বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধের সময়টা প্রত্যেকটা ছাত্রের জীবনের মহাগুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। এই সময় শুধু পড়ালেখা নিয়েই যে চিন্তার মধ্যে থাকতে হয় তা নয়, কবে ভর্তির ফর্ম পূরণের লাস্ট ডেট, কবে টাকা জমা দেয়ার শেষ তারিখ, কবে ভর্তি পরীক্ষা এসব তথ্য মাথায় রাখাও কম হ্যাপার ব্যাপার না। তার উপর একের অধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে হলে, কি কি পড়তে হবে, কি থাকবে সিলেবাসে, ভর্তির যোগ্যতা কি, কিভাবেই বা দূরের ক্যাম্পাসে যাতায়াত করা যাবে তা নিয়েও চলে কত দ্বিধা, বিভ্রান্তি।

আর ছাত্রছাত্রীদের এসব সমস্যা দূর করতে ভর্তিযোদ্ধাদের এডমিশনের এই সময়টায় সাহায্য করতেই বানানো হয়েছে বিশেষ এই অ্যাপসটি। তিন মাসের নিরলস চেষ্টার পর অ্যাপসটি এখন প্লে স্টোরে উন্মুক্ত করা হয়েছে। এখনো অ্যাপসটিকে আরো কার্যকর ও নির্ভুল করার চেষ্টা চলছে তবে ইতিমধ্যেই অ্যাপসটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিইচ্ছুক ছাত্রদের মাঝে সাড়া ফেলেছে। এই ধরণের উদ্যোগ আরো আগে কেনো আসলো না সেটা নিয়ে অনেকে খানিকটা মন খারাপ করলেও তারা মনে করছেন এই অ্যাপসটি ভবিষ্যতে ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যতে ভর্তি সংক্রান্ত তথ্য প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বেশ উপকার করবে।

অ্যাপসটি তৈরী করেছেন “চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের” ইলেকট্রিকাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের কয়েকজন শিক্ষার্থী। ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ সরকারের একসেস টু ইনফরমেশন অধীনে জাতীয় পর্যায়ে কম্পিট করার জন্য মনোনীত হয়েছে।

নির্মাতারা বলছেন,

“বিশ্ববিদ্যালয়ের আবেদনের জন্য সাইবার ক্যাফেতে দৌড়াদৌড়ি করার ঝামেলা থেকে মুক্তি দেওয়ার লক্ষ্যে তৈরী হওয়া এই অ্যাপসটি আশা করি লাখো স্টুডেন্টের ভরসা হিসেবে জায়গা পাবে।”

অ্যাপসটি ব্যবহারের জন্য প্রথমেই আপনার ফোন নাম্বার, মেইল দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হবে। আর তারপরেই আপনি দেখতে পাবেন অ্যাপসের বিশেষ বিশেষ ফিচারগুলো।

কি আছে এই অ্যাপসটিতে?

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে পাঁচ ভাগে ভাগ করা হয়েছে এই অ্যাপসটিতে। সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়, ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয়, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কৃষি ও ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ। আপনি যে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চান ক্যাটাগরি অনুযায়ী সেখানে ক্লিক করলেই জেনে যাবেন আপনার পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিসংক্রান্ত যাবতীয় হালচাল।

এডমিশন এসিস্ট্যান্ট, অ্যাপস, বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা

প্রত্যেকটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি সার্কুলার দেয়া আছে অ্যাপসটিতে। সার্কুলার বোঝার সুবিধার্থে সহজ ফরম্যাটে নিয়ে আসা হয়েছে এখানে। পাশাপাশি প্রতিটা সার্কুলার প্রকাশের সাথে সাথেই নোটিফিকেশনের মাধ্যমে অ্যাপস ব্যবহারকারীকে জানিয়ে দেয়া হবে। তাই এখন বিভিন্ন ভার্সিটির ওয়েবসাইট কিংবা সোশাল মিডিয়াগুলোতে সার্কুলার খোঁজাখুঁজি করে সময় নষ্ট করতে হবে না।

সবচেয়ে ইউনিক ব্যাপার হলো, এক ফোন দিয়ে একাধিক একাউন্ট খোলা যাবে। ফলে আপনার যে বন্ধুটির এন্ড্রয়েড ফোন নেই চাইলে আপনি তাকেও হেল্প করতে পারবেন। তার জন্য আপনাকে যা করতে হবে- আপনার মোবাইল দিয়ে বন্ধুর নাম্বার দিয়ে আরেকটি একাউন্ট খুলে এসএমএস সার্ভিস অন করে দিলেই বন্ধুর কাছে ও ভর্তি পরীক্ষার সকল ইনফরমেশন পৌঁছে যাবে এসএমএসের মাধ্যমে।

