ডিসেম্বর মাস আমাদের বিজয়ের মাস। তবে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসটা বিজয় ছাড়াও, সিনেমাপ্রেমীদের জন্যে বাড়তি খুশীর আমেজ নিয়ে আসছে এবার। শীতের আগমনীধ্বনি শোনা যাচ্ছে প্রকৃতিতে, সেইসঙ্গে বাদ্য বাজছে নতুন নতুন সিনেমার শুভমুক্তির। বেশকিছু ভালো সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে এই মাসে, নন্দিত সব নির্মাতা তাদের কাজ নিয়ে হাজির হচ্ছেন দর্শকদের সামনে। সেই তালিকায় আছেন তৌকির আহমেদ, মালেক আফসারী, জাকির হোসেন রাজু এবং বদরুল আনাম সৌদের মতো গুণী পরিচালকেরা। চলুন জেনে নেয়া যাক এই মাসে মুক্তি পেতে যাওয়া চলচ্চিত্রগুলো সম্পর্কে।

#হালদা-

তৌকির আহমেদের সিনেমা- এরচেয়ে বড় ট্যাগলাইন বোধহয় আর দরকার পড়ে না ‘হালদা’র জন্যে। বাংলাদেশে এই মূহুর্তে যারা সিনেমা বানাচ্ছেন, তাদের মধ্যে সবচেয়ে মেধাবী পরিচালকদের মধ্যে তৌকিরের নামটা সবার ওপরের দিকেই থাকবে। চট্টগ্রামের হালদা নদী আর নদীর তীরবর্তী জেলেদের জীবনের গল্প তিনি ধারণ করেছেন ক্যামেরায়, এবার সেগুলোই প্রদর্শিত হবে সেলুলয়েডের পর্দায়। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় সংলাপ বলেছেন শিল্পীরা, গানের কথাতেও আঞ্চলিক আবহটা স্পষ্ট। বোঝাই যাচ্ছে, ভিন্ন স্বাদের কিছুই এবার উপহার দিতে যাচ্ছেন নির্মাতা। হালদায় উঠে এসেছে আবহমান বাংলার সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যের নানা দিক। বিভিন্ন চরিত্রে এই সিনেমায় অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান, মোশাররফ করিম, তিশা, ফজলুর রহমান বাবু, দিলারা জামান প্রমুখ। ডিসেম্বরের প্রথম দিনেই প্রায় একশো সিনেমা হলে মুক্তি পাচ্ছে হালদা, এটির পরিবেশনায় আছে অভি কথাচিত্র।

#অন্তর জ্বালা-

মালেক আফসারীকে ধরা হয় বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ইতিহাসের অন্যতম মেধাবী এবং বাণিজ্যিকভাবে সফল এক নির্মাতা হিসেবে। এই ঘর এই সংসার, ধনী-গরিব, ক্ষতিপূরণ, ঘৃণা, লাল বাদশা, জেল থেকে বলছি, ফুল এন্ড ফাইনালের মতো ব্যবসাসফল সিনেমা বানিয়েছেন তিনি, এজন্যে তাকে মাস্টার মেকারও বলা হয়। নতুন সিনেমা অন্তর জ্বালা নিয়ে আসছেন ১৫ই ডিসেম্বর, অভিনয় করেছেন জায়েদ খান এবং পরিমনি। প্রযোজনা করেছেন জায়েদ খান নিজেই। যদিও মালেক আফসারীকে এবার সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে চরিত্র বাছাইয়ের কারণে, তবে নিজের ওপর অগাধ আস্থা আছে পরিচালকের। তিনি তো বাজীই ধরেছেন, অন্তরজ্বালা হিট না হলে সিনেমা বানানোই ছেড়ে দেবেন! দেখা যাক, তার কথা কতটা ফলে! আত্মবিশ্বাস নাকি মিথ্যে বাহাদুরী, সেটা সিনেমা মুক্তি পেলেই পরিস্কার হবে। প্রায় দেড়শোর বেশী সিনেমা হলে একযোগে মুক্তি পাবার কথা রয়েছে ‘অন্তর জ্বালা’র।

