ঈদ এলেই ধুম পড়ে টিভি চ্যানেলে নাটক প্রচারের, সাথে যুক্ত হয়েছে ইউটিউব চ্যানেল। সব মিলিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় কাটান নির্মাতা থেকে অভিনয়শিল্পীরা। ঈদ আয়োজন জুড়ে প্রচার হওয়া অসংখ্য নাটকের মধ্য থেকে নিজেদের প্রতিভায় আলোচনায় আসেন নির্মাতা এবং অভিনয় শিল্পীরা।

২০১৮ সালের ঈদ উল ফিতরে কারা কারা আলোচনায় এসেছেন, এই নিয়েই বিশেষ আয়োজন।

আলোচিত পাঁচ নির্মাতা-

১। আশফাক নিপুণ: এই ঈদের সবচেয়ে প্রশংসিত নাটক ‘ফেরার পথ নেই’ নাটকের নির্মাতা তিনি। এইরকম সাহসী নাটক বানানোর জন্য তিনি বাহবা পাবেন। এই ঈদে তিনি তিনটি নাটক বানিয়েছেন, তিনটিই ভিন্ন ধরনের। বাকি দুইটি নাটক হয়তো তোমারই কাছে যাবো ও চলছে চলবেও দর্শকনন্দিত হয়েছে।

২। শাফায়েত মনসুর রানা: প্রতিভাবান এই নির্মাতা এই ঈদে বানিয়েছেন মাত্র একটি টেলিফিল্ম, আর তাতেই তিনি বেশ আলোচিত হয়েছেন। ভিন্নধর্মী গল্প নিয়ে নির্মান করা ‘সব মিথ্যে সত্যি নয়’ টেলিফিল্মটি দর্শকমহল থেকে প্রচুর প্রশংসা পেয়েছে।

৩। শিহাব শাহিন: নাট্যঙ্গনের এই জনপ্রিয় নির্মাতা প্রতি ঈদেই একাধিক কাজ নিয়ে হাজির হন টিভি পর্দায়। সাধারণত তিনি রোমান্টিক ধারার নির্মাতা হিসেবে পরিচিত, সেই ধারায় ‘শেষ পর্যন্ত’ বেশ আলোচিত কাজ। তবে তিনি বেশি প্রশংসিত হয়েছেন সামাজিক ইস্যু নিয়ে বানানো টেলিফিল্ম ‘এই শহরে কেউ নেই’র জন্য। এই ঈদে প্রচারিত তাঁর বাকি দুটো কাজ হলো সবার ই কিছু দুঃখ থাকে ও বন্ধন।

৪। মাবরুর রশিদ বান্নাহ: এই ঈদের সর্বোচ্চ নাটক বানিয়ে আলোচিত হয়েছেন তিনি, জনপ্রিয় তারকাদের নিয়ে রেকর্ড সংখ্যক নাটক বানিয়েছেন। তাঁর নির্মিত নাটকগুলির মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রশংসা পেয়েছে ‘হোম টিউটর’। এছাড়া বিশ্বকাপের উন্মাদনা আরো বাড়াতে বানিয়েছেন ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা নিয়ে নাটক। তিনি শুধু টিভির জন্য না ইউটিউব চ্যানেলগুলোর ও নাটক বানিয়েছেন। তাঁর নির্মিত অন্যান্য নাটকগুলোর মধ্যে ছাত্র, বোন, চশমায় লেগে থাকা ভালোবাসা, সুখ অন্যতম।

৫। সাগর জাহান: নাট্যঙ্গনের অন্যতম ব্যস্ত নির্মাতা তিনি, এই ঈদেও তিনি বেশ সংখ্যক একক নাটক ও ঈদ ধারাবাহিক নাটক বানিয়েছেন। সবচেয়ে আলোচিত হয়েছে ‘নীল গ্রহ’ নাটকটি, এছাড়া ফ্যাটম্যান ও মাছের দেশের মানুষ নাটক দুটিও দর্শকরা মোটামুটি গ্রহণ করেছেন।

ঈদের সবচেয়ে আলোচিত কাজ ‘বুকের বা পাশে’র নির্মাতা মিজানুর রহমান আরিয়ান, বর্তমানে তিনি জনপ্রিয় নির্মাতাদের মধ্যে একজন। টেলিফিল্মটি নিয়ে কিছু দর্শকদের কাছে সন্তোষজনক না হলেও অনেক দর্শকরাই এটাকে পছন্দের তালিকায় রেখেছেন, নির্মান ও চমৎকার। এছাড়া তিনি বানিয়েছেন ‘আস্থা’, তবে সেটা সেভাবে এখনো আলোচনায় আসেনি।

এছাড়া অন্যান্য নির্মাতাদের মধ্যে হিমেল আশরাফ(শাড়ী), সাজ্জাদ সুমন(কলুর বলদ), তানিয়া আহমেদ(বাবার জুতা), আশুতোষ সুজন(আমার সন্তান থাকে যেন দুধে ভাতে), সুমন আনোয়ার(স্বপ্নবাড়ী), মাহমুদ দিদার(জেনিফার তুমি রক্ত গোলাপ), মুরসালিন শুভ(শুধুমাত্র কোম্পানির স্বার্থে), চয়নিকা চৌধুরী(নতুন সকাল) কমবেশি আলোচনায় এসেছেন।