এডমিশন কাউন্টডাউন- এই ফিচারটির মাধ্যমে কোন ভার্সিটির আবেদন কখন শুরু হবে তা একসাথে লিস্ট করে দেয়া আছে। তাছাড়া আপনি দেখতে পাবেন কোন ভার্সিটির আবেদনের শেষ তারিখ কবে। আর কত দিন বাকি আছে এপ্লাই করার এবং তার পাশাপাশি এপ্লাই বাটনে ক্লিক করে কোন ঝামেলা ছাড়া এপ্লাই করার সুবিধা।

আপনার পছন্দমত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ফেবারিট লিস্টেড করে রাখতে পারবেন, ফলে এই বিশ্ববিদ্যালয়কেন্দ্রিক তথ্যের জন্য বিশেষভাবে নোটিফিকেশন পাঠানো হবে।

সাইবার ক্যাফেতে দৌড়াদৌড়ি না করে চাইলে এই অ্যাপস ব্যবহার করেও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আবেদন করা যাবে। কিভাবে? অ্যাপসটিতে “লগ ইন” করার সময় যে সকল ইনফরমেশন দিতে হবে (যেমন- এসএসসি, এইচএসসি রোল, রেজিস্ট্রেশন নাম্বার, বোর্ড, ছবি)। সেগুলোর মাধ্যমে জাস্ট এক ক্লিকের মাধ্যমেই পছন্দের ভার্সিটিতে এপ্লাই করা যাবে। অর্থাৎ আপনাকে প্রতেকবার পছন্দের ভার্সিটিতে এপ্লাই করার সময় একই ইনফরমেশন বারবার দিতে হবে না। শুধু কোন ইউনিটে এক্সাম দিবেন, কোটা আছে কিনা তা সিলেক্ট করেই যে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করার সুযোগ থাকছে। রয়েছে বিকাশ/রকেটের মাধ্যমে এডমিশন ফর্মের ফি প্রদান করার সুযোগ। তবে আপনি এই সুবিধা নিতে না চাইলে শুধু ফোন, ইমেইল দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে অ্যাপসটির বাকি সুবিধাগুলো গ্রহণ করতে পারবেন খুব সহজে।

এডমিশন এসিস্ট্যান্ট, অ্যাপস, বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা

এছাড়া, যখন যে ভার্সিটি এডমিড কার্ড, সিট প্ল্যান, রেজাল্ট পাবলিশ হবে তা সাথে সাথেই দেখতে পাবেন এবং জাস্ট এক ক্লিকেই নিজের তথ্যাবলী জেনে নিতে পারবেন। এছাড়া প্রয়োজনীয় কিছু লিখে রাখার জন্য রয়েছে “নোটপ্যাড”।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধে অচেনা শহরে কিভাবে যাবেন, কোথায় থাকবেন এসব সমস্যা যদি থেকে থাকে, সমাধান আছে তার জন্যেও। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যাতায়াত ব্যবস্থা সম্পর্কে জানতে আছে “ম্যাপিং” সুবিধা। এতে করে আপনার জেলা শহর হতে অনায়াসে বিভিন্ন ভার্সিটি চলে যেতে পারবেন কারো সাহায্য ছাড়াই। আর রয়েছে বাস, ট্রেন টিকেট বুকিং করার সুবিধা। এমনকি রয়েছে হোটেল বুকিং করার সুবিধাও!

এই অসাধারণ অ্যাপসটি সত্যিকার অর্থেই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিযোদ্ধাদের জন্য সহায়ক হবে, কারণ এই ভর্তিযুদ্ধের এই সময়ে অনেকে তথ্যহীনতার জন্য বিপদে পড়েন, অনেকে সঠিক সময়ে ভর্তির আবেদন করতে পারেন না। আর এই সমস্যাগুলো থেকে মুক্তি পেতে অ্যাপসটি হতে পারে ভর্তিযোদ্ধাদের জন্য সহায়ক গাইডলাইন!

অ্যাপসটি ডাউনলোড করুন এই লিংকে ক্লিক করে

Comments
Spread the love