র‍্যাঞ্চো’র কথা মনে আছে? কিংবা ফারহান, রাজু, ভাইরাস কিংবা চতুর রামলিঙ্গমকে কি মনে পড়ে? সেন্টিমিটার, মিলিমিটারের চেহারা মনে করতে পারবেন কি? হ্যাঁ, বলছি বলিউডের ইতিহাসের অন্যতম সফল এবং দর্শকনন্দিত সিনেমা ‘থ্রি ইডিয়টস’ এর কথা। বলিউডি সিনেমা দেখেন, অথচ থ্রি ইডিয়টস দেখেননি, এমন দর্শক খুঁজে পাওয়া বিরল। অনেকে তো আবার বলিউডের সিনেমা দেখা শুরুই করেছেন থ্রি ইডিয়টস দেখে মুগ্ধ হবার পরে। পুরো একটা প্রজন্মের বুকে ‘অল ইজ ওয়েল’ নামের একটা অভয়বানী ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন হিরানী, এই একটা সিনেমা দিয়েই।

আমির খানের দারুণ অভিনয়, মাধবন আর শারমান জোশির সঙ্গে দুর্দান্ত একটা জুটি, খল চরিত্রে বোমান ইরানী আর একেবারেই আনকোরা ওমি বৈদ্যের মনকাড়া অভিনয় মিলিয়ে পারফেক্ট একটা প্যাকেজ ছিল থ্রি ইডিয়টস। ছেলে থেকে বুড়ো, সবার মন জয় করে নিয়েছিল সিনেমাটা। গানগুলোও ভীষণ জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। গল্প আর সংলাপ এই সিনেমাকে দিয়েছিল বাড়তি একটা মাত্রা। জীবন আর জীবনের নানাবিধ সমস্যাগুলোকে সহজভাবে নেয়ার বার্তাটা দারুণভাবে দিতে পেরেছিল থ্রি ইডিয়টস, যেটা আগে কোন বলিউডি সিনেমা সেভাবে পারেনি।

আমরা যারা স্কুল বা কলেজের ছাত্র থাকাকালীন অবস্থায় প্রথমবার থ্রি ইডিয়টস দেখেছি, তাদের কাছে এই সিনেমার আবেদনটা অন্যরকমের। নস্টালজিক হয়ে যাচ্ছি। হবারই কথা অবশ্য। বলিউডে একদম হাতেগোণা কয়েকটা সিনেমার মধ্যে থ্রি ইডিয়টস একটা, যেটা কিনা কোন অংশ স্কীপ না করেও বারবার দেখা যায়, বিরক্তি আসে না, মন ক্লান্তিতে ভরে যায় না। দর্শকপ্রিয়তার পাশাপাশি বক্স অফিসেও তোলপাড় করেছিল থ্রি ইডিয়টস, ৫৫ কোটি রুপী বাজেটের এই সিনেমা বিশ্বব্যাপী আয় করেছিল প্রায় পাঁচশো কোটি রুপী! চীনে মুক্তি দেয়ার পরে তো সেখানে হুলস্থুল ফেলে দিয়েছিল সিনেমাটা!

থ্রি ইডিয়টসের মতো আরেকটা সিনেমা বলিউড হয়তো কখনোই পাবে না। এই ধরণের মাস্টারপিস সিনেমা একটার বেশি দুটো কেউ বানাতে পারে না। কিন্ত রাজকুমার হিরানী স্বয়ং যদি থ্রি ইডিয়টস-২ বানানোর দায়িত্ব হাতে নেন, তাহলে? হ্যাঁ, বলিউড হাঙ্গামা জানাচ্ছে, এমন কিছু ঘটতে চলেছে সামনে। যদিও হিরানীর পক্ষ থেকে অফিসিয়ালি এই তথ্যের সত্যতা স্বীকার করা হয়নি, তবে থ্রি ইডিয়টসের দ্বিতীয় কিস্তি বানানোর পরিকল্পনা যে হিরানীর মাথায় আছে, সেটা সরাসরি অস্বীকারও করেননি তিনি।