আলোচিত পাঁচ অভিনেতা-

১। আফরান নিশো: বর্তমান নাট্যঙ্গনের অন্যতম সেরা প্রতিভাবান অভিনেতা তিনি, বেশ কয়েক বছর ধরেই তিনি নিজ প্রতিভায় সমুজ্জ্বল। এই ঈদে যেন আরো বেশি, সবচেয়ে প্রশংসিত নাটক ‘ফেরার পথ নেই’, সবচেয়ে আলোচিত নাটক ‘বুকের বা পাশে’ তে তিনিই অভিনয় করেছেন। এই ঈদে তাঁর অভিনীত বেশিরভাগই আলোচিত হয়েছেন, হিমেল আশরাফের ‘শাড়ী’ নাটকে অনবদ্য অভিনয়ে দর্শকদের মন ভরিয়েছেন, ‘হোম টিউটর’ তো রয়েছেই। এছাড়া উল্লেখযোগ্য নাটকের মধ্যে ডালিম কুমার, সিনেমা জীবন, কতটা পথ পেরোলে, কমলার বনবাস, ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনা, দ্বৈরথ, সহজ সরল ছেলেটা, ক্লাসলেস মোখলেস অন্যতম।

২। অপূর্ব: ‘বড় ছেলে’র বিরাট সাফল্যের পর তিনি এখন সময়ের সেরা জনপ্রিয় অভিনেতা, রোমান্টিক ধারার নাটকে নিজেকে অনন্য করে তুলেছেন। এই ঈদেও তিনি হাজির হয়েছেন বেশ সংখ্যক রোমান্টিক নাটক/টেলিফিল্ম নিয়ে। কোনো নাটক তুমুল আলোচিত না হলেও কিছু সংখ্যক নাটক এসেছে আলোচনায়, এর মধ্যে শেষ পর্যন্ত, আনমনে তুমি, জলসাঘর, হয়তো তোমারই কাছে যাবো, নীল ফড়িঙের গল্প, গল্পটা অন্যতম।

৩। মোশাররফ করিম: টিভি নাটকে এক অনন্য অভিনেতা তিনি,উনার মত জনপ্রিয় খুব কম অভিনেতাই হয়েছেন,সাথে দক্ষ অভিনেতাও। প্রতি ঈদেই তিনি দর্শকদের সামনে হাজির হন অধিক সংখ্যক নাটক নিয়ে,অনেক সময় সংখ্যাটা শুনে অবাক ই হতে হয়। এই ঈদেও ব্যতিক্রম নয়,তবে সেই তুলনায় আলোচনায় এসেছে কম। উনার এতসব কাজের মধ্যে ওপেন টি বায়োস্কোপ, শুধুমাত্র কোম্পানির স্বার্থে,গুলজার,জীবন বাবুর চিঠি,মাছের দেশের মানুষ প্রশংসিত হয়েছে। এছাড়া ঈদ ধারাবাহিক ‘ফ্যাটম্যান’ও এসেছে আলোচনায়। বেশ সমালোচনা উঠলেও উনার ‘যমজ ৯’ নাটকটি প্রতি সিরিজের মতই অনলাইনে বেশ দর্শক দেখেছে।

৪। তৌসিফ মাহবুব: নবীন অভিনেতাদের মধ্যে যারা বেশ আলোচিত,তাদের মধ্যে তিনি একজন। এই ঈদে তিনি নিজেকে অভিনয়ের দিক দিয়ে উন্নতি করেছেন, ভালো নাটকেও অভিনয় করেছেন। বিশেষ করে ‘এই শহরে কেউ নেই’ টেলিফিল্মটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ, অন্যান্য নাটকের মধ্যে ছাত্র, ছোট ছেলে অন্যতম।

৫। ইরফান সাজ্জাদ: গত কয়েক বছর ধরেই নিয়মিত অভিনয় করে যাচ্ছেন তিনি, তবে তাঁর প্রতি যে অভিযোগ সেটা এইবার অনেকটাই ভেঙেছেন, সাথে প্রচুর কাজও করেছেন। তাঁর অভিনীত নাটকগুলির মধ্যে হ্যালো ১১১ লাভ ইমারজেন্সী, অমিত্রাক্ষর, চশমায় লেগে থাকা ভালোবাসা, চলছে চলবে, বোন অন্যতম।

এছাড়া অনেকদিন পর চিত্রনায়ক রিয়াজ বেশ আলোচনায় এসেছেন, তাঁর অভিনীত প্রবাসীদের নিয়ে নাটক ‘কলুর বলদ’ প্রবাসীরা ব্যাপকভাবে গ্রহণ করেছেন। উনার আরেকটি নাটক ‘কবির হোসেন একজন কাপুরুষ’ ও প্রশংসিত হয়েছে।

