‘দাঙ্গাল’- যে গল্প জেদ, নারীবাদ আর স্বপ্নজয়ের

Ad

‘দাঙ্গাল’ মুভির স্ক্রিনপ্লে বলিউডের ফাস্ট পেস মুভির সাথে যায় না। যাদের বিভিন্ন দেশের স্পোর্টস মুভি দেখে অভ্যাস আছে তাদের স্লো লাগবে না। তবে উপমহাদেশীয় মালমশল্লা এড করা আছে কিছু টার্গেট অডিয়েন্সের কথা চিন্তা করে। গল্পের সাথে কানেক্ট করতে পারা, কমেডি-গান-ভিলেনস্বরূপ চরিত্র সৃষ্টি করা, সফলভাবে মার্কেটিং করা ইত্যাদি কারণে ভারতের অন্যতম ব্যবসাসফল মুভি হবে। আমির খান ছাড়া অন্য কেউ এই মুভিতে হাত দিলে একে তো গল্পের সাথে জাস্টিস করতে পারতো না, দ্বিতীয়ত এতো চমৎকারভাবে মুভি বেচতে পারতো না

আমির খানকে প্রথমেই গ্র্যান্ড স্যালুট। না…না অভিনয়ের জন্য না। অভিনয়ের জন্য কেবল প্রশংসা। গ্র্যান্ড স্যালুট দিলাম নিজের চরিত্রের চেয়ে তার মেয়ে চরিত্রকে বেশি প্রাধান্য দেয়ার মতো সাহস রাখার জন্য। তিনি এই সাহস রেখেছেন কারণ গল্পই সেটা ডিমান্ড করে। আর আমির গল্পের সাথে কখনোই কম্প্রোমাইজ করেন না। ফাতিমা সানা শেখ আর সানিয়া মালহোত্রা রেভেলেশন, সানিয়ার কাজ আগে দেখেছি এবং ও বেশি সুযোগও পায় নি এই মুভিতে কিন্তু ফাতিমা জাস্ট অসাধারণ কাজ করেছে। আমার ছোটবেলার ছোট্ট ফাতিমাকে দেখেছিলাম ‘চাচি ৪২০’-এ কমল হাসানের সাথে, কমল সাহেবের আদ্ধেক পেলেও অনেক দূর যাবে এই মেয়ে। কাস্টিং ডিরেক্টরের জন্য ভালোবাসা। প্রতিটা ক্যারেক্টার ব্যাং অন। গীতার ছোটবেলার চরিত্রে অভিনয়কারী জারা অসাধারণ ছিল। আমিরের স্ত্রী হিসেবে অভিনয় করা নাট্যজগতের অসাধারণ একজন অভিনেত্রী সাক্ষী তানওয়ার, আমিরের ভাতিজার চরিত্রে অভিনয় করা আয়ুষ্মান খুরানার ভাই অপরশক্তি খুরানা, ন্যাশনাল রেস্লিং টিমের কোচ হিসেবে গিরিশ কুলকারনি প্রমুখ সবাই যার যার চরিত্রে পারফেক্ট ছিল।

‘দাঙ্গাল’ আমিরের সেরা কাজ না, আমিরের সেরা সিনেমা না। কিন্তু এই মুভি আমিরের ক্যারিয়ারের টারনিং পয়েন্ট হয়ে থাকবে, টারনিং পয়েন্ট হবে বলিউডের জন্যও। আমিরের জন্য হবে কারণ ওর কন্টেম্মপরারি কোন সুপারস্টার সাহসও করে না বয়স বাড়িয়ে কোন সিনেমা করার, এমনকি পেট মোটা দেখাতে হবে এই নিয়ে এক নায়কের কতো তালবাহানা। অথচ সকল নম ভেঙ্গে আমির মোটা পেট, আর সাদা চুল-দাঁড়ি নিয়ে পুরো মুভি করে ফেললেন। এরপরে আমির যদি কলেজ ছাত্রের ভুমিকায়ও অভিনয় করে তাহলেও দর্শক মেনে নেবে তাকে কারণ আমিরের কাজের ওপর আস্থা সৃষ্টি হয়ে গেছে সবার। আমিরের চেয়ে স্টারডম বেশি থাকতে পারে কারো, আমিরের চেয়ে আর্থিকভাবে সফল হতে পারে কারো মুভি, কিন্তু আমির খানের মতো কনভিন্সিং পাওয়ার নেই কোন বলিউড তারকার।

‘দাঙ্গাল’ একইসাথে কুস্তি এবং বাবা-মেয়ের সম্পর্কের টানাপোড়েনের মুভি। দর্শক এই মুভি দেখলে হরিয়ানার প্রত্যন্ত অঞ্চলের এক পরিবারের, একজন কুস্তিগির বাবার স্বপ্নের, মেয়েলি বালখিল্যতার, স্বপ্নকে বাস্তবে রুপ দেয়ার সত্য ভিত্তির সন্ধান যেমন পাবেন; তেমনি উপমহাদেশে ক্রিকেট, কিছু অর্থে ফুটবল ছাড়া অন্যান্য খেলাগুলোর প্রতি প্রশাসনের উদাসীনতা ও কুস্তির মতো ঐতিহ্যবাহী খেলার প্রতি অবিচারের স্বরূপও সামনে আসবে। এরকম মুভি আরও হওয়া উচিত, বিশেষ করে খেলাধুলায় মেয়েদের অবদান প্রান্তিক অঞ্চলের মানুষদের নতুন করে ভাবতে শেখাতে পারে চলচ্চিত্রের মতো শক্তিশালী মাধ্যম ব্যবহার করে। তাহলেই না এরকম গীতা-ববিতা, কলসিন্দুরের মেয়েদের মতো সাহসী স্বপ্নবাজ মেয়ে উঠে আসবে আর দেখিয়ে দেবে বিশ্বকে, বলবে- মেয়েরা ছেলেদের চেয়ে কম কিছু নাকি বে?

1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (3 votes, average: 4.33 out of 5)
Loading...
Ad

এই ক্যাটাগরির অন্যান্য লেখাগুলো

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-

Ad