থ্রি ইডিয়টস, রাজকুমার হিরানী, আমির খান, থ্রি ইডিয়টসের সিকুয়েল

থ্রি ইডিয়টসের দ্বিতীয় পর্ব কি সত্যিই আসছে? হিরানী এই প্রশ্নটা একদম উড়িয়ে দেননি, জানিয়েছেন, এই ফ্র‍্যাঞ্চাইজিটাকে এগিয়ে নেয়ার ইচ্ছে তার আছে। র‍্যাঞ্চো-রাজু-ফারহান-চতুরদের আবারও রূপালি পর্দায় হাজির করতে চান তিনি। তবে সেটা যে খুব শীঘ্রই হচ্ছে না, এটাও নিশ্চিত।

সূত্রমতে, আগের কিস্তির চিত্রনাট্যকার অভিজিত যোশীর সঙ্গে মিলে থ্রি ইডিয়টস-২ এর গল্পে সাজানোর কাজে নেমে পড়েছেন হিরানী। এক সপ্তাহ বাদেই মুক্তি পাচ্ছে তার পরিচালিত নতুন সিনেমা ‘সাঞ্জু’। সঞ্জয় দত্তের জীবনী অবলম্বনে বানানো এই সিনেমার প্রচারণা নিয়েই আপাতত ব্যস্ত সময় পার করছেন রাজকুমার হিরানী। সাঞ্জুর পালা শেষ করেই নাকি হিরানী ঝাঁপ দেবেন থ্রি ইডিয়টসের দ্বিতীয় কিস্তি লেখার কাজে। তবে এই সিনেমার জন্যে দর্শককে অপেক্ষা করতে হবে বেশ কিছুদিন, কারণ সাঞ্জু আর থ্রি ইডিয়টসের দ্বিতীয় কিস্তির মাঝে মুন্নাভাইয়ের তৃতীয় পর্ব নিয়ে আসবেন হিরানী। সেটার স্ক্রীপ্টের কাজ প্রায় শেষ, শুটিংও হয়তো শুরু হয়ে যাবে কিছুদিন পরেই।

থ্রি ইডিয়টসের মূল গল্পটা নেয়া হয়েছিল চেতন ভগতের উপন্যাস থেকে। এবারের গল্পটা কি পুরোটাই হিরানী-অভিজিতের নিজেদের লেখা কিনা, সেই বিষয়ে জানা যায়নি এখনও। সিনেমার আগের পর্বের কূশীলবদের সবাইকে দ্বিতীয় কিস্তিতেও চান পরিচালক। এক্ষেত্রে শিডিউল নেয়াটা একটু সমস্যা হতে পারে। কারণ থাগস অফ হিন্দুস্তানের পরপরই আমির খান হয়তো লম্বা সময়ের জন্যে ব্যস্ত হয়ে পড়বেন মহাভারত সিরিজ নিয়ে। তখন থ্রি ইডিয়টসের জন্যে আলাদা সময় বের করাটা তার জন্যে খানিকটা কষ্টকর হবে।

থ্রি ইডিয়টস, রাজকুমার হিরানী, আমির খান, থ্রি ইডিয়টসের সিকুয়েল

থ্রি ইডিয়টস মুক্তি পেয়েছিল নয় বছর আগে, ২০০৯ সালে। এর মাঝে কেটে গেছে প্রায় একটা দশক। আমরা বড় হয়েছি, আমাদের বয়স বেড়েছে, স্কুল-কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাটও চুকিয়ে ফেলেছি, অনেকেই চাকুরী করছি। র‍্যাঞ্চো-ফারহান-রাজুরা কেমন আছে সেটা খুব জানতে ইচ্ছে করে। র‍্যাঞ্চো কি এখনও ‘অল ইজ ওয়েল’ বলে স্বান্তনা খোঁজে? চতুর রামলিঙ্গমের শয়তানি স্বভাব এখনও যায়নি? ভাইরাস কতটা বুড়িয়ে গেছে? মিলিমিটার সেন্টিমিটারেরা কত বড় হয়েছে এখন? এসব প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেন একটামাত্র মানুষই, তিনি রাজকুমার হিরানী। থ্রি ইডিয়টসের দ্বিতীয় কিস্তির জন্যে তার দিকে তাকিয়ে ছাড়া যে আর কোন উপায় নেই আপাতত!

তথ্যসূত্র- বলিউড হাঙ্গামা।

Comments
Spread the love