ফিল্ডিঙে দুর্দান্ত দুটো ক্যাচ ধরেছেন, তবুও দিনের শেষে মুশফিকুর রহিম খলনায়কের আসনে। খলনায়কের আসনে বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং লাইন-আপ। ২২২ রানে শ্রীলঙ্কাকে বেঁধে রেখে যে তৃপ্তিটা পাওয়া গিয়েছিল, সেটাই দিনশেষে দুশ্চিন্তায় রূপ নিয়েছে শেষ ব্যাটিং ধ্বসের পরে। ৫৬ রানে চার উইকেট হারিয়ে দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ দল, বড় লিডের স্বপ্নটা এখন ধূসর প্রায়, বরং শ্রীলঙ্কাই বড়সড় লিড পেয়ে যায় কিনা, জেঁকে বসেছে সেই আশঙ্কাই।

যে চারজন ব্যাটসম্যান আউট হয়েছেন, কেউই খুব দারুণ কোন বলে পরাস্ত হননি। বরং কারো কারো আউট দেখে ক্রিকেট সেন্স নিয়েই প্রশ্ন উঠতে পারে। একটা ইনিংসের আউট দেখেই এই ধরণের প্রশ্ন তোলাটা উচিত নয়, কিন্ত উইকেট বিলিয়ে দিয়ে এলে সমালোচনা হবেই।

তামিম আউট হলেন লাকমলের বলে, কট এন্ড বোল্ড। ফ্রন্ট ব্যাটেই খেলেছিলেন শটটা, ঠিকঠাক লাগাতে পারেননি। লাগলে বল যে সীমানাছাড়া হতো, তাতে সন্দেহ নেই খুব একটা। সেই ওভারেই একটা চার মেরেছেন, আরেকটা মেরে হয়তো বোলারের আত্মবিশ্বাস গুঁড়িয়ে দিতে চেয়েছিলেন, যাই হোক, ফলটা শুভ হয়নি। তবে তামিমের খেলার ধরণ এটাই, এভাবেই তিনি সেট হন, বোলারের ওপর প্রভাব বিস্তার করাটা তার স্বভাবের অংশ।

মমিনুল আউট হলেন হাস্যকরভাবে, রানআউট। আগের টেস্টের দুই ইনিংসেই সেঞ্চুরী করেছিলেন তিনি, কিন্ত ঢাকায় এসে মনযোগ বিচ্ছিন্ন হলো তার। কেউ কেউ বলতে পারেন, একা মমিনুল দলকে কত টানবেন! দুটো সেঞ্চুরী চট্টগ্রামেই রেখে এসেছেন মমিনুল, ঢাকায় একটা নতুন টেস্ট, ফ্রেশ একটা আলাদা ম্যাচ। আর সমস্যাটা শুধু মমিনুলের আউটে নয়, বাংলাদেশ দল অনেকদিন ধরেই রানিং বিটুইন দ্য উইকেটে দুর্বলতায় ভুগছে। তামিম আউট হয়ে গেছেন, হাল ধরার এই সময়টায় হাস্যকর রানআউটের ব্যাখ্যা নেই কোন। ব্যাটটাকে মাটির ওপরে তুলে কেনইবা দৌড়াতে হবে, সেই প্রশ্নেরও নেই কোন জবাব!

ব্যাটিং কলাপ্স, বাংলাদেশ বনাম শ্রীলঙ্কা টেস্ট সিরিজ, মুশফিকুর রহিম

দিনের সবচেয়ে দৃষ্টিকটু উইকেটটা মুশফিকের। লাকমলের ওভারের আগের দুটো বলেও দেখেশুনে ছেড়ে দিয়েছেন, বিপদ হতে পারতো সেই দুই বলেও, এদের যেকোন একটাই ভেতরে ঢুকে উইকেট ভেঙে দিতে পারতো। সেটা হয়নি। তখন, কিন্ত সেগুলো থেকে কোন শিক্ষাও নেননি টেকনিক্যালি বাংলাদেশের অন্যতম সলিড এই ব্যাটসম্যান। স্ট্যাম্পটা ভেঙে যেতে দেখেছেন শুধু, আর কিছু তো করার ছিল না তখন। যখন করতে পারতেন, তখন কেন করেননি সেটাই একটা প্রশ্ন। দলের বিপর্যয়ের মুখে মুশফিকের ভেঙে পড়ার সাক্ষী হতে হলো আরও একবার।

