অপু বিশ্বাসকে নিয়ে অন্তত এবার ট্রল নয়!

নিউজ ২৪ এর লাইভে আমি “কাল সকালে” সিনেমা দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করা নায়িকা অপু বিশ্বাসকে দেখছিলাম না, আমি দেখছিলাম একজন মাকে। পৃথিবীর সকল জায়গায় সম্ভবত মায়েদের রূপ একইরকম হয়। সন্তানের জন্য তারা কাঁদেন। তাদের পুরো পৃথিবী একদিকে আর সন্তান একদিকে। তারই চাক্ষুষ প্রমাণ দেখছিলাম আমি নিউজ ২৪ এর লাইভে। গত বছরের মার্চ থেকে অপু নিখোঁজ, কোথাও তার খবর নেই। যার সাথে জুটি হয়ে সবচেয়ে বেশি সিনেমা করেছেন তিনি, সেই শাকিবকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বারবার…

"অপু বিশ্বাসকে নিয়ে অন্তত এবার ট্রল নয়!"

কতটা ভালো সিনেমা হলো সত্তা?

সিনেমার টিজার যেদিন প্রথম দেখেছিলাম, সেদিনই কিছুটা নড়েচড়ে বসেছিলাম। শাকিব খান বেশিরভাগ সময় যেখানে নায়িকা আর ভিলেনকে নিয়ে টানাটানি করেন, সেখানে সম্ভবত প্রথমবারের মতো তাকে ক্রমাগত ধোঁয়া টানতে দেখেছিলাম সত্তা সিনেমার টিজারে- যা দেখে আঁচ করতে অসুবিধা হয় না যে এটা টিপিকাল শাকিব খানের সিনেমা হবে না। সেটাই হয়েছে। কিন্তু কতটা ভালো সিনেমা হয়েছে সত্তা? কাহিনী নেয়া হয়েছে সোহানি হোসেনের মা নামক ছোটগল্প থেকে। ছোটগল্পকে টেনে ২ ঘণ্টার ২৩ মিনিটের সিনেমা বানানো কম ঝক্কি না।…

"কতটা ভালো সিনেমা হলো সত্তা?"

পাওয়া না পাওয়ার স্বাধীনতা

ছোটবেলায় সব কিছু থাকলেও, স্বাধীনতা জিনিসটা ছিল না। ছিল না বললে ভুল হবে। যেসব জিনিস পছন্দ করতাম, সেগুলোতে ছিল না। যেগুলোতে আজন্ম অনীহা, সেগুলো যত ইচ্ছে তত করার স্বাধীনতা ছিল। আর এই জিনিসটাই আমি মেনে নিতে পারতাম না। উদাহরণ ভালো জিনিস। উদাহরণ দিলে বুঝতে সুবিধা হবে। টিভি দেখতে খুব পছন্দ করতাম। সিন্দাবাদের ইন্ট্রো মিউজিক শুনলে সবার আগে কান খাড়া করে ফেলতাম। ঐসময়ে আমার কানের শ্রবণ ক্ষমতা সম্ভবত কুকুরের চেয়েও বেশি হয়ে যেত। কিন্তু লাভ হতো…

"পাওয়া না পাওয়ার স্বাধীনতা"

শুভ জন্মদিন আমির খান

বয়স যখন ১৭, তখন নিজের বাবা আর মায়ের সামনে তিনি বোমাটা ফাটালেন। বোমাটা ছিল, “আমি আর পড়াশুনা করব না, সিনেমাতে কাজ করব।” বোমার বিস্ফোরণ দেখে বাবা তাহির হুসেন হতভম্ব হয়ে গেলেন! অথচ এরকম হওয়ার কথা না, কারণ তিনি নিজেই ছিলেন ফিল্ম প্রোডিউসার আর ডিরেক্টর। কিন্তু সদ্য ইন্টার পাশ শেষ করা ছেলের মুখে তিনি কিছুতেই এই কথা মেনে নিতে পারছিলেন না। তার স্ত্রীও মেনে নিতে পারলেন না। কিন্তু ছেলে অনড় তার সিদ্ধান্তে। এবার হুঙ্কার এল- আরে…

"শুভ জন্মদিন আমির খান"