#ভালো থেকো-

ঢাকা অ্যাটাকের পর আরিফিন শুভ আবার আসছেন বড়পর্দায় দর্শকদের মাতিয়ে তুলতে, এবার সঙ্গে আছেন নবাগতা তানহা তাসনিয়া। জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত রোমান্টিক ঘরানার এই সিনেমায় আরও আছেন মিশা সওদাগর। বাইশে ডিসেম্বর মুক্তি পাবে এই সিনেমাটি। এই সিনেমাটিও প্রযোজনা এবং পরিবেশনায় আছে দ্য অভি কথাচিত্র। তবে প্রযোজক-পরিচালকের দ্বন্দ্বের কারণে বেশ ক’বার খবরের শিরোনাম হয়েছে ‘ভালো থেকো’। ২০১৬ সালে শুটিং শুরু হলেও আলোর মুখ দেখতে প্রচুর সময় নিচ্ছে সিনেমাটি। তবুও আশার কথা, অবশেষে মুক্তি পেতে চলেছে ‘ভালো থেকো’!

#গহীন বালুচর-

অক্টোবরে মুক্তি পাবার কথা থাকলেও, ঢাকা অ্যাটাকের দারুণ জনপ্রিয়তার কারণে নিজের সিনেমার মুক্তি পিছিয়ে দিয়েছিলেন পরিচালক বদরুল আনাম সৌদ। বন্ধুর সঙ্গে টক্করে যেতে চাননি সেই সময়ে। তার এই সিদ্ধান্ত প্রশংসা কুড়িয়েছে বেশ। মুক্তির নতুন তারিখ দেয়া হয়েছিল ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে, সেই অনুযায়ী ২৯শে ডিসেম্বর সিনেমা হলে আসছে সরকারী অনুদানে নির্মিত ‘গহীন বালুচর’। নদীর চর দখলকে নিয়ে সিনেমার গল্প, এরমাঝেই ত্রিকোণ প্রেমের ছক এঁকেছেন পরিচালক। অভিনয় করেছেন রাইসুল ইসলাম আসাদ, সুবর্ণা মোস্তফা, ফজলুর রহমান বাবু’র মতো গুণী অভিনেতারা। এছাড়া কেন্দ্রীয় চরিত্রে নেয়া হয়েছে তিন নতুন মুখ তানভীর, নীলাঞ্জনা নীলা এবং জান্নাতুন নূর মুন। সেন্সরবোর্ড থেকেও বিনা কর্তনে ছাড় পেয়েছে গহীন বালুচর।

বাংলা সিনেমার সুদিন ফেরা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা হয় প্রচুর। একটা ভালো সিনেমা এলে চলচ্চিত্রভিত্তিক গ্রুপগুলোতে সাজ সাজ রব পড়ে যায় অনেকটা, কারণ ছোট্ট এই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রীতে ভালো সিনেমার দেখাই মেলে কদাচিৎ। তবে এই মাসটা বেশ ব্যতিক্রম, একই মাসে বেশকিছু ভালো সিনেমা আসছে, যেগুলোতে ক্যামেরার সামনে-পেছনে দুই জায়গাতেই আছেন মেধাবী সব মানুষজন। এখন অপেক্ষা সিনেমাগুলো মুক্তি পাবার, প্রত্যাশা আর প্রাপ্তির সমীকরণ মেলাতে হলে যেতে হবে সিনেমা হলে, দেখতে হবে সিনেমাগুলো। দর্শক হিসেবে আমাদেরও তো দায় আছে এই শিল্পটাকে এগিয়ে নিয়ে যাবার, নিজেদের দায়িত্বটা পালন করার মাধ্যমে ভূমিকা রাখতে হবে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের উন্নয়নে। তবেই না প্রত্যাশিত সুদিন ফিরে আসবে আবার!

Do you like this post?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-