অন্যান্য অভিনেতাদের মধ্যে জাহিদ হাসান(দুলু বাবুর্চি), আজাদ আবুল কালাম(নাইট ওয়াচম্যান), মাহফুজ আহমেদ(নীল গ্রহ), চঞ্চল চৌধুরী(সুগন্ধ্যা বোডিং ও তুমি), তানভীর(সবার ই কিছু দুঃখ থাকে), জন কবির (সব সত্যি মিথ্যে নয়), ইরেশ যাকের(নোঙর ফেলি ঘাটে ঘাটে), এলেন শুভ্র(বাবার জুতা) মোটামুটি আলোচনায় এসেছেন।

আলোচিত পাঁচ অভিনেত্রী-

১। মেহজাবীন: টিভি নাটকের এই জনপ্রিয় তারকা অভিনেত্রী হিসেবে যেন দিনদিন পরিনত হচ্ছেন, এই ঈদেই তিনি নিজেকে ভেঙেছেন চিরাচেনা রুপ থেকে, সফল ও হয়েছেন। ঈদের সেরা নাটক ‘ফেরার পথ নেই’ তে অনবদ্য অভিনয়ে দর্শকদের অবাক করেছেন, এছাড়া সবচেয়ে জনপ্রিয় নাটক ‘বুকের বা পাশে’ নাটকেও মুগ্ধতা ছড়িয়েছেন। এই দুইটি ছাড়াও এই ঈদে তাঁর বেশ কয়েকটি নাটক আলোচিত হয়েছেন এর মধ্যে কতটা পথ পেরোলে, অমিত্রাক্ষর, সিনেমা জীবন অন্যতম।

২। তিশা: টিভি ইন্ডাস্ট্রির অন্যতম সেরা জনপ্রিয় অভিনেত্রী তিশা। জনপ্রিয়তা ও অভিনয়ে নিজেকে করেছেন অনন্যা। এই ঈদেও প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন, তার বড় প্রমান ‘জেনিফার তুমি রক্ত গোলাপ’ নাটকে দুর্দান্ত অভিনয়, এছাড়া আলোচিত কাজের মধ্যে কবিতার মতো গল্প, মাছের দেশের মানুষ, চলছে চলবে, সুপারস্টারের সুপার ওয়াইফ অন্যতম।

৩। জাকিয়া বারী মম: অভিনয় জগতে এই মুহুর্তে যে কয়েকজন মেধাবী অভিনেত্রী পাওয়া যায়, তাঁর মধ্যে তিনি অন্যতম। এই ঈদে তিনি প্রশংসিত হয়েছেন ‘পরশ’ টেলিফিল্মে অভিনয় করে, এছাড়া দেবদাসের আধুনিক রুপ ‘জলসাঘর’ এ চন্দ্রমুখীর চরিত্রে অভিনয় করে চমক দেখিয়েছেন। তাঁর অভিনীত আরেকটি আলোচিত নাটক শিহাব শাহিনের ‘শেষ পর্যন্ত’। বাকি নাটকগুলোর মধ্যে আনমনে তুমি, অচেনা অতিথি অন্যতম।

৪। সাবিলা নূর: নবীন প্রজন্মের তারকাদের মধ্যে চমক দেখিয়েছেন এই আলোচিত অভিনেত্রী। ঈদে প্রচারিত শাড়ী ও কিছু দু:খ সবারই থাকে নাটকে অভিনয় করে নন্দিত হয়েছেন। এছাড়া তাঁর অভিনীত নাটকের মধ্যে টকিং মেশিন, গল্পটা মোটামুটি আলোচিত হয়েছে।

৫। তানজিন তিশা: এই ঈদে যারা প্রচুর কাজ করেছেন তিনি হলেন তাদের একজন। অভিনেত্রী হিসেবেও বেশ উন্নতি হয়েছে তাঁর, সামাজিক ইস্যু নির্ভর টেলিফিল্ম ‘এই শহরে কেউ নেই’ তে অভিনয় করে প্রশংসিত হয়েছেন। এছাড়া এক মাবরুর রশিদ বান্নাহরই অনেকগুলো নাটকে অভিনয় করেছেন, এর মধ্যে হোম টিউটর, ব্রাজিল ভার্সেস আর্জেন্টিনা, বোন, চশমায় লেগে থাকা ভালোবাসা, মানুষ,ছাত্র অন্যতম।

এছাড়া গুণী অভিনেত্রী দিলারা জামান এই ঈদে নতুন ভাবে আলোচিত হয়েছেন, উনি সব নাটকেই গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে সুযোগ পেয়েছেন, এর মধ্যে সব মিথ্যে সত্যি নয়, আমার সন্তান থাকে যেন দুধে ভাতে, কলুর বলুদ, গুলনাহার অন্যতম।

অন্যান্য অভিনেত্রীদের মধ্যে অপি করিম (নীল গ্রহ), পূর্ণিমা (হ্যালো ১১১ লাভ ইমারজেন্সী), মিথিলা(নীরার নীল আকাশ), অপর্ণা(বন্ধন), মোনালিসা(হয়তো তোমারই কাছে যাবো), সাফা কবির(সুখ) দর্শকালোচিত হয়েছেন।

Comments
Spread the love