দিলরুয়ান পেরেরার আগের বলটাই অনেকখানি টার্ন করে বেরিয়ে গিয়েছিল। ইমরুল কায়েস সম্ভবত ভাবেননি যে পরের বলটা সোজাসুজি ছুটে আসতে পারে, কিংবা ভেতরে ঢোকাতে পারেন বোলার। মেন্টাল গেমে আরও একবার ইমরুলের হার, উইকেটটা দিতে হলো মাশুল হিসেবে। দুসরা টুসরা কিছুই না, কোন মায়াবী ডেলিভারীও না, সোজা পড়া সামান্য কুইকার বলটাতেই পরাস্ত হলেন ইমরুল, ফাঁদে পড়লেন লেগ বিফোরের। ব্যাটের টাইমিংটাও জুতসই হয়নি, খেসারত দিতে হয়েছে সেটারও। ফলাফল, পঁয়তাল্লিশ রানে বাংলাদেশের চতুর্থ উইকেটের পতন!

বোলিং আক্রমণ পুরোপুরি স্পিন-নির্ভর। এরমধ্যেও মুস্তাফিজ শিকার করেছেন দুটো উইকেট, সমান চার উইকেট করে ঝুলিতে পুরেছেন রাজ্জাক আর তাইজুল। ২২২ রানে শ্রীলঙ্কাকে অলআউট করা গেছে দেখে দুর্দান্ত বোলিং হয়েছে ভাবার কারণ নেই, বোলিং ভালো হয়েছে, কিন্ত দারুণ আহামরি কিছু নয়। ভালো ডেলিভারি যেমন দিয়েছেন বাংলাদেশের বোলারেরা, তেমনই প্রচুর লুজ ডেলিভারিও করেছেন। ব্যাটসম্যানকে বোকা বানিয়েছেন, ফাঁদে ফেলে উইকেট তুলে নিয়েছেন, আবার একের পর এক বাজে জায়গায় বলও করেছেন।

ব্যাটিং কলাপ্স, বাংলাদেশ বনাম শ্রীলঙ্কা টেস্ট সিরিজ, মুশফিকুর রহিম

২২২ রানের মধ্যে লঙ্কান ব্যাটসম্যানেরা বাউন্ডারি থেকেই নিয়েছেন ১১০ রান! বোলিং-এর অবস্থা এই ভালো এই খারাপ। অনেকবারই প্রতিপক্ষকে চেপে ধরার সুযোগ থেকে নিজেদের বঞ্চিত করেছেন বোলারেরা। লঙ্কান ব্যাটসম্যানদের যেমন বোকা বানিয়েছেন, ফাঁদে ফেলেছেন, তেমনই আবার নিজেরাও বাজে বল করে রান উপহার দিয়েছেন। লাইন-লেন্থের অভাবটা চোখে পড়েছে বেশ কয়েকবারই।

ফিল্ডিং এর অবস্থাও একই, দারুণ ক্যাচ নিয়েছেন ফিল্ডারেরা, বিশেষ করে মুশফিক, আবার রুটিন মেনে স্লিপে ক্যাচ পড়েছে প্রতিবারের মতোই।

এইটুকু পর্যন্ত মেনে নেয়া যেতো, কিন্ত বাজে ব্যাটিংটাই আজকের দিনে শূল হয়ে বিঁধে আছে মনে। এমন ব্যাটিং কলাপ্স, এমন হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ার শেষ কোথায়, কেউ জানেনা! এরমধ্যে খানিকটা আলো ছড়িয়েছেন লিটন দাস, ধ্বংসস্তুপে দাঁড়িয়ে একাই লড়ে গেছেন, খানিকটা প্রতিরোধ ফুটে উঠেছে তার ব্যাটেই। যদিও শুরুতে নড়বড়ে ছিলেন তিনিও।

সংবাদ সম্মেলনে রাজ্জাক বলছিলেন, পিচে আহামরি টার্ন ছিল বলে মনে হয়নি তার কাছে। বিশাল আনপ্লেয়েবল কোন উইকেটও ছিল না আজকের মিরপুরে। তাই ৫৬/৪ স্কোরকার্ডের ব্যাখ্যাটাও অজানাই রয়ে যাচ্ছে। ব্যাটসম্যানদের দায়টা বেড়ে যাচ্ছে এখানেই।

Do you like this post?
  • Fascinated
  • Happy
  • Sad
  • Angry
  • Bored
  • Afraid

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন-