‘প্রত্যেক প্রাণীই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করবে’- কুরানে এই আয়াত আছে। সবার ক্ষেত্রেই এটা সত্য জিনিস। কুরানে এই আয়াত নাজিল হওয়ার আগেও মানুষ মারা যেত, নাজিল হওয়ার পরেও মারা গেছে, ভবিষ্যতেও যাবে। আমরা কেউ সারাজীবন থাকতে আসিনি এই দুনিয়াতে, এটা ড্রয়িং রুম না আমাদের। এটা রেলওয়ে প্লাটফর্মের মতো, ট্রেন আসলে চলে যেতে হবে আপনাকে বা আমাকে- সেটা আমি বা আপনি যত বড় বা ছোট কুতুবই হই না কেন! এই সত্যটা যত জলদি মেনে নিবেন, সেটাই ভালো। সত্য মেনে নিয়ে বসে থাকলে আমার সমস্যা, হা হুতাশ করলেও সমস্যা। যেটা অবশ্যই হবে, সেটা নিয়ে তো হা-হুতাশের কিছু নাই। বরং সেটাকে সেলিব্রেট করেন। এমন কিছু করেন যেন আপনার মৃত্যু মহিমান্বিত হয়।

বাংলা ঘানি সিনেমার একটা সংলাপ আছে- একজন জন্ম নিলে কেউ কইতে পারেনা হে কয়দিন বাঁচবো। তয় হগলেই কইতে পারে, মানুষটা একদিন মরব।’

মরে গেলেই যদি সব সমস্যার সমাধান হতো বা “একদিন তো মরেই যাব” বলেই যদি সবকিছু সহজ করে ফেলতে পারতাম, তাহলে এই পৃথিবী অনেক কিছু থেকে বঞ্চিত হতো আর অনেক অসাধারণ মানুষের অবদান থেকেও আমরা বঞ্চিত হতাম। এমন কিছু মানুষের নাম বলব এখন , যারা আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু পারেন নাই মরতে। কিন্তু যদি সফল হতেন তাহলে কি হতো ভেবেই গা শিউরে উঠে। ওয়াল্ট ডিজনি, এলিজাবেথ টেলর, ড্রিউ ব্যারিমোর, এমিনেম, হ্যালি বেরি, অপরাহ উইনফ্রে, প্রিন্সেস ডায়না, মাইক টাইসন, মাইকেল জ্যাকসন…! কে নাই লিস্টে!

আমরা কেউ জানি না কবে মরে যাব, জানার সম্ভাবনাও আপাতত নাই। বিজ্ঞানীরা কোনদিন কিছু বের করতে পারলে সেটা নিয়ে তখন মাথা ঘামানো যাবে। একদিন না, আপনি এই মুহূর্তেই মারা যেতে পারেন। এই লেখা পড়ে শেষ করার আগেই আপনি মরে যেতে পারেন, লাইক বাটনে প্রেস করার আগে বা কমেন্ট করার আগেও আপনি মরে যেতে পারেন। কোন নিশ্চয়তা নাই। তাই, সেটা নিয়ে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি রসিকতা না করে, এমন কিছু করার চেষ্টা করেন যেন মৃত্যুর পরেও ভালভাবে আপনার নামটা উচ্চারিত হয়। মানুষ যেন বলে- আহারে! বড় ভালো মানুষ ছিল বা ইশ! ওরে খুব মিস করি রে, ও থাকলে অনেক ভালো হইত! আর যদি বলে- শালায় মরছে, বাঁচসি!- তাহলে বিশ্বাস করেন আপনার চেয়ে অভাগা বা অভাগী আর কেউ নাই!

জোকস করেন সমস্যা নাই, তবে সেন্স অফ হিউমারের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল সেটা জানা যে কখন রসিকতাটা থামাতে হবে।

প্রিয় পরিচালক ঋত্বিক ঘটককে নিয়ে নির্মিত প্রিয় সিনেমা মেঘে ঢাকা তারার একটি সংলাপ দিয়ে শেষ করছি- টাকা থাকবে না দুগ্গা, কাজগুলো থেকে যাবে!

Comments
Spread the love