিপটার, শালর্কের বই অনুবাদ পাবেন। কম দামে দারুণ বই, কিন্তু অনুবাদের মান বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই যাচ্ছে তাই। আমি ছোটবেলা ডেল কার্নেগির বইয়ের বাংলা অনুবাদ পড়েছিলাম, আবার ২০১৫ সালে ইংরেজি বই পড়েছি। পড়ার পরে টের পেয়েছি বাংলা কোথায়, আর ইংরেজি কোথায়! জাতি হিসেবে এমনিতেই আমাদের ইংরেজির অবস্থা নড়বড়ে। বর্তমান কর্পোরেট দুনিয়া আর ইংরেজির প্রভাবের কারণে ইংরেজিতে ভালো করা মানে যে নিজের কমিউনিকেশন দক্ষতা বেশ ভালো, এটা না বললেও চলে। সে ক্ষেত্রে ইংরেজি অনুবাদ না পড়ে মূল বই পড়ে যদি ইংরেজি দক্ষতা বাড়ে, তা খারাপ না তো!

ধরেই নিলাম, আপনি হয়তো বেশি ইংরেজি বোঝেন না, সেক্ষেত্রে পড়া শুরু করুন। এক পৃষ্ঠা হয়তো বুঝবেন না, ৪/৫ পৃষ্ঠা পড়ার পরে এক-লাইন অন্তত বুঝতে পারবেন। আরও পড়লে আরও বুঝতে পারবেন। যখন ২০১৫ সালে ডেলিভারিং হ্যাপিনেস বইটা পড়া শুরু করি, তখন শুরুর দিকে অনেক শব্দের অর্থ বুঝিনি। দিন কয়েক পড়েই শব্দ হয়তো বুঝিনি, কিন্তু যে লাইন পড়ছি তা বুঝতে পেরেছি। এভাবে ইংরেজিতে বেশ ভালো করা যায়।

একটি ইংরেজি বইয়ের বাংলা অনুবাদ পড়তে ১ মাস লাগে, প্রতিদিন ১ ঘণ্টা পড়লে মোট সময় লাগবে ৩০ ঘন্টা। অনুবাদ পড়ার পরে আপনি ৩০ ঘণ্টায় শুধু বইটি পড়েই সাহিত্যিক দিকই অর্জন করতে পারবেন। এখন এক ঢিলে বই পড়ার মতো ইংরেজি বই পড়লে ৩০ ঘণ্টায় শুধু বই-ই পড়া নয়, সঙ্গে ইংরেজি ভাষাতেও দক্ষতা বাড়বেই। সময় এমনিতেই আমাদের কম, সেই প্রেক্ষিতে কম সময় বই পড়া+ইংরেজিতে দক্ষতা বাড়ার সুযোগ মিললে ছাড়বেন কেন?

আমার ভাগ্নে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে হ্যারিপটার বই পড়তো, আমি অনুবাদ পড়তাম। বাংলা অনুবাদে আমার বাংলা দক্ষতা তো তেমন বাড়েনি, কিন্তু যখন ইংরেজি বই পড়া শুরু করি তখন টুকটাক কিন্তু ইংরেজি বোঝা শুরু করি। এখন farrago অর্থ না বুঝলেও কোনো লাইনে ব্যবহার হতে দেখলে তা বুঝতে পারি।

অনুবাদ সাহিত্য অবশ্যই পড়া ভালো। প্রগতি প্রকাশনের রুশ বইয়ের বাংলা আমরা এক সময় পড়েছি। স্প্যানিশ কিংবা ইউরোপের স্ক্যান্ডিনেভিয়ান অঞ্চলের ভাষার অনুবাদ বই অবশ্য পড়বেন, কিন্তু ইংরেজি বইয়ের অনুবাদ পড়ে নিজেকে ধীরস্থির প্রমাণের কোন মানে নেই।

লেখাটি পূর্বে লেখকের ব্লগে প্রকাশিত

Comments
Tags
Show More

Related Articles

Close