আমাদের একজন হুমায়ূন ফরীদি ছিলেন…

লেখাটি মূলত হুমায়ূন ফরীদির জীবনের কিছু ঘটনা নিয়ে যা বেশিরভাগ মানুষের কাছেই অজানা, আবার অনেকে জেনেও থাকতে পারেন। তথ্যগুলো যোগাড় করতে আমার কি পরিমাণ কষ্ট হয়েছে, সেটা শুধু আমি জানি। বাংলাদেশ বলে কথা, এখানে শিল্পীর মূল্য দেয়াটা স্রেফ দুঃস্বপ্নের মতো! ইউটিউবে সার্চ করলে পাচিনো, ক্যাপ্রিও, অমিতাভ বচ্চন, আমির খান, শাহরুখ খানের এক সপ্তাহে দেয়া যেই পরিমাণ সাক্ষাৎকারের ভিডিও পাই, ফরীদির সারা জীবনের দেয়া সাক্ষাৎকারের ভিডিওর পরিমাণ তাদের এক সপ্তাহের সমান হয় না! আফসোস! অথচ মানের দিক…

"আমাদের একজন হুমায়ূন ফরীদি ছিলেন…"

শুভ জন্মদিন গালে টোল পড়া হাসির মেয়ে প্রীতি জিনতা

আর্মি অফিসার বাবা চেয়েছিলেন তার মেয়ে এমন কিছু করুক- যেটা ডিফারেন্ট, অন্য দশটা কাজের থেকে আলাদা। মেয়েও সেটাই চাইতেন। তবে চাওয়ার সাথে পাওয়ার মিল তার বাবা দেখে যেতে পারেননি। মেয়ের বয়স যখন মাত্র ১৩, তখন তার বাবা রোড এক্সিডেন্টে মারা যান, সেই গাড়িতে মেয়ের মাও উপস্থিত ছিলেন। বাবা তো চলে গেলেন না ফেরার দেশে, মা বেঁচে গিয়েও মরে রইলেন, এই ঘটনার পর তিনি বিছানাতে চিরস্থায়ীভাবে বন্দী হলেন। বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে তার মিষ্টি হাসি দেখে তাকে…

"শুভ জন্মদিন গালে টোল পড়া হাসির মেয়ে প্রীতি জিনতা"

রাজকুমার হিরানি- কতটা ভাল ডিরেক্টর?

হেডলাইন দেখেই বেশিরভাগের চমকে ওঠার কথা। অনেকের হয়তো সিনেমানুভুতিতে আঘাত লেগে গেছে অলরেডি। অনেকে হয়তো হাতের মুঠো শক্ত করে ফেলেছেন, অনেকের হয়ত মুখে প্রায় গালি চলে এসেছে। অনেকে হয়তো ইতিমধ্যেই বলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন- বলিউড এর বেস্ট ডিরেক্টর হলেন হিরানি- আর তুই কিনা ব্যাটা তার সিনেমা নিয়ে সন্দেহ করিস? সিনেমা বুঝিস কিছু? আমি বুঝি কি বুঝিনা, সেটা নিয়ে আরেকদিন আলোচনা হবে। আপাতত আমি আমার যুক্তিগুলো তুলে ধরতে চাই। আশা করি যুক্তি শোনার পরে লাইক দিয়ে পাশেই…

"রাজকুমার হিরানি- কতটা ভাল ডিরেক্টর?"

শুভ জন্মদিন জিম ক্যারি!

গভীর রাত। শহরের প্রায় প্রতিটি মানুষ তখন গভীর ঘুমে অচেতন। আট বছরের এক ছেলের চোখে শুধু ঘুম নেই। বিছানায় শুয়ে সে নিজের জুতোজোড়া পরে একদম রেডি। ততদিনে তার জানা হয়ে গেছে, রাতের বেলা শান্তিমত ঘুমানোর কপাল নিয়ে সে এই পৃথিবীতে আসেনি। যদিও তাতে তার কিচ্ছু যায় আসে না, বরং সে খুশি! একটু পরেই পাশের রুম থেকে গোঙানির আওয়াজ আসতে লাগলো। ছোট ছেলে লাফ দিয়ে বিছানা থেকে উঠল। এই গোঙানিই তার জন্য সংকেত। তাকে এখন পারফর্ম…

"শুভ জন্মদিন জিম ক্যারি!"

শাকিব খানরা সময়ানুবর্তীতা মেনে চললে সেটা নিউজ হয়!

