গত ৪ বছর ধরে ধানমন্ডি-৩২ দিয়ে যাওয়া আসা আমার প্রতিদিনের রুটিন। সবসময় সেখান দিয়ে যাই আর শুধু চিন্তা করি একদিন যদি একটু ভিন্নভাবে ধানমন্ডি-৩২ কে দেখতে পেতাম! দেখেছিলামও বটে, যখন মেয়র আনিসুর রহমান পরিষ্কার ঢাকা অপারেশনে নেমেছিলেন। কিন্তু সেই সুদিন ছিল খুবই অল্প দিনের জন্য।

আসল কথায় আসি। ধানমন্ডি-৩২ একটি গুরুত্বপূর্ণ স্পট। পাশেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের বাড়ি। প্রায়ই নিশ্চয়ই ভিআইপি মানুষজন আসেন। তাঁরা কখনো দেখেছে কিনা জানি না। কিন্তু ঐ পথ দিয়ে যাওয়া আসা করতে গেলে নাক হাত দেয়া ছাড়া চলা যায় না। অনেকটা জায়গা জুড়ে (অস্থায়ী!) ময়লার ডাস্টবিন। এদিক সেদিক ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে ময়লা। তাকানো যায় না, বাজে গন্ধে টিকা যায় না। তবু প্রতিদিন হাজারখানেকের বেশী মানুষ এই পথ দিয়ে হেঁটে, রিকশা দিয়ে, বাস, গাড়ি দিয়ে চলাচল করে। কিছু তো আর করার নাই, আমরা সবকিছু মেনে নেই। কিন্তু এই মেনে নেয়াটা আমাদের ক্ষতির কারন হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

আমরা সবাই নিশ্চয়ই জানি যত্রতত্র ভাবে পড়ে থাকা এই ময়লা থেকে আমাদের নানারকম অসুখ হতে পারে। এছাড়াও এইভাবে একটি চলন্ত রাস্তায় যেখানে প্রতিদিন অনেক মানুষের যাতায়াত সেখানে যদি ময়লার ডাস্টবিন থাকে দেখতে কেমন লাগবে? দেখতে কেমন লাগবে এই কথা না হয় বাদ দিলাম। এই ময়লা আবর্জনার জন্য যে রাস্তায় অকারনেই গাড়ি গুলো জটলা বেঁধে যায় এটা কি আমরা কখনো ভেবেছি? এক পাশে মানুষ হেঁটে যায়, অন্য পাশে গাড়ি চলে। কিন্তু দুঃখের কথা কোনো পাশের মানুষই আনন্দ নিয়ে থাকতে পারে না। গাড়ির গ্লাসও যদি আটকানো থাকে তবু গ্লাস ভেদ করে গন্ধ গাড়িতে ঢুকে যায়।

একমাত্র আনন্দ পায় সেখানে থাকা মাছি গুলো। আনন্দের সাথে ময়লা খায়। এরপর উড়ে এসে রাস্তার একটু পরেই বিক্রি করা ফুচকা, চটপটি, ভেলপুরি, শরবতের দোকানে ঘুরতে চলে আসে। আমরা কেন দিন দিন বিবেকহীন প্রাণী হয়ে যাচ্ছি আমার জানা নেই। কেউ কি নেই যে এগিয়ে আসবে এই ময়লার ডাস্টবিন উচ্ছেদে? এতে নিশ্চয়ই আমাদের ভালোই হবে।

আমাদের দেশে কয়দিন পরপরই বিদেশ থেকে ভ্রমণে আসেন অনেক অতিথিরা। তাঁরা সকলেই ধানমন্ডি-৩২ এর মুখ্য জায়গাটিতে বেড়াতে আসেন। পুষ্পস্তবক করেন, ঘুরে দেখেন। কিন্তু এই দেশের নাগরিক হিসেবে আমার মাঝে মাঝে অনেক দুঃখ লাগে এই ভেবে যে বিদেশ থেকে আসা অতিথিরা যদি জানতো এইভাবে রাস্তায় ময়লা পড়ে থাকে। জনগনের ভোগান্তি হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আমরা সাধারণ জনগণরা কিন্তু বেশী কিছু চাই না। শুধু শান্তি বাঁচার মতো, নিশ্বাস নেয়ার মতো একটি সুন্দর দেশ চাই। খুব কি বেশী চেয়ে ফেলেছি আমরা?

ধানমন্ডি-৩২ এর এই রাস্তাটা যদি ময়লা আবর্জনা মুক্ত করা যেতো তাহলে সকলের জন্যই অনেক সুবিধা হতো। অকারনে গাড়ি থেমে থাকবে না, রাস্তায় ট্রাফিক একটু হলেও কমবে। পায়ে হাঁটা মানুষ গুলোর নাকে হাত দিয়ে চলতে হবে না। বিশ্বাস করুন দমটা আটকিয়ে রেখে আমিও হেঁটে গিয়েছি বহুবার। আর ভেবেছি এমনও রাস্তা হয় নাকি? আমি অনেক আশাবাদী। একদিন না একদিন এই রাস্তা পরিষ্কার হবে। তখন সাধারণ মানুষগুলো খুশি হয়ে যে দোয়া দিবে তা আজীবন সাথেই থাকবে। তাই তো বলি একটু দৃষ্টি দিয়েই দেখুন খারাপ সিদ্বান্ত হবে না। ময়লার ডাস্টবিনটা যদি সরিয়ে ফেলা যায় তাহলে রাস্তাটার জায়গা একটু বৃদ্ধি পাবে এর সাথে দেখতেও সুন্দর লাগবে। তবে হ্যাঁ, দেশ তো আর একা বদলে যাবে না। যদি না আমরা নিজেরা না বদলাই। বদলে যেতে আর কতো দেড়ি পাঞ্জেরী?

Comments
Spread the love