হ্যাপি নিউ ইয়ার সিনেমার একটা প্রেস কনফারেন্সে শাহরুখ খানসহ সিনেমার বাকি সবাই অনেক লেট করে আসেন। প্রায় চার ঘণ্টার কাছাকাছি সাংবাদিকদের অপেক্ষা করতে হয়। শাহরুখসহ সবাই যখন আসলেন, সাংবাদিকরা ততক্ষণে রেগে আগুন বলতে গেলে। শাহরুখ বারবার মাফ চাইলেন, সরি বললেন, ফারাহ খান থেকে শুরু করে বাকি সবাই সেম কাজ করলেন। কোন লাভ হলো না। এমনকি শাহরুখ এটাও বললেন, সেখানে উপস্থিত সব সাংবাদিককে তিনি আলাদা করে সময় দিবেন, সিনেমা নিয়ে সব ধরনের প্রশ্নের উত্তর দিবেন। তাতেও…

"শাকিব খানরা সময়ানুবর্তীতা মেনে চললে সেটা নিউজ হয়!"

‘আমি আসলে কমার্শিয়াল, নন কমার্শিয়াল টাইপ সিনেমা ভাগ করতে পছন্দ করি না’

সাকিব- রোম্যান্টিক থ্রিলার সিনেমার ক্ষেত্রে যদি আপনাকে সুযোগ দেয়া হয় যে আপনি দেশ বিদেশের যে কাউকে নিতে পারবেন, কাকে নিবেন আপনি? ধরুন সব তৈরি, আপনার বাজেটও দেয়া হলো ঠিকমতো। কাকে নিবেন নায়ক হিসেবে? আদনান- (একটু ভেবে) নায়ক তাহলে মনে হয় আমি ইন্ডিয়া থেকে নিতে পারি। আমার একটু রনবির কাপুর টাইপ একজনকে লাগবে। সাকিব- মানে চকলেট বয়? আদনান- চকলেট বয়, আবার কোনো বডিবিল্ডার নায়ক না। আর নায়িকা যে কাউকে নিতে পারি, এখান থেকে বা কলকাতা থেকে।…

"‘আমি আসলে কমার্শিয়াল, নন কমার্শিয়াল টাইপ সিনেমা ভাগ করতে পছন্দ করি না’"

‘দর্শকদের কাছে টাকা কোনো ইস্যু না, ইস্যু হলো কন্টেন্ট…’

সাকিব- ফেসবুকে শুরুতে আপনার নাম ছিল প্রিয় আদনান ভাই। এই নামের কারণ কি? আবার এই নাম চেঞ্জ করে বর্তমান নাম মানে আদনান আল রাজীব নাম দেয়ার কারণ? আদনান- শুরুতে আমি যখন আসলে ফেসবুকে আসি, তখন ফেসবুক ওয়াজ ফর ফান। তখন তো সবাই ফেসবুকে ছিলও না। আমিও ফেসবুকের ব্যাপারে খুব একটা সিরিয়াস ছিলাম না, জাস্ট এই নামে একটা প্ল্যাটফর্ম আছে, সবার সাথে কানেক্টেড থাকা যায়- এই আর কি। তখন আমার একটা ফ্রেন্ড আমাকে বলল যে- তোমার…

"‘দর্শকদের কাছে টাকা কোনো ইস্যু না, ইস্যু হলো কন্টেন্ট…’"

ভাগ্যিস ১২১ বছর আগে এই দিনটা এসেছিল!

মূল গল্পে যাওয়ার আগে একটু একটু বইয়ের ভাষায় কিছু কথা জানিয়ে রাখি। ‘সিনেমা’ শব্দটি এসেছে গ্রীক শব্দ কিনেমা থেকে। কিনেমা শব্দটির অর্থ গতি। স্পেনের প্রাচিন গুহা আলতামিরার দেয়ালে বাইসনের বেশ কিছু ছবি আবিষ্কৃত হয়েছিল। সেখানে এমন একটি বাইসন দেখা যায় পা ছিল ছয়টি। একটি বাইসনের পা কখনই ছয়টি হওয়ার প্রশ্ন আসে ন, বাইসনের পা চারটি। তাহলে ছয়টি পায়ের ধারণা কীভাবে আসলো প্রাচীন মানুষের মাথায়? বাইসন যখন দৌড়ায় তখন তাকে খালি চোখে দেখলে মনে হয় তার…

"ভাগ্যিস ১২১ বছর আগে এই দিনটা এসেছিল!"